বাণিজ্য সংবাদ

বাজারে স্যামসাংয়ের নতুন মডেলের রেফ্রিজারেটর

নিজস্ব প্রতিবেদক: স্যামসাং কনজ্যুমার ইলেক্ট্রনিক্স বাংলাদেশ বাজারে নিয়ে এলো টু-ডোর ও থ্রি-ডোরবিশিষ্ট স্পেসম্যাক্স সিরিজের সাইড-বাই-সাইড রেফ্রিজারেটর। গতকাল রোববার রাজধানীর একটি হোটেলে রেফ্রিজারেটরের নতুন মডেল উম্মোচন করা হয়।
অনুষ্ঠানে স্যামসাং কনজ্যুমার ইলেক্ট্রনিক্স বাংলাদেশের হেড অব বিজনেস শাহরিয়ার বিন লুৎফর বলেন, স্যামসাং রেফ্রিজারেটর স্পেস বা প্রশস্ত জায়গার ক্ষেত্রে প্রতিনিয়ত উদ্ভাবনী প্রযুক্তির মাধ্যমে ক্রেতাদের জন্য অভিনব পণ্য নিয়ে আসে। সংশ্লিষ্ট খাতের শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠান হিসেবে আমরা নতুন স্পেসম্যাক্স সিরিজের সাইড-বাই-সাইড রেফ্রিজারেটর বাজারে আনতে পেরে সত্যিই আনন্দিত। ভিন্নভাবে ডিজাইন করা রেফ্রিজারেটরগুলো ক্রেতাদের খাবার সংরক্ষণের ধারণা বদলে দেবে। তিনি বলেন, নতুন এ রেফ্রিজারেটরগুলোতে স্পেসম্যাক্স প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে, যার ফলে রেফ্রিজারেটরের আকারের তুলনায় এর ভেতরে খাবার সংরক্ষণের জন্য বেশি জায়গা পাওয়া যায় এবং তুলনামূলকভাবে কম বিদ্যুৎশক্তি ব্যবহার করে।
অনুষ্ঠানে জানানো হয়, এ সিরিজের রেফ্রিজারেটরের সব দিকে কুলিং সিস্টেম রয়েছে, যার ফলে ঠাণ্ডা বাতাস বের হওয়ার বহু নির্গমন পথ রয়েছে, যা পুরো রেফ্রিজারেটরকে ঠাণ্ডা রাখে এবং দীর্ঘ সময় খাবার তাজা রাখতে সর্বোত্তম তাপমাত্রা বজায় রাখে। রেফ্রিজারেটরগুলোতে ব্যবহার করা হয়েছে স্যামসাং ডিজিটাল ইনভার্টার কম্প্রেশর, যা ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বিদ্যুৎসাশ্রয়ী।
নতুন সিরিজের এ রেফ্রিজারেটরে রয়েছে পাওয়ার কুল ও পাওয়ার ফ্রিজ। পাওয়ার কুল বাটন চাপার সঙ্গে সঙ্গেই পাওয়া যাবে ঠাণ্ডা পানি ও আনুষঙ্গিক অন্যান্য খাদ্য। পাওয়ার ফ্রিজার ফিচারের মাধ্যমে দ্রুত গতিতে বের হওয়া ঠাণ্ডা বাতাস ফ্রিজারকে এতটাই ঠাণ্ডা করে যে সেখানে ফ্রোজেন ফুড সংরক্ষণের পাশাপাশি দ্রুত সময়ে বরফ তৈরি করা যায়।

 

 

সর্বশেষ..



/* ]]> */