দিনের খবর প্রচ্ছদ শেষ পাতা

বাজার মনিটরিংয়ে ডিএনসিসির আট দল

নিজস্ব প্রতিবেদক: ‘রমজান মাসে রাজধানীর বাজারগুলোয় নিয়মিত মনিটরিং করবে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। এজন্য আটটি দল গঠন করা হয়েছে। রমজানজুড়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য স্থিতিশীল রাখার জন্য ডিএনসিসির এলাকাভুক্ত ৪৩টি বাজার মনিটরিংয়ে কাজ করবে ওই দলগুলো’ বলে জানিয়েছেন ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম। গতকাল রাজধানীর গুলশানে নগর ভবনে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন তিনি।
মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘খাদ্য ভেজালমুক্ত রাখাসহ বাজারের নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম স্থিতিশীল রাখতে মনিটরিং করবে ওই দলগুলো। পণ্যে যারা ভেজাল দেবে বা পণ্যের দাম বেশি নেবে, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
সভায় জানানো হয়, দ্রব্যমূল্য তালিকা বাজারে দৃশ্যমান স্থানে রাখা, ডিএনসিসির বাজারগুলোয় ফরমালিন মেশানো ফল বিক্রি বন্ধ করা এবং পচা-বাসি শাকসবজি, ফলমূল প্রভৃতি বিক্রি বন্ধ নিশ্চিত করতে ডিএনসিসির পক্ষ থেকে বিশেষ পদক্ষেপ নেওয়া হবে। এছাড়া বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কমিটি, বিএসটিআই, নিরাপদ খাদ্য অধিদফতর, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়সহ অন্যান্য সরকারি প্রতিষ্ঠানের কাজে সর্বাত্মক সহযোগিতার সমন্বয়ও করবে ডিএনসিসি।
ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে সভায় বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, ‘আপনারা (ব্যবসায়ীরা) তো সারা মাস ব্যবসা করেন। এই এক মাস সংযমের মাস, এ মাসে একটু কম দামে পণ্য বিক্রি করার চেষ্টা করুন। ইফতারির সময় আমরা তো পাঁচ দশজনকে ডেকে ইফতার করাই। আপনারাও এ মাসে ক্রেতাদের ডেকে এনে কম দামে পণ্য বিক্রি করুন। এই বোধটা যদি জাগ্রত হয়, তাহলে আর কিন্তু কোনো সমস্যা নেই। আইন করে, মনিটরিং করে হয়তো বাজার নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করা যাবে; কিন্তু আপনাদের ভেতরে যদি মানবিক মূল্যবোধ জাগ্রত না হয়, তাহলে কিছু করা যাবে না।’
তিনি আরও বলেন, ‘ভেজাল খাওয়ানো মানুষ খুন করার মতো অপরাধ। মানুষ খুন করলে পুলিশ ধরে, আদালত ফাঁসি দেন। আর ভেজাল খাওয়ানো তেমনই বড় ধরনের অপরাধ। আমাদের এসব মূল্যবোধকে জাগ্রত করতে হবে। আমরা সবদিক থেকে আগে বাড়তে চাই, যেন মানুষকে একটু ভালো রাখার চেষ্টা করি যে যার জায়গা থেকে।’
র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘আমরা প্রত্যাশা করি রমজান মাসে পণ্যের বাজারদর স্থিতিশীল থাকবে। আপনারা গত এক মাসে যে লাভে পণ্য বিক্রি করেছেন, এ রমজানে তার থেকে কম লাভে পণ্য বিক্রি করবেন এটা আপনাদের কাছে আমাদের অনুরোধ। আমরা বাজার মনিটরিং করতে চাই না, জেল-জরিমানা করতে চাই না। আসুন, আমরা এ সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসি, আপনাদের (ব্যবসায়ীদের) বাজার আপনারাই মনিটরিং করুন। কিন্তু যারা খাদ্যে ভেজাল, মেয়াদহীন পণ্য বিক্রি করবে, তাদের জন্য কিন্তু কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।’
মতবিনিময় সভায় বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মফিজুল ইসলাম, এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, ভোক্তা অধিকার কর্তৃপক্ষের পক্ষে শফিউল ইসলাম লস্কর, র‌্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমসহ বিভিন্ন খাতের ব্যবসায়ী নেতা উপস্থিত ছিলেন।

সর্বশেষ..



/* ]]> */