বাজার মূলধনে বিলিয়ন ডলার ছাড়াল ব্র্যাক ব্যাংক

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বিভিন্ন খাতের তিন শতাধিক কোম্পানি তালিকাভুক্ত রয়েছে। এর মধ্যে ডিএসইর মোট বাজার মূলধনের দুই শতাংশেরও বেশি দখল করে নিয়েছে ব্র্যাক ব্যাংক। ব্যাংকটির বাজার মূলধন বিলিয়ন ডলার বা আট হাজার কোটি টাকা অতিক্রম করেছে, যা দেশের ব্যাংকিং খাতে প্রথম। আর ডিএসইর বাজার মূলধনের শীর্ষ পাঁচটি কোম্পানির তালিকায় স্থান করে নিয়েছে বেসরকারি খাতের এই ব্যাংকটি।

ডিএসই সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বুধবার ব্র্যাক ব্যাংকের শেয়ারদর গত দুই বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ অবস্থানে দাঁড়ায়। প্রতিটি শেয়ার সর্বোচ্চ ১০৪ টাকায় লেনদেন হয়। গতকাল ব্যাংকটির শেয়ারদর দুই দশমিক ৫১ শতাংশ বৃদ্ধি পায়। ক্লোজিং প্রাইজ অনুযায়ী কোম্পানিটির মূলধন দাঁড়ায় আট হাজার ৪৯২ কোটি টাকা, যা এক বিলিয়ন ডলারের বেশি।

কথা হয় ব্র্যাক ব্যাংকের হেড অব কমিউনিকেশনস জারা জেবিন মাহবুবের সঙ্গে। তিনি শেয়ার বিজকে বলেন, ‘সর্বোচ্চ গ্রাহকসেবার কারণে ব্যাংকের অবস্থান দিন দিন ভালো হচ্ছে। একইসঙ্গে গ্রাহক ও শেয়ারহোল্ডারদের আস্থাও বাড়ছে। এসএমই ব্যাংকিং, রিটেইল ব্যাংকিং ও ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকিং এগিয়ে যেতে বড় ভ‚মিকা রেখেছে।’

উল্লেখ্য, ২০০৭ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত এ ব্যাংকটির অনুমোদিত মূলধন এক হাজার ২০০ কোটি টাকা। আর পরিশোধিত মূলধন ৮৫৫ কোটি টাকা। কোম্পানিটির মোট শেয়ারের ৪৪ দশমিক ৪৪ শতাংশ রয়েছে উদ্যোক্তা পরিচালকদের হাতে। প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের হাতে রয়েছে সাত দশমিক ২৪ শতাংশ শেয়ার। ৪৩ দশমিক শূন্য দুই শতাংশ রয়েছে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের হাতে। বাকি পাঁচ দশমিক ৩০ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে।

প্রযুক্তি ও সেবার মানোন্নয়নে বিদেশি স্ট্র্যাটেজিক পার্টনার নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্যাংকটির সহযোগী প্রতিষ্ঠান দেশের সবচেয়ে বড় মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস প্রোভাইডার ‘বিকাশ লিমিটেড’। ‘বিকাশ’ এরই মধ্যে স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারের কাছে কিছু শেয়ার বিক্রির পরিকল্পনার একটি সারসংক্ষেপ তৈরি করেছে। এ খবরে ব্র্যাক ব্যাংকের শেয়ারদর বাড়তে থাকে বলে জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে জারা জেবিন মাহবুব বলেন, স্ট্র্যাটেজিক পার্টনার নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হলেও এখন পর্যন্ত সুনির্দিষ্ট প্রতিষ্ঠান বাছাই কিংবা চুক্তির বিষয়টি চ‚ড়ান্ত হয়নি।

ব্র্যাক ব্যাংক গত অর্ধবার্ষিকীতে (জানুয়ারি-জুন, ১৭) ৩৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে। আলোচ্য সময়ে কোম্পানির সমন্বিত মুনাফা হয়েছে ২৪২ কোটি ১০ লাখ টাকা। আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় এই ব্যাংকের মুনাফা বেড়েছে ৬৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা। গত বছরের একই সময়ে কোম্পানির কর-পরবর্তী সমন্বিত মুনাফা ছিল ১৭৪ কোটি ৬০ লাখ টাকা।

আলোচ্য সময়ে কোম্পানির শেয়ারপ্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে দুই টাকা ৬৬ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল দুই টাকা ১০ পয়সা। আর এককভাবে ইপিএস হয়েছে দুই টাকা ৭২ পয়সা; আগের বছর একই সময়ে যা দুই টাকা ৪২ পয়সা ছিল। ৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত সময়ে শেয়ারপ্রতি সমন্বিত প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ২৭ টাকা ৮৬ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে এটি ২৬ টাকা ১৫ পয়সা ছিল।

সর্বশেষ (এপ্রিল-জুন ’১৭) মেয়াদে ব্র্যাক ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে এক টাকা ২৫ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল এক টাকা ২৫ পয়সা। আর এককভাবে ইপিএস হয়েছে এক টাকা ৪১ পয়সা, আগের বছর একই সময়ে যা এক টাকা ২৬ পয়সা ছিল।