প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

বাজেট ঘোষণার আগে লেনদেনে সক্রিয় বিনিয়োগকারীরা

রুবাইয়াত রিক্তা: ঈদের ছুটি শেষে আসন্ন বাজেট ঘোষণার আগে পুঁজিবাজার ধীরে ধীরে ইতিবাচক হচ্ছে। সূচকের ঊর্ধ্বগতি সেসঙ্গে লেনদেনও বাড়ছে। বিনিয়োগকারীরা ক্রমেই সক্রিয় হয়ে উঠছেন। ফলে বাড়ছে শেয়ারের দর। গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রায় ৬০ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে। গতকাল জুন ক্লোজিং কোম্পানিগুলোতে আগ্রহ দেখা গেছে বিনিয়োগকারীদের। এর মধ্যে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের শীর্ষে ছিল জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাত। এছাড়া প্রকৌশল, বস্ত্র, ওষুধ ও রসায়ন, তথ্য ও প্রযুক্তি এবং খাদ্য খাতের প্রতি বিনিয়োগকারীদের অধিক আগ্রহ দেখা গেছে।
পাঁচ শতাংশ বেড়ে জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে লেনদেন হয় ১৬ শতাংশ। এ খাতে ৮৪ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে। সাড়ে ২৩ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে শীর্ষে উঠে আসে ইউনাইটেড পাওয়ার। কোম্পানিটির শেয়ারদর বেড়েছে ১২ টাকা ৩০ পয়সা। এরপরেই খুলনা পাওয়ার কোম্পানির সাড়ে ১৬ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে তিন টাকা ৮০ পয়সা। দর বৃদ্ধিতে পঞ্চম অবস্থানে উঠে আসে খুলনা পাওয়ার। এছাড়া সিভিও পেট্রোকেমিক্যালের দর সাড়ে ছয় শতাংশ, লিন্ডে বিডির দর সাড়ে পাঁচ শতাংশ বেড়েছে। এরপরে সাধারণ ও জীবন বিমা মিলে এ খাতে লেনদেন হয় ১৪ শতাংশ। এ খাতে বিক্রির চাপ থাকায় ৪৯ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। আট শতাংশ বেড়ে গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। এছাড়া ন্যাশনার লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সোয়া ১২ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে এক টাকা ২০ পয়সা। ব্যাংক খাতে বিক্রির চাপে ১৩ শতাংশ লেনদেন হয়। এ খাতে ৬০ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। ব্র্যাক ব্যাংকের সাড়ে ১৪ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে ৩০ পয়সা। প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ১১ শতাংশ। এ খাতে ৮৪ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। বিবিএস কেব্লসের আট কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে এক টাকা ৬০ পয়সা। বিডি ল্যাম্পসের দর সাড়ে আট শতাংশ বেড়েছে। বস্ত্র খাতে লেনদেন হয় ১০ শতাংশ। এ খাতে প্রায় ৮৪ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে। আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজের সোয়া ১১ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে সাড়ে পাঁচ টাকা। কোম্পানিটি দর বৃদ্ধিতে দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল। সাড়ে ৯ শতাংশ বেড়ে দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে সাফকো স্পিনিং। প্রাইম টেক্সটাইলের সাড়ে পাঁচ শতাংশ, আলহাজ টেক্সটাইলের দর পাঁচ শতাংশ বেড়েছে। ওষুধ ও রসায়ন খাতে ৮৭ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। জেএমআই সিরিঞ্জের প্রায় আট কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ১৯ টাকা। খাদ্য খাতের বিএটিবিসির সাড়ে ১৩ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ২৮ টাকা। বিবিধ খাতের আমান ফিডের সাড়ে ছয় কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে দুই টাকা। এছাড়া তথ্য ও প্রযুক্তি খাতে শতভাগ ও ভ্রমণ, অবকাশ খাতে কোনো কোম্পানি দরপতনে ছিল না।

সর্বশেষ..