বিশ্ব সংবাদ

বাণিজ্যযুদ্ধে হাতিয়ার হিসেবে দুষ্প্রাপ্য খনিজ পদার্থ ব্যবহার করবে চীন

শেয়ার বিজ ডেস্ক: বাণিজ্যযুদ্ধের পাল্টা আঘাত হিসেবে দুষ্প্রাপ্য খনিজ পদার্থকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করবে চীন। গতকাল বুধবার কমিউনিস্ট পার্টির পত্রিকা দ্য পিপলস ডেইলির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘পরে যুক্তরাষ্ট্র যেন অভিযোগ করতে না পারে যে, তাদের আগে সতর্ক করা হয়নি।’ খবর: বিবিসি ও রয়টার্স।
পত্রিকাটি মার্কিন বাণিজ্যযুদ্ধ নিয়ে প্রতিবেদনের শিরোনাম দেয় ‘যুক্তরাষ্ট্র, চীনের পাল্টা আঘাতের সক্ষমতাকে ছোট করে দেখবেন না’। গত সপ্তাহে একটি দুষ্প্রাপ্য খনিজ কেন্দ্র পরিদর্শন করেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। ওই সফরে যেসব পদার্থ রফতানিতে চীনের নেতৃত্ব রয়েছে সেগুলোর রফতানি বন্ধ করে যুক্তরাষ্ট্রকে পাল্টা আঘাতের বিষয়ে মন্তব্য করেন তিনি।
অন্তত ১৭টি রাসায়নিক উপাদান আছে যেগুলো বৈদ্যুতিক ও সামরিক উপকরণে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু চীনা পণ্যের ওপর যুক্তরাষ্ট্র অতিরিক্ত শুল্কারোপ করায় এ পণ্যগুলোর মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে।
চীনা প্রশাসন এখনো এ খনিজ পদার্থগুলোর যুক্তরাষ্ট্রে রফতানি বন্ধ করার ব্যাপারে প্রকাশ্যে কোনো মন্তব্য করেনি। কিন্তু ওই পত্রিকার খবরে তা বন্ধ করার ইঙ্গিত দেওয়া হচ্ছে। এমনকি এই পদার্থ যুক্তরাষ্ট্রে রফতানি বন্ধ করা হবে বলে মন্তব্য করেন গ্লোবাল টাইমসের সম্পদকও।
উল্লেখ্য, ২০১০ সালে জাপানকে শিক্ষা দিতেই একই পদক্ষেপ নিয়েছিলো বেইজিং। চীনের একটি ট্রলারের সঙ্গে জাপানের দুটি জাহাজের সংঘর্ষের জেরে চীন জাপানে দুষ্প্রাপ্য খনিজ রফতানি বন্ধ করে দেয়। ২০১২ সালে জাপান, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) যৌথভাবে বিশ্ববাণিজ্য সংস্থায় চীনের ওই কড়াকড়ির ব্যাপারে আপত্তি জানালে আবারও সীমিত মাত্রায় তা রফতানি শুরু করে বেইজিং।
এদিকে জাপান সফরকালে যুক্তাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, চীনের সঙ্গে বাণিজ্যচুক্তি করতে এখনই প্রস্তুত নয় যুক্তরাষ্ট্র। চলতি মাসের দু’দেশের মধ্যে চলমান আলোচনা স্থগিতের পর ট্রাম্পের কাছ থেকে এমন মন্তব্য এলো।
জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের সঙ্গে দেওয়া এক যৌথ বিবৃতিতে ট্রাম্প বলেন, ‘হয়তো চীন একটি চুক্তিতে পৌঁছাতে চাচ্ছে। কিন্তু আমরা চুক্তি করতে প্রস্তুত নই। তবে চুক্তির বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। ট্রাম্প বলেন, আমি মনে করি ভবিষ্যতে একটি চুক্তিতে পৌঁছাব। আমরা সেভাবেই এগুচ্ছি।
শুল্কের বোঝা চাপিয়ে চীনকে কোণঠাসা করতে চাইছে যুক্তরাষ্ট্র। বাণিজ্যযুদ্ধের মধ্যেই সম্প্রতি আরও ২০ হাজার কোটি ডলারের চীনা পণ্যে আমদানি শুল্ক বাড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে এ চাপে আত্মসমর্পণ করবে না চীন। সম্প্রতি চীন স্পষ্ট বলেছে, বাইরের কোনো চাপে তারা ভীত হবে না।

সর্বশেষ..