বার্সাকে শেষ আটে নিলেন মেসি

ক্রীড়া ডেস্ক: ন্যু-ক্যাম্পে আবারও জ্বলে ওঠেন লিওনেল মেসি। নিজে করেন জোড়া গোল। আবার সতীর্থদের দুটি গোলে রাখেন অবদান। শেষ পর্যন্ত এ ধারা ধরে রেখে লিওঁকে উড়িয়ে বার্সেলোনাকে চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ আটে নেন তিনি।
ঘরের মাঠে গত পরশু শেষ ষোলোর ফিরতি লেগে লিওঁকে ৫-১ গোলে হারিয়ে দেয় বার্সেলোনা। দুটি গোল করেন মেসি। একবার করে জালের দেখা পান ফিলিপে কৌতিনহো, উসমান ডেম্বেলে ও
জেরার্ড পিকে।
ম্যাচের প্রথমার্ধে পাত্তাই পায়নি লিওঁ। অতিথিদের নিয়ে রীতিমতো ছেলেখেলায় মেতে ওঠে বার্সেলোনা। সে সুবাদে ১৬তম মিনিটে পেনাল্টি পেয়ে যায় দলটি। সুয়ারেজকে ডিবক্সে ফাউল করে বসেন লিওঁর খেলোয়াড়। পরের মিনিটে গোলরক্ষক বরাবর সোজাসুজি নেওয়া স্পটকিকে বল জালে জড়ান মেসি। এরপর অতিথিদের রক্ষণে সুয়ারেজ হানা দেন। ৩১তম মিনিটে তার দুর্দান্ত পাস থেকে টোকা দিয়ে গোল করেন কৌতিনহো।
বিরতির পর ম্যাচে ফিরতে দারুণ লড়াই করে লিওঁ। ৫৮তম মিনিটে লুকাস টুসার্টের গোলে ব্যবধানও কমায় অতিথিরা। কিন্তু ৭৮তম মিনিটে মেসির গোলে ব্যবধান আবারও বাড়ায় বার্সা। বুসকেটসের বাড়ানো বল নিজ আয়ত্তে নিয়ে দারুণ দক্ষতায় দিজোঁর গোলরক্ষকে ফাঁকি দেন কিং লিওঁ। ক্লাব ফুটবলের ইউরোপ সেরা প্রতিযোগিতায় এবারের আসরে মেসির এটি অষ্টম ও সব মিলিয়ে ১০৮তম গোল। আর ঘরের মাঠে ৬১ ম্যাচে হলো ৬২ গোল। এরই সঙ্গে টানা ১১ মৌসুমে ক্লাবের হয়ে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে কমপক্ষে ৩৫টি করে গোল করার কীর্তি গড়লেন আর্জেন্টিনা অধিনায়ক। এর তিন মিনিট পর নিজে গোল না করে কিং লিওঁ পিকের দিয়ে প্রতিপক্ষের জালে বল জড়িয়ে দেন। এদিকে ম্যাচের শেষ দিকে কৌতিনহোর বদলি হিসেবে নামা ডেম্বেলেকে দিয়ে গোল করান আর্জেন্টিনা তারকা এ ফরোয়ার্ড। তাতে চ্যাম্পিয়নস লিগে ঘরের মাঠে টানা ৩০ ম্যাচ অপরাজিত (২৭ জয়, তিন ড্র) থাকল বার্সেলোনা, যা প্রতিযোগিতাটির রেকর্ড।