বিএসসিতে নতুন জাহাজ গুরুত্বপূর্ণ সংযোজন

দীর্ঘ ২৭ বছর পর বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের (বিএসসি) বহরে যুক্ত হলো বাল্ক ক্যারিয়ার বা বড় জাহাজ। ‘এমভি বাংলার জয়যাত্রা’ নামের এ জাহাজটি বর্তমানে বহির্নোঙরে আছে। গত বৃহস্পতিবার থেকে জাহাজটিতে বয়ে আনা পাথর খালাস শুরু হয়েছে। নতুন এ জাহাজ বহরে যুক্ত হওয়ায় বিএসসি ঘুরে দাঁড়ানোর পথে এক ধাপ এগোল বলা যায়। এ-সংক্রান্ত একটি খবর শেয়ার বিজ গতকাল গুরুত্বের সঙ্গে প্রকাশ করেছে।
বহর বলতে যা বোঝায়, প্রকৃতপক্ষে বিএসসি’র এত দিন তা ছিল না। গত ২৭ বছরে ছোট হতে হতে বহরে মাত্র দুটি জাহাজ ছিল। নতুন এ জাহাজ যুক্ত হওয়ায় জাহাজ সংখ্যা দাঁড়াল তিন। একসময় বিএসসি’র বহরে ৩৬টি জাহাজ ছিল। জানা গেছে, চায়না এক্সিম ব্যাংকের ঋণে বিএসসি ছয়টি জাহাজ কেনার সিদ্ধান্ত নেয়। এমভি বাংলার জয়যাত্রা সেগুলোর একটি। সরবরাহের জন্য অপেক্ষমাণ অপর পাঁচটি হলো বাংলার সমৃদ্ধি, বাংলার অর্জন, বাংলার অগ্রযাত্রা, বাংলার অগ্রদূত ও বাংলার অগ্রগতি। আগামী ফেব্রুয়ারির দিকে বাকি জাহাজগুলো পাওয়া যেতে পারে। এগুলো নির্মাণে মোট ব্যয় হচ্ছে এক হাজার ৮৪৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে চায়না এক্সিম ব্যাংক ঋণ দিয়েছে এক হাজার ৪৪৮ কোটি এবং ৩৯৫ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে সংস্থার নিজস্ব তহবিল থেকে।
বাংলায় একটি প্রবাদ আছে, ঢাল নেই তলোয়ার নেই, নিধিরাম সর্দার। ৩৬টি থেকে কমতে কমতে দুটি জাহাজে ঠেকে বিএসসি প্রকৃতপক্ষে নিধিরাম সর্দারে পরিণত হয়েছিল। সংস্থাটির মূল সম্পদ জাহাজ। সেই জাহাজই যদি না থাকল, তবে আর কী-ই বা থাকে। এমন এক পরিস্থিতিতে নতুন ছয়টি জাহাজ যুক্ত হওয়া অনেক বড় বিষয়। এ জাহাজ সংযুক্ত হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটি গতি ফিরে পাবে বলেই মনে হয়। এছাড়া বিভিন্ন দেশে এ জাহাজ জাতীয় পতাকা বহন করে দেশের পরিচিতিও তুলে ধরবে।
নতুন যুক্ত হওয়া জাহাজ ‘এমভি বাংলার জয়যাত্রা’ সূচনালগ্নেই একটি ভালো উদ্যোগ নিয়েছে। চীনা রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমপোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট করপোরেশনের সঙ্গে জাহাজ কেনায় সমঝোতা স্মারক সই হয় ২০১২ সালের জুনে। তার আলোকে চলতি বছরের জুলাইয়ে জাহাজটির সরবরাহ নেওয়া হয়। এটি দেশে নিয়ে আসার সময় খালি অবস্থায় এলে ফিক্সড অপারেটিং কস্ট (এফওসি) বাবদ প্রচুর ব্যয় হতো বিএসসির। সে অর্থ সাশ্রয় করতে এফওসি’র ভিত্তিতে একটি কোম্পানি নিয়োগ দেওয়া হয়। তাদের পরিচালনায় সেটা সংযুক্ত আরব আমিরাতের আল ফুজাইরা বন্দর থেকে গত ২০ সেপ্টেম্বর ২৭ হাজার টন পাথর বোঝাই করে, যা এখন খালাস হচ্ছে।
এমভি বাংলার জয়যাত্রা জাহাজটি ৩৯ হাজার ডিডব্লিউ ক্ষমতাসম্পন্ন আধুনিক প্রোডাক্ট অয়েল ট্যাংকার, যা বাল্ক কার্গো ক্যারিয়ার জাহাজ হিসেবে পরিচিত। দেশের জ্বালানি চাহিদা পূরণে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন বছরে ৬০ লাখ টনের বেশি জ্বালানিপণ্য আমদানি করে। এসব পণ্য আমদানিতে ফ্রেইট বাবদ প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয় হয়। এ অবস্থায় জাহাজটি বাংলাদেশের প্রোডাক্ট অয়েল আমদানি ও রফতানিতে গুরুত্বপূর্ণ বাহন হিসেবে যুক্ত হতে যাচ্ছে। এছাড়া বছরে পাঁচ কোটি টন খাদ্যশস্য, বিপুল পরিমাণ অপরিশোধিত চিনি, সিমেন্ট ক্লিংকার, সার প্রভৃতি বাল্কে আমদানি হয়। এসব আমদানি করতে হয় ভাড়া করা জাহাজে। তাই বিএসসি’র জাহাজ আমদানির উদ্যোগ প্রতিষ্ঠানটিকে ঘুরে দাঁড়াতে সাহায্য করবে। একই সঙ্গে পণ্য আমদানিতে বিপুল বিদেশি মুদ্রার সাশ্রয় হবে।