প্রচ্ছদ শেষ পাতা

বিমায় ইউএমপি নিয়ে সংশয় বাড়ছে

পর্যালোচনা কমিটি গঠনে ধীরগতি

পলাশ শরিফ: স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করতে এসএমএসের মাধ্যমে বিমা গ্রাহককে পলিসির তথ্য জানানোর উদ্যোগ নিচ্ছে বিমা নিয়ন্ত্রক সংস্থা বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ)। এর পর থেকে গ্রাহকের তথ্যের নিরাপত্তা ও এসএমএসের ব্যয় ইস্যুতে আইডিআরএ’র নির্দেশনা নিয়ে অস্বস্তিতে আছেন বিমা খাতসংশ্লিষ্টরা। এ নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে আলোচনার পর উদ্ভূত পরিস্থিতি পর্যালোচনার জন্য দু’মাস আগে কমিটি গঠনের উদ্যোগ নিয়েছিল আইডিআরএ। কিন্তু খাতসংশ্লিষ্টদের অনীহা-অসহযোগিতায় দু’মাসেও পর্যালোচনা কমিটি হয়নি। এর জের ধরে ওই উদ্যোগের বাস্তবায়ন নিয়ে সংশয় বাড়ছে।
প্রাপ্ত তথ্যমতে, বিমা খাতে উন্নত গ্রাহকসেবা এবং লেনদেন প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে ইউনিফাইড মেসেজিং প্ল্যাটফর্ম (ইউএমপি) গড়ে তুলছে বিমা নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইডিআরএ। ওই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে বিমা কোম্পানির গ্রাহকদের পলিসি-সংক্রান্ত তথ্য এসএমএসের মাধ্যমে পাঠানো হবে। এ বিষয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থাকে কারিগরি সহায়তা দেবে বেসরকারি তথ্য-প্রযুক্তি সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ‘দুয়ার সার্ভিস লিমিটেড’।
২০১৮ সালের মাঝামাঝিতে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান দুয়ার সার্ভিস লিমিটেডের দেওয়া প্রস্তাবনা আমলে নিয়ে ইউএমপি বিষয়ে কাজ শুরু করে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। ওই বছরের ২৮ নভেম্বর এ বিষয়ে কোম্পানিগুলোকে দিকনির্দেশনা দিয়েছে আইডিআরএ। আর এসএমএস পাঠানোর জন্য প্রতিটি পলিসির বিপরীতে তিন মাস অন্তর কোম্পানির কাছ থেকে আট টাকা করে খরচ নেওয়া হবে। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে এ বিষয়ে বিমা কোম্পানিগুলোকে দিকনির্দেশনা দিয়েছে বিমা নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইডিআরএ। আর নিয়ন্ত্রক সংস্থার নির্দেশনায় নাখোশ হয়ে বিমা পলিসি গ্রাহকের তথ্যের নিরাপত্তা ও এসএমএসের জন্য বাড়তি ব্যয় ইস্যুতে আপত্তি তোলে বিমা খাতসংশ্লিষ্টরা।
ইউএমপি নিয়ে আপত্তি নিয়ে কোম্পানির প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনাও করেছে আইডিআরএ। উদ্ভূত পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে গত এপ্রিলে বিমা কোম্পানির প্রতিনিধিদের নিয়ে আট সদস্যের পর্যালোচনা কমিটি গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে আইডিআরএ। এজন্য প্রায় দু’মাস আগে বিমা খাতের মালিক ও শীর্ষ কর্মকর্তাদের সংগঠনের কাছ থেকে প্রতিনিধির তালিকা চেয়েছে আইডিআরএ। ইউএমপির বিভিন্ন দিক নিয়ে দায়িত্বশীলদের সঙ্গে আলোচনা করে ওই কমিটির পর্যালোচনা প্রতিবেদন দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এরপর দু’মাসেও কমিটি গঠন হয়নি।
আইডিআরএ’র আহ্বানে সাড়া দিচ্ছে না উদ্যোক্তাদের সংগঠন বিআইএ, কমিটি গঠনের জন্য অদ্যাবধি প্রতিনিধির নাম পাঠায়নি। আর খাতসংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে সাড়া না পেয়ে বাধ্য হয়ে ইউএমপি ইস্যুতে ধীরে হাঁটছে আইডিআরএ। নিয়ন্ত্রক সংস্থার সঙ্গে খাতসংশ্লিষ্টদের মতবিরোধের জেরে শেষ পর্যন্ত ওই উদ্যোগ আলোর মুখ দেখবে কি না, এমন প্রশ্ন উঠছে।
তথ্যমতে, বেশিরভাগ কোম্পানির বিরোধিতার মুখে বিমা কোম্পানির মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনও (বিআইএ) বিষয়টি নিয়ে ধীরে হাঁটছে, যে কারণে নিয়ন্ত্রক সংস্থার চিঠি পাওয়ার পরও প্রতিনিধির তালিকা জমা দেয়নি। আর পর্যালোচনা কমিটি গঠনের জন্য বিআইএ’র প্রতিনিধির তালিকা না পাওয়ায় আইডিআরএ এ বিষয়ে এগোতে পারছে না। এমনকি রহস্যজনক কারণে ওই উদ্যোগের অগ্রগতির বিষয়ে সংস্থাটির দায়িত্বশীলরাও মুখ খুলছেন না। দফায় দফায় যোগাযোগ করেও এ বিষয়ে আইডিআরএ’র চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান পাটোয়ারিসহ দায়িত্বশীল কারও বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
বিআইএ প্রেসিডেন্ট শেখ কবির হোসেন শেয়ার বিজকে বলেন, ‘এসএমএসের মাধ্যমে বিমা পলিসির তথ্য পাঠানোর ক্ষেত্রে গ্রাহকের তথ্যের নিরাপত্তা ও বাড়তি ব্যয় নিয়ে কথা হচ্ছে। এসব বিষয় খতিয়ে দেখতে কমিটি করার কথা। এজন্য আমাদের প্রতিনিধি চেয়েছে। আমার মনে হচ্ছে, বিষয়টি আপাতত স্থগিত রয়েছে, যে কারণে আর কোনো তালিকা বা চিঠি পাঠানো হয়নি। তবে আইডিআরএ কখনও চাইলে আমরা প্রতিনিধি পাঠাব।’
উল্লেখ্য, অসুস্থ প্রতিযোগিতা, জনবল সংকট, লেনদেনে অনিয়মের অভিযোগ, বিমা ঝরে পড়া ও বিমা দাবি পূরণে কালক্ষেপণসহ আরও কিছু কারণে বিমার প্রতি সাধারণ মানুষের আগ্রহ বাড়ছে না। তাই পলিসির ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা-জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতেই ইউএমপি বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিচ্ছে আইডিআরএ। এতে গ্রাহকের অর্থের নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে এবং বিমার প্রতি সাধারণ মানুষের আস্থা বাড়বে বলেও মনে করছে নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।

 

সর্বশেষ..