স্পোর্টস

বিশ্বকাপ টিকিট কিনতেই কোটি টাকা ব্যয় বিসিবির!

ক্রীড়া ডেস্ক: মাত্র কয়েকদিনের অপেক্ষা। এরপরই দ্বাদশ বিশ্বকাপের মূল লড়াই মাঠে গড়াবে। যা স্বচক্ষে দেখতে দেশ-বিদেশ থেকে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কাছে টিকিট চাচ্ছেন অসংখ্য টাইগার ভক্তরা। এ জন্য অনেকে বোর্ডের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে ধরনাও দিচ্ছেন। তাই অনেকটা বাধ্য হয়েই আইসিসির কাছ থেকে টিকিট কিনেছে বিসিবি।
বিশ্বকাপ টিকিট কিনতে বিসিবি ঢালছে প্রায় দুই কোটি টাকা। এমনটাই জানিয়েছেন দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থাটির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন। ‘স্টেকহোল্ডারদের কিছু টিকিট দিতে হবে। আমরা আইসিসির কাছ থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ টিকিট পাই। তবে তা দিয়ে চাহিদা মেটে না। সবার ইচ্ছা পূরণ করতে কিছু টিকিট কিনতে হচ্ছে। হাতে পাওয়ার পরই এ সংখ্যা জানানো হবে।’
দ্বাদশ বিশ্বকাপের প্রতি ম্যাচের জন্য বিসিবি এমনিতেই পাবে ১০০ টিকিট। মূলত খেলোয়াড়দের জন্য এ টিকিট। তবে সেখান থেকে ক্রিকেটারদের জন্য ম্যাচপ্রতি দুটি করে টিকিট বরাদ্দ করেছে বিসিবি। বাকি ৭০টি টিকিট নিজেদের কাছে রেখে দেবে। ৯ ম্যাচে ৬৩০টি টিকিট থাকবে হাতে। এখান থেকে পরিচালকদের ম্যাচপ্রতি দেওয়া হবে দুটি করে টিকিট। ২৫ জন পরিচালকের জন্য ৯ ম্যাচে বরাদ্দ থাকবে ৪৫০টি টিকিট। স্বাভাবিকভাবেই অবশিষ্ট ১৮০টি টিকিট দিয়ে বিশাল চাহিদা পূরণ সম্ভব নয়। তাই বাধ্য হয়েই টিকিট কিনতে হচ্ছে বলে জানিয়েছে বিসিবির সিইও, ‘ঢাকার ক্লাব ও অন্যান্য স্টেকহোল্ডারদের চাহিদা মেটাতে টিকিট কিনতে হচ্ছে। পরিচালকরাও বোর্ডের কাছ থেকে তা কিনতে আগ্রহ দেখিয়েছেন। বিশেষ করে ঈদ সামনে থাকায় চাহিদা বেড়ে গেছে। তাই টিকিট কিনতে কয়েক কোটি টাকা গুনতে হচ্ছে।’
বিসিবির টিকিট কিনতে কত খরচ হচ্ছে? এ ব্যাপারে এখনও নির্দিষ্ট করে কিছু বলতে পারেননি নিজামুদ্দিন চৌধুরী, ‘টিকিট হাতে পাওয়ার পর টাকার অঙ্ক জানাতে পারব। খুব বেশি খরচ হবে না। আমরা আইসিসির কাছে যে পরিমাণ টিকিট চেয়েছি তা নাও পাওয়া যেতে পারে। কারণ অন্য বোর্ডগুলোও টিকিট কিনবে।’
যে কোন দেশের ক্রিকেট বোর্ডকে তিন কোটি টাকার সমপরিমাণ টিকিট চেয়ে ‘রিকুজিশন’ দেওয়ার সুযোগ রেখেছে আইসিসি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিসিবি এক পরিচালক জানান, তিন কোটি টাকা সমমূল্যেরই টিকিট চাওয়া হয়েছে। শেষ পর্যন্ত হয়তো দুই কোটি টাকার পাওয়া যাবে।
বিশ্বকাপের টিকিট কিনতে আইসিসির সঙ্গে যাবতীয় যোগাযোগ রাখছেন বিসিবি প্রেসিডেন্টের পিএস তৌহিদ মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘কেনা টিকিটের ১০ ভাগ রাখবে বিসিবি। সেগুলো রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় দেওয়া হতে পারে। বাকি ৯০ ভাগ কেনে নেবেন বোর্ড পরিচালক ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। শুধু টাকা পরিশোধের পরই টিকিট দেওয়া হবে।’
আইসিসির কাছ থেকে বিসিবি টিকিটি কিনলেও তা পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় পড়েছেন স্টেকহোল্ডাররা। তাদের এ টিকিটের বেশিরভাগ যাবে প্রভাবশালীদের হাতে।

সর্বশেষ..



/* ]]> */