বিশ্ববাজারে কমেছে তেলের দাম

সিরিয়ায় হামলা ও যুক্তরাষ্ট্রে উৎপাদন বৃদ্ধির প্রভাব

শেয়ার বিজ ডেস্ক: গতকাল সোমবার সপ্তাহের প্রথম দিনে বিশ্ববাজারে কমেছে তেলের দাম। সিরিয়ায় পশ্চিমা জোটের হামলা ও যুক্তরাষ্ট্রে জ্বালানি তেলের উত্তোলন বৃদ্ধিতে আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যটির দাম বেড়েছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। খবর রয়টার্স।
গতকাল যুক্তরাষ্ট্রের অয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিটে (ডব্লিউটিআই) ভবিষ্যৎ সরবারের চুক্তিতে প্রতি ব্যারেল জ্বালানি তেলের দর ছিল ৬৬ ডলার ৭১ সেন্টে। আগের কর্মদিবসের তুলনায় ৬৮ সেন্ট বা এক দশমিক শূন্য এক শতাংশ কম। এছাড়া আন্তর্জাতিক বেঞ্চমার্কে লন্ডনের ব্রেন্ট তেল বিক্রি হয় প্রতি ব্যারেল ৭১ ডলার ৭৮ সেন্টে। আগের দিনের তুলনায় ৮০ সেন্ট বা এক দশমিক এক শতাং কম।
সিরিয়ার দৌমা শহরে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করে সরকারি হামলা চালানোর অভিযোগে গত শুক্রবার রাতে সিরিয়ায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন ও ফ্রান্স। তারা সিরিয়ার তিনটি সরকারি স্থাপনায় হামলা করে। যুক্তরাষ্ট্রের দাবি, স্থাপনাগুলোতে রাসায়নিক অস্ত্র তৈরি ও মজুত করা হয়ে থাকে।
ব্যবসায়ীরা বলছেন, সিরিয়ায় হামলার পর এশিয়ার বাজার খুব সতর্কভাবে শুরু হয়েছে। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের তেল উত্তোলন বাড়ানোও তেলের বাজারে চাপ সৃষ্টি করেছে।
যুক্তরাষ্ট্রের তেল উত্তোলনকারী প্রতিষ্ঠান বেকার হাঘস গত শুক্রবার জানিয়েছে, মার্কিন জ্বালানি কোম্পানিগুলো গত ১৩ এপ্রিল থেকে আরও নতুন সাতটি কূপ থেকে তেল উত্তোলন শুরু করেছে। এর ফলে ২০১৫ সালের মার্চ মাসের পর এখনই দেশটি সর্বোচ্চ তেল উত্তোলন করছে।
ভালো চাহিদা থাকার কারণে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে উত্তেজনা বাড়ার পরও গত ফেব্রুয়ারি মাসের চেয়ে ১৬ শতাংশ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে ব্রেন্ট তেল।
যদিও সিরিয়া বিশ্ববাজারে তেল উত্তোলনে গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে নেই। তারপরও বৃহত্তর মধ্যপ্রাচ্য বিশ্বে অপরিশোধিত তেল রফতানির জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচিত। এ অঞ্চলে উত্তেজনা বিশ্ববাজারে তেলের দাম কমায়।
অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের ব্যাংকিং গ্রুপ এএনজেড ব্যাংক বলেছে, মধ্যপ্রাচ্যে বড় ধরনের গোলযোগের প্রভাবের আশঙ্কায় বিনিয়োগকারীরা উদ্বিগ্ন হয়ে আছেন।