স্পোর্টস

বিস্ময়ের নতুন নাম সাকিব

চঞ্চল রহমান: অসাধারণ অলরাউন্ডার। ওয়ানডে র‌্যাংকিংয়েও শীর্ষে। বোলার হিসেবে বেশ ধারাবাহিক। কিন্তু ব্যাটসম্যান সাকিব আল হাসানের নামটা এতদিন বিশ্বসেরাদের কাতারে নিতে অনেকেই দ্বিধা করতেন। এবারের বিশ্বকাপে শুরু থেকেই অবশ্য তাদের দাঁতভাঙা জবাবটা এ বাঁহাতি ব্যাটসম্যান দিচ্ছেন দুর্দান্তভাবেই। পরপর চার ম্যাচে হাফ সেঞ্চুরিঊর্ধ্ব ইনিংস খেলেছেন। তার মধ্যে আবার দুটি সেঞ্চুরি। স্বাভাবিকভাবেই তো বিস্ময়ের নতুন নামে আবির্ভূত হয়েছেন বাংলাদেশের প্রাণ, সাকিব আল হাসান।
গত পরশু ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেওয়া ৩২২ রানের জবাবটা কি দুর্দান্তভাবেই দিয়েছে বাংলাদেশ। ৫১ বল আর ৭ উইকেটে হাতে রেখেই জয়ের কৃতিত্ব কিন্তু সাকিবের। কেননা এ বাঁহাতি ওয়ানডাউনে নেমে খেলেছেন সাবলীল। চাপের মধ্যেই খোলসবন্দি হননি। উল্টো ক্যারিবীয় পেসারদের নিয়মিতই সীমানা ছাড়া করেছেন। একপর্যায়ে তুলে নেন চলতি বিশ্বকাপে ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরি। শেষ পর্যন্ত ৯৯ বলে ১২৪ রানে অপরাজিত থাকেন। অন্যদিকে তাকে দারুণ সঙ্গ দেন মোহাম্মদ মিথুনের জায়গায় সুযোগ পাওয়া লিটন দাস। বৈশ্বিক এ আসরে প্রথমবার সুযোগ পেয়েই তিনি খেলেন ৬৯ বলে ৯৪ রানের দৃষ্টিন্দন ইনিংস।
এবারের বিশ্বকাপে একটা লক্ষ্য স্থির করেই ইংল্যান্ডে পা রেখেছেন সাকিব। সেটা পূরণেই যেন শুরু থেকেই ব্যাট হাতে ঝড় তুলে চলেছেন এ বাঁহাতি। এরই মধ্যে ৪ ম্যাচে ১২৮ গড় ও ১০৩.৭৮ স্ট্রাইক রেটে ৩৮৪ রান করেছেন তিনি। যা চলতি বিশ্বকাপে কোনো ব্যাটসম্যানের এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ সংগ্রহ। এ পারফরম্যান্স দিয়েই বিশ্বকে যেন আরেকবার নিজেকে চিনে নেওয়ার বার্তা দিয়েছেন সাকিব।
গত ১০ বছরের ক্যারিয়ারের সাকিব একাধিকবার হয়েছেন সেরা অলরাউন্ডার। কিন্তু কখনই ব্যাট হাতে ধারাবাহিক ছিলেন না তিনি। যে কারণে বিশ্বসেরাদের কাতারে তাকে কেউ ভাবতেই চাইতেন না। হয়তো কখনও কখনও নিজের ভেতর সেই ক্ষুধা বা তাড়না অনুভব করতে না পারা ছিল একটি কারণ। তবে গেল ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) থেকেই এ ব্যাপারে সচেতন হয়েছেন তিনি। তাই করেছেন কঠোর পরিশ্রম। ওজনও কমিয়েছেন। নিজেও এর আগে জানিয়েছিলেন, সবকিছুই বিশ্বকাপে ভালো করতেই করছেন। বিশ্বকাপে ঠিক সেটাই করে দেখাচ্ছেন ওয়ানডেতে বাংলাদেশের দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে ৬০০০ রানের মাইলফলকে পৌঁছানো এ তারকা। চমৎকার ফিটনেস থাকায় দারুণ পারফর্ম করছেন সাকিব নিজেই বলেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ বধের পর, ‘এ পর্যায়ে এসে এমন পরিস্থিতি, এমন পরিবেশে মানসিকভাবে শক্ত থাকাটাই বেশি কাজ দেয়। ফিটনেস ভালো থাকলে ওটা আপনাকে সহায়তা করে। তবে দিন শেষে মানসিকভাবে যত বেশি শক্ত থাকা যায়, যত বেশি সাহস রাখা যায়, সেটিই ব্যাটিং-বোলিংয়ে বেশি সহায়তা করে। যুদ্ধটা হয় নিজের সঙ্গে। কেউ যদি ভেতরে-ভেতরে হেরে যায় তার আর জেতার সম্ভাবনা থাকে না। মন থেকে যদি সবসময়ই বলা যায় আমি জিততে এসেছি, জিততে এসেছি, হয়তো সব সময়ই হবে না, তবে বেশিরভাগ সময়ে জেতার সম্ভাবনা থাকে।’
বিশ্বকাপেই আগের আসরগুলোতে নিজের মতো খেলতে পারেননি সাকিব। তবে এবার রেকর্ড গড়ে ছুটছেন বড় কিছুর পথে। বিশ্বকাপের চার ম্যাচ আর এর আগে আয়ারল্যান্ড সিরিজ নিয়ে টানা পাঁচ ইনিংসে খেলেছেন পঞ্চাশোর্ধ্ব ইনিংস, তার ওয়ানডে ক্যারিয়ারে প্রথমবার!
ব্যাটিংয়ে ভালো করতে সাকিব টিম ম্যানেজমেন্টের কাছ থেকে তিন নম্বর জায়গাটি অনেকটা জোর করেই চেয়ে নিয়েছেন। তার এ সিদ্ধান্তটা ঠিক ছিল, সেটাই এখন প্রমাণ করছেন দুর্দান্তভাবে। এ বাঁহাতির অসাধারণ পারফরম্যান্সে বাংলাদেশ দারুণ সুফলও পাচ্ছে। শুধু তাই নয় গত পরশু ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে টাইগারদের চোখ এখন সেমিফাইনালে। এ জন্য হাতে থাকা ৪টি ম্যাচের অন্তত তিনটি জিততেই হবে মাশরাফি বাহিনীর। এরপর অন্য দলের দিকেও চেয়ে থাকতে হবে।

 

সর্বশেষ..