বোয়িংয়ের পূর্বাভাস: ২০ বছরে ট্রিলিয়ন ডলারের উড়োজাহাজ কিনবে চীন

শেয়ার বিজ ডেস্ক: অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রুটে চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় আগামী ২০ বছরের মধ্যে চীনের উড়োজাহাজ সংস্থাগুলো সাত হাজার ২৪০টির বেশি উড়োজাহাজ কিনবে। আর এতে খরচ হবে এক দশমিক এক ট্রিলিয়ন ডলারের বেশি। গতকাল বুধবার মার্কিন উড়োজাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোয়িং এ পূর্বাভাস দিয়েছে। খবর রয়টার্স।

গত বছর প্রতিষ্ঠানটি পূর্বাভাস দিয়েছিল ২০৩৬ সালের মধ্যে চীনে ছয় হাজার ৮১০টি উড়োজাহাজ প্রয়োজন হবে। অর্থাৎ ওই পূর্বাভাসের তুলনায় সম্প্রতি দেওয়া পূর্বাভাস ছয় দশমিক তিন শতাংশ বেশি।

বোয়িংয়ের বাণিজ্যিক উড়োজাহাজ শাখার বিপণন ভাইস প্রেসিডেন্ট র‌্যান্ডি টিনসেথ বলেন, চীনের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগ অব্যাহত থাকা ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় উড়োজাহাজের চাহিদা বাড়বে।

তিনি আরও বলেন, চীনের উড়োজাহাজের চাহিদা বিশ্বের গড় চাহিদার তুলনায় বেশি। বিশ্বের মোট চাহিদার ২০ শতাংশই আসে চীন থেকে।

বোয়িং এবং এর প্রতিযোগী ইউরোপের এয়ারবাস চীনের দ্রুত বর্ধনশীল উড়োজাহাজ বাজারে মনোযোগী। বোয়িং মনে করছে, অভ্যন্তরীণ বাজারে ও এশিয়ার মধ্যে ভ্রমণের জন্য ২০৩৬ সালের মধ্যে ছোট আকারের সাত হাজার ২৪০টি উড়োজাহাজ ও দূরে ভ্রমণের জন্য বড় আকারের এক হাজার ৬৭০টি উড়োজাহাজ প্রয়োজন হবে।

উড়োজাহাজ চলাচলে বিশ্বের অন্যতম দ্রুত বর্ধনশীল বাজার ভারত। কয়েক বছর ধরে অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রীসংখ্যা গড়ে ২০ শতাংশ হারে বাড়ছে। এর আগের এক পূর্বাভাসে বোয়িং দেশটি থেকে আগামী ২০ বছরে দুই হাজার ১০০ উড়োজাহাজের ক্রয়াদেশ প্রত্যাশা করছে, যার আর্থিক মূল্য হবে ২৯০ বিলিয়ন ডলার।

বোয়িংয়ের বাণিজ্যিক উড়োজাহাজের প্রশান্ত মহাসাগরীয় ও ভারত শাখার সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট দিনেশ কেশকার বলেন, জ্বালানির নিম্নদাম ও যাত্রীসংখ্যা বাড়ার কারণে ভারতে উড়োজাহাজ বাজারের ইতিবাচক দিক, বিশেষ করে কম খরচের উড়োজাহাজগুলোর জন্য এটি অনেক বড় সুযোগ।

বিশ্বের বৃহত্তম উড়োজাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি প্রত্যাশা করছে, আগামী ২০ বছরে দক্ষিণ এশিয়ায় যাত্রীসংখ্যা আট শতাংশ বাড়বে। এতে বড় ভূমিকা রাখবে ভারত।

আগামী ২০ বছরে বিশ্বব্যাপী ৪১ হাজার ৩০টি উড়োজাহাজের ক্রয়াদেশ প্রত্যাশা করছে বোয়িং। এর মধ্যে অর্ধেকই আসবে ভারত থেকে।

গত বছর বোয়িং লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৮০টি উড়োজাহাজের ক্রয়প্রস্তাব কম পেয়েছে। তবে আবারও বিশ্বের সবচেয়ে বড় উড়োজাহাজ নির্মাতা হিসেবে অবস্থান ধরে রেখেছে কোম্পানিটি।

গত বছর বোয়িং মোট ৭৪৮টি জেটলাইনার সরবরাহ করেছে এবং ৯৪ বিলিয়ন ডলারের ৬৬৮ উড়োজাহাজের ক্রয়প্রস্তাব পেয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। তবে বোয়িং পূর্বাভাস দিয়েছিল, ৭৪৫-৭৫০ উড়োজাহাজের ক্রয়প্রস্তাব পাবে।  শিকাগোভিত্তিক এ প্রতিষ্ঠানটির মূল প্রতিদ্বন্দ্বী ইউরোপের এয়ারবাস। ২০১৬ সালে এয়ারবাস পূর্বাভাস দিয়েছিল ৬৭০ উড়োজাহাজ সরবরাহ করার।

বোয়িংয়ের প্রধান নির্বাহী ডেনিস মুইলেনবার্গ জানান, বড় আকারের উড়োজাহাজ বিক্রির হার মন্থর হওয়ার কারণে চলতি বছর থেকে ৭৭৭ মডেলের উড়োজাহাজ উৎপাদন ৪০ শতাংশ কমাবে প্রতিষ্ঠানটি।