‘ব্যবসা দুর্নীতিমুক্ত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন কমপ্লায়েন্স অফিসার’

একটি প্রতিষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি বিভাগ-প্রধানের সাফল্যের ওপর নির্ভর করে ওই প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বা সিইও’র সফলতা। সিইও সফল হলে প্রতিষ্ঠানটির মুনাফা বেশি হয়। খুশি হন শেয়ারহোল্ডাররা। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে সিইও’র সুনাম। প্রতিষ্ঠানের প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (সিএফও), কোম্পানি সচিব, চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসার, চিফ মার্কেটিং অফিসারসহ এইচআর প্রধানরা থাকেন পাদপ্রদীপের আড়ালে। টপ ম্যানেজমেন্টের বড় অংশ হলেও তারা আলোচনার বাইরে থাকতে পছন্দ করেন। অন্তর্মুখী এসব কর্মকর্তা সব সময় কেবল প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য বাস্তবায়নে ব্যস্ত থাকেন। সেসব কর্মকর্তাকে নিয়ে আমাদের নিয়মিত আয়োজন ‘টপ ম্যানেজমেন্ট’। শেয়ার বিজের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে এবার বাংলালিংক ডিজিটাল কমিউনিকেশনস লিমিটেডের চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসার এম নূরুল আলম এফসিএস, সিসিইপি-আই। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন মো. হাসানুজ্জামান পিয়াস

এম নূরুল আলম এফসিএস, সিসিইপি-আই বাংলালিংক ডিজিটাল কমিউনিকেশনস লিমিটেডের চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসার। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হিসাববিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর শেষে সম্পন্ন করেন সার্টিফাইড কমপ্লায়েন্স অ্যান্ড ইথিক্স প্রফেশনাল-ইন্টারন্যাশনাল (সিসিইপি-আই) ও চার্টার্ড সেক্রেটারি পেশাগত ডিগ্রি। তিনি ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড সেক্রেটারিজ অব বাংলাদেশের একজন সম্মানিত ফেলো ও দি ইনস্টিটিউট অব ইন্টারনাল অডিটরস, বাংলাদেশের অনারারি সেক্রেটারি জেনারেল

শেয়ার বিজ: ক্যারিয়ারের গল্প দিয়ে শুরু করতে চাই

এম নূরুল আলম: ক্যারিয়ার শুরু করি ১৯৮১ সালে গ্লাক্সোস্মিথক্লাইন বাংলাদেশ লিমিটেডে সিনিয়র অডিট অফিসার হিসেবে। ২০০০ সালে একই প্রতিষ্ঠানে ডেপুটি কোম্পানি সেক্রেটারি হিসেবে দায়িত্ব নিই। ২০০৭ সালে বাংলালিংক ডিজিটাল কমিউনিকেশনস লিমিটেডে কোম্পানি সেক্রেটারি হিসেবে যোগ দিই। দক্ষতা ও সফলতা বিবেচনায় অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে প্রতিষ্ঠানটি ২০১০ সালে ইন্টারনাল অডিট বিভাগ প্রধানের দায়িত্ব দেয়। কোম্পানি সচিব ও ইন্টারনাল অডিট বিভাগের প্রধান হিসেবে তিন বছর কাজ করার পর ওই প্রতিষ্ঠানে ২০১৩ সাল থেকে চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি।

চাকরির পাশাপাশি পেশার উন্নয়নে কাজ করার চেষ্টা করি। বর্তমানে দি ইনস্টিটিউট অব ইন্টারনাল অডিটরস, বাংলাদেশের অনারারি সেক্রেটারি জেনারেল ও ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড সেক্রেটারিজ অব বাংলাদেশে (আইসিএসবি) করপোরেট ল রিভিউ সাব-কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। আইসিএসবি’তে ২০১৩ সালে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়ে করপোরেট গভর্নেন্স এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পাই। বাংলাদেশে প্রথম করপোরেট গভর্নেন্স এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড দেওয়া শুরু করি। ২০১৪ ও ২০১৫ সালে জাঁকজমক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সফল কোম্পানিগুলোকে অ্যাওয়ার্ড দিই। এরপর থেকে আইসিএসবি ধারাবাহিকভাবে অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করছে।

বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানে কাজ করার সুবাদে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে সভা-সেমিনারে অংশ নেওয়ার মাধ্যমে করপোরেট গভর্ন্যান্স, ইন্টারনাল কন্ট্রোল, রিস্ক অ্যাসেসমেন্ট ও কমপ্লায়েন্স ইস্যু নিয়ে কথা বলা এবং শেখার সুযোগ হয়েছে। তাছাড়া দি ইনস্টিটিউট অব ইন্টারনাল অডিটরস, বাংলাদেশের অনারারি সেক্রেটারি জেনারেল হিসেবে এ বছরের প্রথম দিকে ইতালিতে অনুষ্ঠিত ইন্টারনাল অডিট গ্লোবাল কাউন্সিলে বাংলাদেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করি।

শেয়ার বিজ: পেশা হিসেবে কমপ্লায়েন্স অফিসারকে কেন বেছে নিলেন?

এম নূরুল আলম: বিশ্বের উন্নত দেশগুলোয় বিশেষত যুক্তরাষ্ট্রে পেশা হিসেবে কমপ্লায়েন্সের গুরুত্ব দিন দিন বেড়ে চলেছে। ব্যবসায় সুশাসন ও সততা আনার জন্য দক্ষ কমপ্লায়েন্স অফিসার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে বৃহৎ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানেগুলোয় আন্তর্জাতিক দুর্নীতি দমন আইনগুলো মেনে চলা ও প্রতিষ্ঠানের অন্য বিধিবিধান পালনে কমপ্লায়েন্স অফিসারের উপস্থিতি অপরিহার্য। তাছাড়া প্রতিষ্ঠানের ব্যবসা পরিচালনায় সরাসরি ভূমিকা রাখতে পারেন একজন কমপ্লায়েন্স অফিসার। তাই এ পেশা বেছে নেওয়া।

শেয়ার বিজ: প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কমপ্লায়েন্স অফিসারের সম্পর্ক কেমন?

এম নূরুল আলম: প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কমপ্লায়েন্স অফিসারের সম্পর্ক পেশাগত। আমাদের দেশে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড একচেঞ্জ কমিশন, ঢাকা স্টক একচেঞ্জ বিধি ও করপোরেট গভর্ন্যান্স ইথিক্সে কোম্পানি সচিব এবং কমপ্লায়েন্স অফিসারকে সমান গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ইউরোপ, আমেরিকায় কমপ্লায়েন্স অফিসার মূলত প্রতিষ্ঠানে ব্যবসায়িক দুর্নীতি দমনের উদ্দেশ্যে কাজ করেন।

শেয়ার বিজ: প্রতিষ্ঠানে চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসারের ভূমিকা কী?

এম নূরুল আলম: বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানে চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা পালন করেন। তিনি প্রতিষ্ঠানের পর্ষদ সদস্য হিসেবে ব্যবসায় সিদ্ধান্ত গ্রহণে ভ‚মিকা রাখেন। এছাড়া দুর্নীতিমুক্ত ব্যবসা পরিচালনা নিশ্চিত করেন ও প্রতিষ্ঠানের নানা ধরনের বিধিবিধান পরিপালনের দিকনির্দেশনা দেন।

শেয়ার বিজ: প্রতিষ্ঠানে চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসারের গুরুত্ব সম্পর্কে জানতে চাই

এম নূরুল আলম: বহুজাতিক ও বৃহৎ প্রতিষ্ঠানগুলো অনেক জটিল ব্যবসায়িক সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে। চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসারের অবর্তমানে প্রতিষ্ঠান ভুল পথে পরিচালিত হতে পারে। ফলে নন-কমপ্লায়েন্সের কারণে প্রতিষ্ঠান বড় অঙ্কের জরিমানার সম্মুখীন হতে পারে। এমনকি সুনামহানি ও আর্থিক ক্ষতির কারণে ব্যবসা বন্ধ হয়ে যেতে পারে। তাই বলা যায় প্রতিষ্ঠানে চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসারের গুরুত্ব অপরিসীম।

শেয়ার বিজ: কর্মক্ষেত্রে চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসারের জন্য চ্যালেঞ্জিং বিষয় কী?

এম নূরুল আলম: কমপ্লায়েন্স অফিসারের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হলো সাপ্লায়ার বা ভেন্ডর নির্বাচন। যদি সাপ্লায়ার দুর্নীতি করে, তবে তার দায়ভার প্রধান ব্যবসায়ীকে নিতে হয় এবং এর মূল্য দিতে হয়। দ্বিতীয় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে কর্মচারীদের উপহারের নামে ঘুষ দেওয়া-নেওয়ার বিষয়টি নজরদারিতে রাখা এবং নিজ স্বার্থ ও ব্যবসার স্বার্থ এক না করা।

শেয়ার বিজ: কমপ্লায়েন্স অফিসার হতে হলে প্রয়োজনীয় যোগ্যতা কী?

এম নূরুল আলম: দক্ষ কমপ্লায়েন্স অফিসার হতে হলে চার্টার্ড সেক্রেটারি ডিগ্রির পাশাপাশি সিসিইপি-আই ডিগ্রিধারী হওয়া জরুরি। সিসিইপি-আই ডিগ্রির জন্য ইউরোপ বা আমেরিকা ছাড়া প্রতি জুলাইয়ে সিঙ্গাপুরে একটি পরীক্ষা হয়। কেউ চাইলে আইসিএসবি থেকে চার্টার্ড সেক্রেটারি ডিগ্রি ও সোসাইটি অব করপোরেট কমপ্লায়েন্স অ্যান্ড ইথিক্স (এসসিসিই) ওয়েবসাইট থেকে সিসিইপি-আই ডিগ্রি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারেন।

শেয়ার বিজ: আমাদের দেশে পেশার সম্ভাবনা কেমন বলে মনে করেন?

এম নূরুল আলম: এটি একটি সম্ভাবনাময় পেশা। বাংলাদেশের সব বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান যেমন বাংলালিংক, গ্রামীণফোন, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক, সিটি ব্যাংক, এইচএসবিসি ব্যাংক, গ্লাযাক্সোস্মিথক্লাইন, সিমেন্স প্রভৃতিতে কমপ্লায়েন্স অ্যান্ড ইথিক্স বিভাগ অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়া দেশি বৃহৎ প্রতিষ্ঠানগুলো এ পেশার গুরুত্ব অনুধাবন করছে। দুর্নীতিমুক্ত ব্যবসা করার জন্য এবং ভবিষ্যতে অনাকাক্সিক্ষত ঝুঁকি থেকে দূরে থাকার জন্য এ বিভাগের ওপর গুরুত্বারোপ করছে।

শেয়ার বিজ: পেশা হিসেবে চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসারকে কীভাবে মূল্যায়ন করেন?

এম নূরুল আলম: প্রতিষ্ঠানের একটি গুরুত্বপূর্ণ পদ কমপ্লায়েন্স অফিসার। কমপ্লায়েন্স অফিসার প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায় সরাসরি ভূমিকা রাখতে পারেন। তাছাড়া এর বেশ সুনামও রয়েছে। আমি এ পেশাকে বেশ উপভোগ করছি।

 শেয়ার বিজ: সফল কমপ্লায়েন্স অফিসার হতে হলে কী কী গুণ থাকা জরুরি?

এম নূরুল আলম: সফল কমপ্লায়েন্স হতে হলে প্রথমত সৎ হতে হবে। একই সঙ্গে দক্ষতা আর অধ্যবসায়ের বিকল্প নেই।