ব্যবসা বিক্রি

মিজানুর রহমান শেলী: আপনি যদি মালিক হিসেবে নিজেই আপনার কোম্পানির ব্র্যান্ড হয়ে থাকেন অর্থাৎ আপনি যদি আপনার সৃজনশীলতাকে কাজে লাগিয়ে কোম্পানিকে দাঁড় করিয়ে থাকেন, তবে নিশ্চয় ব্যর্থ মানুষ হিসেবে আপনার মূল্য কোম্পানির সঙ্গে পরিপূরক। তাই যে কোনো ক্রেতাই আপনার কোম্পানিকে কিনতে চাইলে আপনার সঙ্গে একটু হলেও গোপনে কথা বলতে চাইবেন। ক্রেতা মাথায় যদি ঘিলু-বুদ্ধি অন্তত থাকে, তবে আপনাকে তার প্রয়োজন হবে। আর তার এই প্রয়োজনের কথা সে অবলীলায় বলতে থাকবেন।
যাহোক, এমন অনেক ক্রেতা আছেন যাদের আগে দেয় সব প্রতিশ্রুতিমূলক কথাগুলো শেষ পর্যন্ত সঠিক বলে প্রমাণিত হয় না। অর্থাৎ তাদের কথা ও কাজে কোনো মিল খুঁজে পাওয়া যায় না। এ বিষয়টি নিয়ে আমি এর আগেও আলোচনা করেছি। কিন্তু আমাদের ব্যাপার ঠিক এমন নয়। আমরা যে কোনো উপায়েই হোক আমাদের প্রতিশ্রুতি ধরে রাখার চেষ্টা করে থাকি। কিন্তু আমরা এমন ভিন্ন আচরণ কেন করে থাকি? কার্যত আমরা অনেক বেশি বেশি প্রতিশ্রুতি দিয়ে থাকি এবং আমরা আমাদের ব্যবসা থেকে সেরা ব্যবসায় ফলাফল আহরণ করতে চাই।
এই চাহিদাই ব্যাখ্যা করে থাকে, কেন আমরা আপনার পরিবারের পরিচালনা সদস্য চেয়ে থাকি ব্যবসায় ২০ শতাংশ ইন্টারেস্ট অর্জন করার জন্য। আমাদের ৮০ শতাংশ কনসলিডেট আর্নিং প্রয়োজন ট্যাক্সের উদ্দেশ্যে, এই পদক্ষেপগুলো আমাদের জন্য খুবই অপরিহার্য। এটা আমার জন্য যেমন গুরুত্বপূর্ণ, একইভাবে এর প্রয়োজন পরিবারের সদস্যদের জন্য। কেননা তারও এই ব্যবসার মালিকানায় অংশীদার। খুব সাধারণভাবে বলা যায়, আমরা এর আগেই উল্লেখ করেছি ম্যানেজমেন্ট দেখে আমরা ব্যবসা অধিগ্রহণ করে থাকি। এক্ষেত্রে দেখা যায়, একটি প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজমেন্ট ভালো কিন্তু তার সব সদস্য আমাদের পক্ষে কাজ করবে তা আশা করা উচিত নয়। তবুও ওই ম্যানেজমেন্ট দলের প্রধান যিনি তার ওপরই নির্ভর করে আমরা সেই ব্যবসা ক্রয় করতে যাচ্ছি কি না। কেননা, আমরা যাচাই-বাছাই করে নিতে চাই ম্যানেজমেন্টের প্রধান আমাদের স্বার্থে আমাদের অংশীদার হয়ে কাজ করবেন কি না। যদি করেন তবেই আমরা তার ওপর আস্থা রাখতে পারি। আবার চলতি ব্যবসার মুনাফা আগামী দিনগুলোতেও চলমান থাকবে এমন কোনো নিশ্চয়তা দেওয়া যায় না। চুক্তির প্রতিশ্রুতি এখানে কোনোভাবেই নিশ্চয়তা দিতে পারে না। বরং এর চেয়ে সাধারণ কথার ওপর সবচেয়ে বেশি নির্ভর করা সম্ভব।
আমি বার্কশায়ারের যে জায়গায় দাঁড়িয়ে রয়েছি, এটা অনেক উঁচু স্তর। এখান থেকে মূলধন বরাদ্দ, মনোনয়ন এবং প্রতিষ্ঠানের সবচেয়ে উঁচুপদের কর্মকর্তাদের সম্মানী দেওয়ার বিষয়টিকে আমাকেই দেখভাল করতে হয়। অন্যান্য কর্মীদের সিদ্ধান্তসমূহ, পরিচালনা কর্মপদ্ধতি ইত্যাদি হলো আমাদের দৈনিন্দিন কাজের পরিসর। কিছু বার্কশায়ার ম্যানেজাররা তাদের সিদ্ধান্তের ব্যাপারে আমাদের সঙ্গে বাক্যালাপ করে থাকেন। আবার অনেকেই আছেন যারা আমাদের সঙ্গে আলাপ করার বিষয়টি প্রয়োজনই মনে করেন না। আসলে আমরা অধিগ্রহণতকৃত এসব কর্মকর্তার ব্যবসা পরিচালনার কাজে পূর্ণ স্বাধীনতা দিয়ে থাকি। যাহোক, এরপরও বিভিন্ন ম্যানেজারের বিভিন্ন আচরণের ভেতর দিয়ে প্রমাণিত হয় কার কেমন ব্যক্তিত্ব। যার যার ব্যক্তিত্বের জায়গা থেকে কিংবা ব্যক্তিগত সম্পর্কের জায়গা থেকেই কেবল আমার সঙ্গে এসব ম্যানেজারের কারও কারও আমার সঙ্গে সম্পর্ক বা যোগাযোগ রেখে চলে।
যদি আপনি বার্কশায়ারের সঙ্গে ব্যবসা করার জন্য সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন, তবে আমরা আপনাকে ক্যাশেই পরিশোধ করব। বার্কশায়ারের যে কোনো ঋণের মতো আপনার ব্যবসাকে এখানে সমান্তরালে ব্যবহার করা হবে না। এখানে কোনো ব্রোকারের অন্তর্ভুক্তি থাকবে না। উপরন্তু এখানে কোনো লেনদেনের বিষয়টি ঘোষণাও করা হবে না। আর এ কারণেই ক্রেতারা ফিরে যাবে অথবা বিষয়টির একটি ভালো সমন্বয় করার পরামর্শ দিয়ে থাকবেন। অবশ্যই এই পরামর্শটা তারা খুবই বিনয়ের সঙ্গে পেশ করবেন। এর সঙ্গে তারা ব্যাখ্যা দেবেন যে, পরিস্থিতির সমন্বয় না হয়ে এভাবে চললে ব্যাংকস, আইনজীবী, বোর্ড অব ডিরেক্টরবৃন্দ ইত্যাদিজনরা নানা রকমের দোষের শিকার হবেন। যাহোক, এভাবেই আপনি জানতে পারবেন কার সঙ্গে আপনি আপনার লেনদেনটি করতে যাচ্ছেন। আপনি কোনো একটি নির্বাহী সন্ধিপত্রের ভাগী হতে পারবেন না। এই লেনদেনে কোনো একজনকে গ্রহণ করা হবে কয়েক বছর পরেই নির্দিষ্ট কিছু দায়িত্ব দিয়ে। অথবা নতুন কোনো একজনকে সভাপতি করা হবে। এই নতুন সভাপতি খুবই দুঃখের সঙ্গে আপনাকে জানাবে যে, বোর্ড অব ডিরেক্টরিতে এখন কোনো না কোনো পরিবর্তন আসতে হবে। অথবা তিনি বলবেন আপনার ব্যবসাকে আর ধরে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। সম্ভবত নতুন কোনো প্রকল্পে অর্থায়ন করার জন্য আপনার ব্যবসাটিকে বিক্রি করে দেওয়া হচ্ছে। এটা নিতান্তই মাতৃ প্রতিষ্ঠানের স্বার্থেই সংগঠিত হচ্ছে।
কিন্তু এ ব্যবসাটি বিক্রি করে দেওয়ার পরে যে ঘটনাই ঘটে থাকুক না কেন আপনাকে বিভিন্ন লোক বিভিন্নভাবে বোঝানোর চেষ্টা করে থাকবেন। তবে কেউ যদি আপনাকে বলেন, যদি এই ব্যবসাটি বিক্রি করে দেওয়া হয় সত্যিই তবে বিক্রির পরে আপনি নিশ্চয় আজকের আর্থিক অবস্থার চেয়ে বেশি ধনী হতে পারবেন না, তবে সে সত্য কথাটিই বলে থাকবেন। কিন্তু সচরাচর এই ধরনের কথা কেউ বলতে চান না। কেননা, এই ব্যবসায় আপনি নিজেকে এখন মালিকানা লাভের স্বাদ পাচ্ছেন। আপনি এখানে লগ্নি করেছেন। ফলে ইতোমধ্যে আপনি বেশ ধনী লোকে পরিণত করেছে। এমনকি আপনি এখন একজন মোটামুটি মাপের বিনিয়োগকারী। হ্যাঁ, এটা সত্য যে এই বিক্রির ফলে আপনার সম্পদের বর্তমান অবস্থান রূপান্তর ঘটবে। কিন্তু কখনোই পরিমাণে তা পরিবর্তন আনবে না। আপনার সম্পদের পরিমাণ আগের মতোই থাকবে। আর যদি আপনি বিক্রি করেই থাক, তবে আপনি আপনার সম্পদের মালিকানা অংশের শতভাগেরই অধিকার লাভ করবেন। তখন আপনি এই ক্যাশ অর্থকে হাতে রাখতে চাইবেন না। আপনি আশা করবেন তা অন্য কোথাও বিনিয়োগ করে দিতে। ফলে তখন কোনো সমপরিমাণের বা ছোট কোনো স্টকে আপনি হয়তো আপনার সম্পদের কিছু অংশ বা পুরোপুরি বিনিয়োগ করে দেবেন। কিন্তু এই নতুন বিনিয়োগ কখনোই আপনাকে সন্তুষ্ট করতে পারবে না। এ বিষয়টিকে নিশ্চিত করে বলা যায়।
আসলে এই বিক্রয়ে হয়তো ভালো কোনো যুক্তি থাকবে। আবার লেনদেনটিও যদি হয় বৈধ। তবু এই বিক্রয় কর্মের লেনদেনের ফলে আপনি কোনোভাবেই আর্থিক সমৃদ্ধি পাবেন না। আপনি আগের চেয়ে বেশি সম্পদের মালিক হতে পারবেন না।
আমি আপনাকে কোনোভাবেই বিরক্ত করব না। তবে আপনার যদি সত্যিকার অর্থে কোনো নিজস্ব লাভ থেকে থাকে। তবে আমি নিশ্চয় আপনার ফোনকল আমি গ্রহণ করব এবং আপনার সিদ্ধান্তকেও সাদরে অভিবাদন জানাব। আমি আসলে নিজেকে এই বার্কশায়ারের সঙ্গে যুক্ত করতে পেরেন অনেক গর্বিত। আমি বার্কশায়ারের মালিকানায় অংশ পেয়েছি। তাই আমি আজ এই পরিবারের সদস্য। এটা আমার জন্য গর্বের। আমি বিশ্বাস করি, আমরা শিগগিরই আর্থিকভাবে ভালো কিছুই করব। এমনকি আরও বিশ্বাস করি, আগামী ২০ বছরে যারা এই পরিবারের সঙ্গে থাকবে তারা সবাই লাভবান হবেন, যেভাবে আপনারা গত ২০ বছরেও লাভবান হয়েছেন।

এই দর্শন রচনাবলি সম্পাদনা করেছেন লরেন্স এ. কানিংহ্যাম।
অনুবাদক: গবেষক, শেয়ার বিজ।