সুস্বাস্থ্য

ব্যাক পেইন

Closeup rear-view of a young woman suffering from back pain

আমাদের খাদ্যাভাস ও কর্মপরিবেশের কারণে পিঠের ব্যথা দিন দিন বেড়ে চলেছে। বয়স বাড়ার সঙ্গে এর সম্পর্ক রয়েছে। কিছু অভ্যাস, যেমন ভারী কোনো কিছু ওঠানোর জন্য হয়তো ভুলভাবে ঝুঁকেছিলেন, যার কারণে আপনার কোমরে ব্যথা করছে, অথবা আপনার আরথ্রাইটিসের সমস্যা আছে। এ ধরনের অনেক কারণে পিঠে ব্যথা হয়ে থাকে। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, আমেরিকার প্রতি চারজনের মধ্যে একজন লোয়ার ব্যাক পেইনে ভোগেন। প্রায় সব মানুষই জীবনের কোনো না কোনো সময় লোয়ার ব্যাক পেইনে আক্রান্ত হন। এর নির্দিষ্ট কোনো প্রতিকার নেই। তবে কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করে আপনি ভালো থাকতে পারেন।

 

কোমর হেলে বসা নয়

ব্যাক পেইনের সবচেয়ে মামুলি কারণ হচ্ছে ভুলভাবে বসার ধরন। জবুথবু হয়ে বসলে জয়েন্ট, মাংসপেশি ও ডিস্কে চাপ পড়ে। ফলে ব্যথার সৃষ্টি হয়। তাই বাড়িতে বা বাসায় সোজা হয়ে বসুন।

 

এন্ডোরফিনের নিঃসরণ বাড়ান

এন্ডোরফিন একপ্রকার হরমোন, যা ব্যথা কমাতে সক্ষম। এন্ডোরফিন ব্যথার অনুভূতি মস্তিষ্কে পাঠাতে বাধা দেয়। এছাড়া এন্ডোরফিন দুশ্চিন্তা, মানসিক চাপ ও হতাশা উপশম করে, যা ক্রনিক ব্যাক পেইনের সঙ্গে সম্পর্কিত। এই এন্ডরফিনের নিঃসরণ বাড়াতে অ্যারোবিক এক্সারসাইজ ও মেডিটেশন করুন।

 

প্রয়োজন পর্যাপ্ত ঘুম

ব্যাক পেইনের রোগীদের দুই-তৃতীয়াংশেরই ঘুমের সমস্যা হতে দেখা যায়। যারা ইনসোমনিয়াতে ভোগেন তাদের পিঠের ব্যথাও মাত্রাতিরিক্ত হতে দেখা যায়। শুধু ব্যথার চিকিৎসা করে এই দুষ্টচক্র হতে বের হওয়া যাবে না। যদি ঘুমের সমস্যা থাকে তাহলে আগে এর চিকিৎসা করতে হবে।

 

ঠাণ্ডা ও গরম থেরাপি নিন

ঠাণ্ডা থেরাপি নেওয়ার উপকারিতা হচ্ছেÑএটা প্রদাহ কমায় এবং নার্ভের খিঁচুনি বন্ধ করে ব্যথা কমানোর জন্য লোকাল অ্যানেস্থেসিয়ার মতো কাজ করে। গরম থেরাপি নেওয়ার উপকারিতা হচ্ছে, এটা রক্তের প্রবাহকে উদ্দীপিত করে, যা দেহের পশ্চাৎদেশে ব্যথা উপশমকারী উপাদানগুলোকে নিয়ে আসে এবং ব্যথার ম্যাসেজ মস্তিষ্কে পৌঁছতে বাধা দেয়।

 

টিপস

হাই হিল বাদ দিয়ে স্যান্ডেল পরুন

ভারী জিনিস বহন করা বা ওঠানো বন্ধ করুন

বিভিন্ন দামি যন্ত্র ব্যাবহার করে রাতারাতি ভালো হয়ে যাওয়ার চিন্তা বাদ দিন

ওজন কমানোর চেষ্টা করুন

ধূমপানের অভ্যাস ত্যাগ করুন

এ রোগে আক্রান্ত হয়ে খুবই মারাত্মক পর্যায়ে যাওয়ার (সার্জারি ও ইনজেকশনের প্রয়োজন পড়ে) গল্প শুনে হতাশ হবেন না। কারণ বেশিরভাগ ব্যাক পেইন খুব অল্প সময় স্থায়ী হয়। ব্যায়াম ও বসার সঠিক পদ্ধতি অবলম্বন করে সুস্থ থাকা যায়।

যদি ব্যাক পেইনের ব্যথা এক থেকে দুই সপ্তাহ থাকে এবং আপনার পায়ে দুর্বলতা বা অসাড় অনুভব করেন অথবা দাঁড়িয়ে থাকতে বা হাঁটতে অসুবিধা হয় তাহলে ডাক্তার দেখান। তবে এমনিতেই ভালো হয়ে যাবেÑএমন আশা করে বসে থাকবেন না।

 

প্রফেসর ডা. আলতাফ হোসেন সরকার

ব্যাকপেইন স্পেশালিস্ট

পান্থপথ ফিজিওথেরাপি, ঢাকা

 

 

 

সর্বশেষ..