স্পোর্টস

ব্রাজিলের সর্বনাশ ভিএআর প্রযুক্তি

ক্রীড়া ডেস্ক: কোপা আমেরিকায় নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেও গতকাল বাংলাদেশ সময় সকালে দাপট দেখায় ব্রাজিল। তিনবার বলও জালে জড়িয়েছিল স্বাগতিকরা। কিন্তু ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি বা ভিএআরের প্রযুক্তির কল্যাণে একবারও হাসতে পারেনি তিতের শিষ্যরা। শেষ পর্যন্ত ভেনেজুয়েলার বিপক্ষে গোলশূন্য ড্রয়ে সেলেসাওদের হয়েছে সর্বনাশ।
সালভাদরের অ্যারেনা ফন্তে নোভার ৩৯ হাজার দর্শকের সামনে গতকাল রবার্তো ফিরমিনো, ফিলিপে কৌতিনহো আর গ্যাব্রিয়েল জেসুস করেছিলেন তিনটি গোল। কিন্তু ভিএআরের কল্যাণে গতকাল সবকটি গোলই বাতিল হয়ে যায়, যার শুরুটা হয়েছিল ম্যাচের ৩৮ মিনিটে। সে সময় ভেনেজুয়েলার জালে বল জড়িয়েছিলেন ফিরমিনো, কিন্তু গোল করার আগে ভিয়েনুয়েভাকে ফাউল করে বসেন তিনি। ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি বা ভিএআরের কল্যাণে ফিরমিনোর ভুলটি ধরা পড়ে। বাতিল হয় সে গোলটি।
এদিকে রিচার্লিসনের বদলি হয়ে নেমে ম্যাচের ৫৭ মিনিটে জেসুসই ভেনেজুয়েলার জাল বল পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু এবারও হাসতে পারেনি ব্রাজিল। কেননা ডি বক্সের বাইরে থেকে জেসুসের নেওয়া শট ভিয়ানুভার শরীরে লেগে চলে আসে ফিরমিনোর কাছে। এর পরই ফিরতি বল পেয়ে গোল করেন জেসুস। কিন্তু ভিএআরে দেখা যায় জেসুসকে বল ঠেলার আগে অফ সাইডে ছিলেন ফিরমিনো। এদিকে ম্যাচের শেষ দিকে আবারও কপাল পোড়ে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের। বদলি নামা এভারটনের পাস থেকে গোল করেছিলেন এবার ফিলিপে কৌতিনহো। কিন্তু রিপ্লেতে দেখা যায় ফিরমিনো আবারও অফ সাইড। স্বাভাবিকভাবে আবারও গোল বাতিল ব্রাজিলের, যে কারণে শেষ পর্যন্ত মুখ কালো করেই মাঠ ছাড়তে হয়েছে তিতের শিষ্যদের।
ভিএআরের সাহয্যে ব্রাজিলের কাছ থেকে এক পয়েন্ট ছিনিয়ে নেওয়ায় রীতিমতো উচ্ছ্বাসই প্রকাশ করেছেন ভেনেজুয়েলা কোচ রাফায়েল দুদামেল ‘ভিএআর দীর্ঘজীবী হোক। আসলে ব্রাজিল এমন একটি দল, যে দলে দুর্দান্ত সব প্রতিভাবান খেলোয়াড় আছে। আমরা এ দলের বিপক্ষে আজ মোটামুটি ভালোই খেলেছি। ব্রাজিল আমাদের পরীক্ষায় ফেলেছে। কিন্তু আমার দলের খেলোয়াড়েরা জানে তাদের কী করা উচিত, আর কোন সময় কোন ধরনের কৌশল কাজে লাগানো উচিত।’
এদিকে অবশ্য ব্রাজিল কোচ তিতে ভিএআরের প্রতিটি সিদ্ধান্তকে সঠিক বলেছেন, ‘আমার কোনো অভিযোগ নেই। ভিএআর প্রযুক্তি সঠিকভাবেই ব্যবহার করা হয়েছে। প্রতিটি গোল বাতিলেরই কারণ আছে। ভিএআর সেগুলো ঠিকভাবেই ধরতে পেরেছে।’

 

সর্বশেষ..



/* ]]> */