ভারতে আইকিয়ার প্রথম স্টোর চালু

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশ তেলেঙ্গানার রাজধানী হায়দরাবাদে সুইডিশ বহুজাতিক কোম্পানি আইকিয়া তাদের প্রথম স্টোর চালু করেছে। গত বুধবার জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ স্টোরের উদ্বোধন করা হয়েছে। খবর বিবিসি।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আইকিয়ার বৈশ্বিক প্রধান নির্বাহী জেসপার ব্রোডিন বলেছেন, ‘ভারতের বাজার আমাদের জন্য একটি স্বপ্ন। তবে সত্যি হলো, কয়েক বছর আগেও আমরা যখন ভারতে ব্যবসা করার কথা চিন্তা করেছিলাম, আমরা ভেবেছিলাম এটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। খরচের দিক থেকে আমাদের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হবে না।’ আইকিয়া মনে করছে, ক্রমবর্ধমান মধ্যবিত্ত অধ্যুষিত ভারতে তাদের কোম্পানির জন্য বড় ধরনের সুযোগ রয়েছে। তবে এখানে বড় ঝুঁকিও রয়েছে। এছাড়া ভারতে ই-কমার্সের দ্রুত উত্থান ও প্রসারের কারণে আইকিয়া সেখানে অপার সুযোগ দেখতে পাচ্ছে। কোম্পানিটি ভারতে তাদের ইট ও মর্টারের বাজার সম্প্রসারিত করতে চায়। একই সঙ্গে আগামী ১০ বছরের মধ্যে অনলাইনে ভারতে তাদের পণ্যগুলো বিক্রি করতে চায়।
পরামর্শক ফার্ম টেকনোপ্যাক অ্যাডভাইজর্সের অরবিন্দ সিংহল বলেন, ‘ভারতের বিষয়ে তারা খুবই অটল। ভারতে আইকিয়ার প্রথম স্টোর চালুর বিষয়ে তারা ব্যাপক চেষ্টা ও সময় ব্যয় করেছে, যেটি আসলেই অস্বাভাবিক। বাজারে তাদের অধিকার পেতে এটি তাদের সংকল্প বলেই আমার কাছে মনে হয়েছে।’ আসবাবপত্রের বিভিন্ন অংশ খুলে ফেলা এবং সেগুলো জোড়া লাগানো নিজেদের কাজ। তবে ভারতীয়রা এতে অভ্যস্ত নয়। সস্তায় শ্রমিক পাওয়ায় তারা শ্রমিকদের ওপরই ভরসা করে। এ প্রসঙ্গে জেসপার ব্রোডিন বলেন, ‘আমরা আমাদের গ্রাহকদের নিজেই এ কাজ করার জন্য পরামর্শ দেব। এর মাধ্যমে আপনাদের খরচ বাঁচবে। তবে হ্যাঁ, আমাদের সক্ষমতার অভাব নেই। অন্যান্য বাজারে আমরা বাড়িতে পণ্য সরবরাহ, রান্নাঘরের আসবাব স্থাপন করাসহ বিভিন্ন সেবা দিই। এটাও বিশ্বাস করি ভারতে অন্য বাজারের তুলনায় এ চাহিদা সামান্য বেশি।’
কোম্পানিটি ১৩ একর জমির ওপর তাদের এ স্টোরের অবকাঠামো চালু করেছে। আইকিয়ার এ স্টোরটি এত আধুনিক যে, এর আগে ভারতে এমনটা দেখা যায়নি। স্টোরের একপাশে এক হাজার আসনের একটি রেস্তোরাঁও রয়েছে। তবে এখানে তাদের গতানুগতিক মিটবল পাওয়া যাবে না। ধর্মীয় বিষয়টি মাথায় রেখে গরু ও শূকরের মিটবলের পরিবর্তে মুরগি ও সবজির মিটবল রাখা হয়েছে। সেইসঙ্গে ভারতীয় বিরিয়ানি ও ডাল মাখানি রয়েছে। ২০১২ সালে ভারত বিদেশি কোনো একক কোম্পানির সরাসরি বিনিয়োগ শতভাগ অনুমোদন দেয়। এটি আইকিয়ার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। কারণ আইকিয়া যৌথভাবে কোনো কিছু করতে রাজি ছিল না। প্রযুক্তির নগরী হায়দরাবাদে মাইক্রোসফট, গুগল ও ফেসবুকের মতো বৈশ্বিক সংস্থাগুলোর কার্যালয়ও রয়েছে।