বিশ্ব বাণিজ্য

ভারতে বাজেট ঘোষণার পরই পুঁজিবাজারে পতন

শেয়ার বিজ ডেস্ক: গত শুক্রবার ভারতের নরেন্দ্র মোদি সরকারের দ্বিতীয় দফার প্রথম বাজেট ঘোষণার পর থেকেই শেয়ারবাজারে পতনের প্রবণতা অব্যাহত রয়েছে। সপ্তাহের শুরুতে গত সোমবারও সেই প্রবণতা লক্ষ করা গেছে। দেশটির পুঁজিবাজারের ইতিহাসে কোনো একদিনে সূচকের সর্বোচ্চ ১০টি পতনের একটি ঘটেছে এদিন। খবর: আনন্দবাজার।
সোমবার লেনদেনের শুরুতেই ৭৭৮ পয়েন্ট পড়ে সেনসেক্স সূচক দাঁড়ায় ৩৮ হাজার ৭৩৫ দশমিক ১৩ অংকে। অন্য দিকে, নিফটি ২৪৫ পয়েন্ট পড়ে পৌঁছায় ১১ হাজার ৫৫৬ দশমিক ৬০ পয়েন্টে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়। দুপুরের দিকে এক ধাক্কায় ৯০০ পয়েন্ট নেমে যায় সেনসেক্স, যা এখনও পর্যন্ত বছরের সবচেয়ে খারাপ প্রবণতা বলে মনে করা হচ্ছে। যদিও বাজার বন্ধের সময় সামান্য ওঠে শেয়ার সূচক। ৭৯২ পয়েন্ট নেমে সেনসেক্স দাঁড়ায় ৩৮ হাজার ৭২০ দশমিক ৫৭ এবং নিফটি ২৫২ দশমিক ৫৫ পয়েন্ট পয়েন্ট নেমে ১১ হাজার ৫৫৮ দশমিক ৬০ পয়েন্টে দাঁড়ায়।
শুক্রবার ভারতের ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা করা হয়। অর্থবছর এপ্রিলে শুরু হলেও এবার নির্বাচনের কারণে চার মাসের জন্য অন্তর্বর্র্তীকালীন বাজেট দেয় সরকার। নতুন সরকার গঠন করার পর এবার নতুন বাজেট দেওয়া হলো। আগামী ১ আগস্ট থেকে এ বাজেট কার্যকর হবে।
বিশ্লেষকরা বলছেন, বিনিয়োগকারীদের কাছে বাজেট খুব একটা সন্তোষজনক হয়নি। ফলে তার একটা প্রভাব পড়ছে পুঁজিবাজারে। শুধু তাই নয়, কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন বাজেটে ঘোষণা করেছিলেন, ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জের (এনএসই) তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোয় পাবলিক শেয়ার হোল্ডিং ২৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৩৫ শতাংশ করার জন্য সিকিউরিটিজ অব এক্সচেঞ্জ বোর্ড অব ইন্ডিয়াকে (সেবি) প্রস্তাব দেবেন।
এবার বাজেটে অতি ধনী, অবিভক্ত হিন্দু পরিবার এবং ট্রাস্টসহ ব্যক্তি সমষ্টির সংগঠনের (অ্যাসোসিয়েশন অব পারসনস) ক্ষেত্রে আয়করে সারচার্জের হার উল্লেখযোগ্যভাবে বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। ভারতের বাজারে বিনিয়োগ করা বিদেশি ট্রাস্ট, পেনশন ফান্ডও এর আওতায় পড়ছে। বাজার সূত্রের খবর, এ সবেরই নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে সূচকে।
বিশেষজ্ঞদের মতে, উঁচু আয়ের করদাতাদের সারচার্জ বাড়ার ফলে তাদের কর কার্যত বাড়বে সাত শতাংশ পর্যন্ত। দুই কোটি থেকে পাঁচ কোটি পর্যন্ত তা বেড়েছে তিন শতাংশ। পাঁচ কোটির বেশি আয়ের ক্ষেত্রে সাত শতাংশ। এর ফলে মূল কর ও সারচার্জ মিলে করের সর্বোচ্চ হার দাঁড়াচ্ছে ৪২ দশমিক ৬৪ শতাংশ, যার প্রভাব পড়ছে পুঁজিবাজারে।
এডেলওয়েজ অ্যাসেট ম্যানেজমেন্টের সিইও রাধিকা গুপ্ত বলেন, ‘ট্রাস্টগুলোকে ওই সারচার্জ দিতে হবে মূলধনি লাভকরের ওপরে। এতে তাদের করের বোঝা অনেকটাই বেড়ে যাবে।’ এ দিন রিজার্ভ ব্যাংকের সঙ্গে অর্থ মন্ত্রণালয়ের বাজেট-পরবর্তী বৈঠক শষে সারচার্জ নিয়ে প্রশ্নের উত্তরে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে সংসদে প্রশ্ন উঠলে সেখানেই জবাব দেব। তবে বিশেষ ব্যাখ্যার প্রয়োজন আছে বলে মনে করি না।’ এ দিন অবশ্য আন্তর্জাতিক শেয়ার বাজারও পড়েছে।

 

সর্বশেষ..