ভুরুঙ্গামারী সীমান্তে সীমান্ত হাটের প্রস্তাব

শেয়ার বিজ প্রতিনিধি, কুড়িগ্রাম: কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী সীমান্তে সীমান্ত হাটের প্রস্তাবনায় উজ্জীবিত হয়ে উঠেছেন ব্যবসায়ীরা। ভুরুঙ্গামারী সদর ইউনিয়নে অবস্থিত বাগভাণ্ডার বিজিবি ক্যাম্পের আওতাধীন বাংলাদেশ-ভারত সীমানা মেইন পিলার ৯৬২ সংলগ্ন খামার পত্রনবীশ মৌজার এসএ খতিয়ানের ২৭, ৪৮, ৬১, ৬৩ ও ৬৮ নং প্লটের দুই দশমিক ৭২ একর জমি প্রস্তাবিত হাটের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে বলে উপজেলা প্রশাসন জেলা প্রশাসককে জানিয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, প্রস্তাবিত জমি ভারত-বাংলাদেশের শূন্য রেখায় অবস্থিত এবং বর্তমানে তা কৃষিজমি হিসেবে ব্যবহƒত হচ্ছে। ৯৬২ নং মেইন পিলার থেকে ২৫০ নং উত্তর-পশ্চিম কোনায় ভারতের নির্মিতব্য ১০১ নং বিএসএফ ক্যাম্প অবস্থিত এবং সীমান্ত গার্ড বাংলাদেশের বাগভাণ্ডার বিজিবি ক্যাম্প থেকে এক দশমিক ৫০ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত। জিরো লাইন পর্যন্ত উভয় দেশের প্রায় ২০ ফুট প্রস্থের পাকা সড়ক রয়েছে। এদিকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সীমান্ত হাটের প্রস্তাবনা দেওয়ার পর ব্যবসায়ীরা উজ্জীবিত হয়ে উঠেছেন।
গার্মেন্ট ব্যবসায়ী মহাদেব চন্দ্র সাহা, আমদানিকারক স্বপন কুমার সাহা, কসমেটিকস ব্যবসায়ী আজাদুল ইসলাম জানান, সীমান্ত হাট চালু হলে মসলা, ফল-মূল, সাইকেলের যন্ত্রাংশসহ বিভিন্ন মালপত্র আনা যাবে এবং গার্মেন্টস ও কসমেটিকস সামগ্রী বিক্রি করা সহজ হবে।
ব্যবসায়ীরা জানান, ভারতীয় ব্যবসায়ীদের এ ব্যাপারে আগ্রহের কথা জানা গেছে এবং ভারতীয় সীমান্তে ইতোমধ্যে অবকাঠামো নির্মাণ শুরু হয়েছে। বাগভাণ্ডার সীমান্ত হাট গ্রাম উন্নয়ন সমিতির সভাপতি শফিকুল ইসলাম ও সম্পাদক হাবিবুর রহমান সীমান্ত হাট বাস্তবায়নে তারা দ্রুত সরকারি পদক্ষেপের দাবি জানান।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএইচএম মাগ্ফুরুল হাসান আব্বাসী জানান, জেলা প্রশাসকের ১১১৪ নং পত্রের নির্দেশ অনুযায়ী, সীমান্ত হাট স্থাপনের প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। প্রস্তাবিত স্থানে সীমান্ত হাট স্থাপিত হলে উভয় দেশের জনগণের অর্থনৈতিক উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে সীমান্তে চোরাচালান হ্রাস পাবে। এ ব্যাপারে সরকারের একটি উচ্চ পর্যায়ের টিম শিগগিরই এলাকা পরিদর্শন করবে।