সম্পাদকীয়

ভ্যাট আইন বাস্তবায়নে অংশীজনের পরামর্শ নিন

নতুন যে ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন করতে চলেছে সরকার, তা কেবল মূল্যস্ফীতি বাড়াবে এবং একই পণ্যে একাধিকবার ভ্যাট দেওয়ার মতো জগাখিচুড়ি সৃষ্টি করবে বলে আশঙ্কা করছে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিবিসিএই। ২০১২ সালে প্রণয়নের পর বিভিন্ন আপত্তির মুখে এখন পর্যন্ত এটি বাস্তবায়ন করা হয়নি। আগামী অর্থবছর থেকে এটি বাস্তবায়নে একক হারের পরিবর্তে একাধিক হার করার কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু এক্ষেত্রে ১৫ শতাংশের কম ও একাধিক হারের ক্ষেত্রে রেয়াত সুবিধা ও সম্পূরক শুল্ক বিষয়াবলি খোলাসা করা হয়নি বলে দাবি ব্যবসায়ীদের। এমন পরিস্থিতিতে সংশ্লিষ্ট সব অংশীজনের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে আইনটি বাস্তবায়নে উদ্যোগ নেওয়া উচিত বলে মনে করি।
গতকাল একটি জাতীয় দৈনিকে এ বিষয়ে প্রধান প্রতিবেদন ছাপা হয়। প্রতিবেদনের তথ্যমতে নতুন আইন কার্যকরের জন্য যেসব উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন, তার অনেক কিছুই এখনও সম্পন্ন হয়নি। এর মধ্যে রয়েছে কর পরিশোধের সব কাজ অনলাইনে সম্পন্ন করার কথা থাকলেও ইসিআর যন্ত্র কেনার দরপত্র প্রক্রিয়া শেষ হয়নি এখনও; যদিও আইন বাস্তবায়নে আর মাত্র দুই মাস বাকি। এমন অপ্রস্তুত ও মূল্যায়নহীন পরিস্থিতিতে এফবিসিসিআই’র সঙ্গে এনবিআরের আলোচনা সাপেক্ষ একটি উপসংহারে আসার কোনো বিকল্প নেই। অথচ ভ্যাট আইন নিয়ে গত মে’র ডাকা এনবিআরের সভা স্থগিত করা ও স্থগিতের পর গত দু’বছরে অনুষ্ঠিত সভার সিদ্ধান্ত প্রতিফলিত না হওয়ায় অংশীজনদের পরামর্শ উপেক্ষা করার বিষয়টি এফবিসিসিআই’র কাছে খুবই হতাশাব্যঞ্জক মনে হয়েছে।
এমন পরিস্থিতিতে আইনটি প্রয়োগ হলে নানারকম বিচ্যুতির আশঙ্কা দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। অনেকেই বলছেন, এমন পরিস্থিতিতে নতুন আইনটি বাস্তবায়ন করা হলে কিছু ক্ষেত্রে একই পণ্যে একজনের দু’বার ভ্যাট দেওয়া লাগতে পারে, যা যোগ করলে ভ্যাটের পরিমাণ দাঁড়াবে ১৫ শতাংশেরও বেশি। তাই সরকারকে অবশ্যই পণ্যভেদে ভ্যাট নির্ধারণ করতে হবে। প্রতিষ্ঠানগুলো সেভাবে সফ্টওয়্যার সাজাবে। এমনকি ১৯৯১ সালের আইনে যেসব পণ্য ও সেবায় সম্পূরক শুল্ক ছিল তা নতুন আইনে হুবহু বহাল রাখার বিষয়টিও এনবিআরকে বিবেচনায় নিতে হবে। তাছাড়া এনবিআরকে অবশ্যই এফবিসিসিআইসহ সব অংশীজনদের সঙ্গে পরামর্শের ভিত্তিতে ও মাঠ সমীক্ষার ভিত্তিতে আইন প্রয়োগের প্রস্তুতি নিতে হবে। তাই গণমানুষের স্বার্থের বিপক্ষে না গিয়ে এবং সমাজে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির পথে না হেঁটে এনবিআর ও কর্তাজনেরা যথাযথ প্রস্তুতি নিয়ে আইন প্রয়োগ করবে বলে আমাদের বিশ্বাস।

সর্বশেষ..