দুরে কোথাও

ভ্রমণ হোক আরামদায়ক

ভ্রমণের সময় সবকিছু যে সব সময় পরিকল্পনা অনুযায়ী হবে এটা মনে করা ঠিক নয়। বাস, ট্রেন, এমনকি উড়োজাহাজের সময়সূচির পরিবর্তন হতে পারে। এটা স্বাভাবিক মেনে নিয়েই আগেভাগে মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে। এমন কয়েকটি টিপস রইল ভ্রমণপিয়াসী পাঠকদের জন্য
# অধৈর্য হওয়া যাবে না। এতে ভ্রমণের আনন্দটা নষ্ট হয়ে যায়। সুতরাং ভ্রমণের আগে ও ভ্রমণকালীন ধৈর্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ
# ভ্রমণে বেরিয়ে পড়ার অন্তত একদিন আগে সঙ্গে কী কী নেবেন, তার একটি তালিকা তৈরি করতে হবে। কারণ, কিছু জিনিস নিতে ভুলে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে। তাই লিখে রাখুন। তাহলে ভুল হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না
# অনেক ছোট ছোট শব্দ আপনাকে বড় বড় বিপদ থেকে রক্ষা করতে পারে। তাই যে জায়গায় বা যে দেশে যাচ্ছেন, সে দেশের ভাষায় হ্যালো, প্লিজ, স্যরি, থ্যাঙ্ক ইউ, অর্থের আঞ্চলিক রূপ, অ্যাম্বাসি বা হাইকমিশনের স্থানীয় নাম প্র্রভৃতি শিখে যাওয়া উচিত। কীভাবে পানি চাইতে হয়, কীভাবে ফোন করতে হয়, কীভাবে হোটেল খোঁজার কথা বলতে হয়  এমন প্রয়োজনীয় বিষয় শিখে নিলে সেখানে আর সমস্যার সম্মুখীন হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না
# ভ্রমণে গিয়ে আনন্দের স্মৃতি ধরে রাখার জন্য ফোনের ব্যবহারটা বেশি হয়। তাছাড়া ভ্রমণে গেলে সাধারণত লম্বা সময়ের জন্য বাইরে থাকতে হয়। তাই ফোন ও ক্যামেরার ব্যাটারি চার্জ করার সময় থাকবে না। সুতরাং অতিরিক্ত ব্যাটারি বা পাওয়ার ব্যাংক সঙ্গে নিলে অনেক কাজে আসবে
# যে স্থানে ভ্রমণ করতে যাচ্ছেন, সেখানকার আবহাওয়া সম্পর্কে জ্ঞাত থাকবেন। শীত হোক কিংবা গরম, সঙ্গে একটা গায়ে দেওয়া চাদর বা বিছানার চাদর রাখুন। বিভিন্ন প্রয়োজন কাজে লাগতে পারে
#  ভ্রমণের সময় এমন কিছু পোশাক সঙ্গে রাখুন, যেগুলো খুব সহজে ধোয়া যায় ও রোদ ছাড়াই শুকানো যায়। এতে আপনি যেমন অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা থেকে সুরক্ষিত থাকবেন তেমনি নদী, সাগর বা সুইমিংপুলে সাঁতার কাটার সুযোগ হয়ে গেলেও মিস করতে হবে না
# অনেকে ভাবেন ওষুধ, টুথব্রাশ, টুথপেস্ট, সাবান, শ্যাম্পু এসব তো যে কোনো জায়গায় কিনতে পাওয়া যায়। ভুলেও তাদের মতো এসব ভাববেন না। প্রয়োজনীয় সব প্রসাধনীর মিনিপ্যাক অবশ্যই সঙ্গে রাখা উচিত। আর প্রয়োজনীয় ওষুধ ও বিশেষ কোনো অসুস্থতা থাকলে ডাক্তারের দেওয়া প্রেসক্রিপশন অবশ্যই সঙ্গে রাখতে হবে। এছাড়া প্যারাসিটামল, সর্দি-কাশির ওষুধ, গ্যাসের ওষুধ, ব্যান্ডেজ, অ্যান্টিসেপ্টিক প্রভৃতি সঙ্গে রাখা ভালো
# রুম নাম্বার ও হোটেলের ঠিকানা মোবাইল ফোনে সংরক্ষণ করুন। এমন ছোটখাটো বিষয় ভুলে যাওয়াটা অস্বাভাবিক কিছু নয়
# ফ্রি পাবলিক ওয়াইফাই ব্যবহারের সময় সতর্ক থাকুন। ব্যাংক অ্যাকাউন্টে লগইন ও ক্রেডিট কার্ডের লেনদেনের সময় পাবলিক ওয়াইফাই ব্যবহার করবেন না। এতে অনাকাক্সিক্ষত ঝামেলায় পড়তে পারেন
# ক্রেডিট কার্ড যদি থাকে, তাহলে অতিরিক্ত টাকা-পয়সা সঙ্গে রাখবেন না। একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে টাকা নিয়ে ভ্রমণে যান। প্রয়োজন অনুযায়ী কার্ড দিয়ে টাকা ওঠান
# দূরে কোথাও ভ্রমণে গেলে অবশ্যই আপনজনের সঙ্গে যোগাযোগ রাখবেন। আপনি কোথায় আছেন বা এরপর কোথায় যাবেন এ ব্যাপারে বাড়িতে কাউকে মেসেঞ্জার বা হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে জানিয়ে রাখবেন। যে কোনো বিপদের সম্মুখীন হলে আপনার সর্বশেষ অবস্থান সহজেই জানা যাবে

সর্বশেষ..