মানব ইতিহাসে প্রাণঘাতী ২৫

এক সঙ্গে অনেক মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছেÑএমন রোগের সংখ্যা কম নয়। এর মধ্যে সবচেয়ে মারাত্মক ২৫টি রোগের তালিকা করেছে যুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় টিইডি ম্যাগাজিন। আজ থাকছে ১৭তম প্রাণঘাতী রোগ হুপিংকাশি বিষয়

হুপিং কাশি

 

পারটুসিস নামেও পরিচিত রোগটি। বিশ্বের অনেক দেশে ‘একশ দিনের কাশি’ নামে ডাকা হয়ে হুপিং কাশিকে। ধারণা করা হয়, প্রতি বছর প্রায় ৪৮ দশমিক পাঁচ মিলিয়ন মানুষ এ রোগে আক্রান্ত হয়। এর মধ্য থেকে মারা যায় প্রায় দুই লাখ ৯৫ হাজার মানুষ। বিশেষ করে শিশুরাই হুপিং কাশির প্রধান শিকার।

উন্নত কিংবা অনুন্নতÑসব দেশের জন্যই মারাত্মক সমস্যা হুপিং কাশি। জনবহুল এলাকা কিংবা বায়ু চলাচল কমÑএমন জায়গায় রোগটির প্রাদুর্ভাব দেখা যায়।

অতীতে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে অনেকবার মহামারী আকার ধারণ করেছিল হুপিং কাশি। তখনকার দিনে রোগীকে অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে চিকিৎসাসেবা দেওয়া হতো। এখনকার দিনেও রোগটি এক বছরের কম বয়সী শিশুদের জন্য জীবনহানিকর। রোগটির কারণে শিশুর ফুসফুসে সংক্রমণ কিংবা নিউমোনিয়া হতে পারে। তবে আশার কথা, টিকা দিয়ে রোগটি প্রতিরোধ করা যায়।

শ্বাসতন্ত্রের রোগ হুপিং কাশি। আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে সরাসরি সংস্পর্শের মাধ্যমে এর রোগ-জীবাণু বিস্তার লাভ করে। রোগীর হাঁচি ও কাশির মাধ্যমে রোগটি ছড়ায়।

শিশুদের পাশাপাশি বড়দেরও হতে পারে হুপিং কাশি। বিশেষ করে যাদের টিকা নেওয়া হয়নি, তাদেরও হতে পারে রোগটি। অনেক শিশু বাবা, মা, বড় ভাই-বোন কিংবা অন্য কারও কাছ থেকে এ রোগে আক্রান্ত হতে পারে। অনেক প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের এ বিষয়ে ধারণা না থাকায় এমনটি ঘটতে পারে। এ কারণে বিশেষজ্ঞরা টিকা নেওয়ার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন।