শেষ পাতা

মানা হচ্ছে না মাংসের নির্ধারিত দাম, সবজির দামেও ঊর্ধ্বগতি

নিজস্ব প্রতিবেদক: চতুর্থ রমজানেও বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে ইফতারের প্রধান সামগ্রী ছোলা, খেসারি, মসুর ডাল, বুট, মরিচ, শসা ও পেঁয়াজ। গরু ও খাসির মাংসের সরকারের বেঁধে দেওয়া দাম বেশিরভাগ স্থানেই মানা হচ্ছে না। ফলে ৫২৫ টাকার গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫৫০-৬০০ টাকা। একই অবস্থা খাসির মাংসের দামও।
যদিও ব্রয়লার মুরগির দাম কেজিতে পাঁচ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ১৫০ টাকা এবং লেয়ার মুরগির দাম কেজিতে ১০ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ১৯০ টাকায়। তবে আগের বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে মাছ, সবজিসহ অন্যান্য নিত্যপণ্য। ৫০-৬০ টাকার নিচে মিলছে না কোনো সবজি।
ক্রেতাদের অভিযোগ সরবরাহ বেশি থাকার পরও বেশি দামে বিক্রি করছেন বিক্রেতারা। যদিও পাইকারি বাজারে দাম বাড়ার কারণে বাড়তি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে, বলছেন খুচরা ব্যবসায়ীরা। তবে নিত্যপণ্যের নিয়ন্ত্রণহীন এ দামে স্বস্তিতে নেই ক্রেতারা। গতকাল রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা যায়।
বাজার ঘুরে দেখা যায়, আগের বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে ছোলা, খেসারি, মসুর ডাল, বুট ও পেঁয়াজ। প্রতি কেজি ছোলা বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ৮৫ টাকা, খেসারি ৬৫ থেকে ৭০ টাকা, মসুর ডাল ১০০ থেকে ১১০ টাকা, বুট ৩৮ থেকে ৪০ টাকা। দেশি পেঁয়াজ মান ভেদে বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ টাকা আর আমদানি করা পেঁয়াজ ২০ থেকে ২৫ টাকায়। বাজারগুলোতে প্রতি কেজি কাঁচামরিচ ৬০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তাছাড়া প্রতি কেজি পেঁপে ৬০ টাকা, শসা ৪০ থেকে ৬০ টাকা, গাজর ৭০ থেকে ৮০ টাকা, টমেটো ৩০ থেকে ৪০ টাকা, লেবু হালি মান ভেদে ২০ থেকে ৪০ টাকা। প্রতি কেজি বেগুন, কচুরলতি, করলা, পটোল, বরবটি বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকা দরে। ধুনদল, ঝিঙা, কাঁকরোল, চিচিঙ্গা বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকায়। প্রতি আঁটি লাউ শাক ৩০ থেকে ৪০ টাকা, লাল শাক, পালং শাক ১০ থেকে ২০ টাকা, পুঁই শাক ও ডাঁটা শাক ২০ টাকা থেকে ৩০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। দাম অপরিবর্তিত থাকা অন্য সবজির মধ্যে পটোল ৪০-৫০, সজনে ডাঁটা ৬০-৮০, বরবটি ৬০-৭০, কচুর লতি ৭০-৮০, করলা ৬০-৭০, ধুন্দুল ৭০-৮০, গাজর ৩০-৪০, ঢেঁড়স ৪০-৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।
কয়েকজন মাংস ব্যবসায়ী জানান, আমরা সরকার নির্ধারিত গরুর মাংসের দাম ৫২৫ টাকা, খাসির মাংস ৭৫০ টাকায় বিক্রি করছি। যদিও রাজধানীর বেশিরভাগ বাজারে ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকায় গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে। এদিকে প্রতি বছরের মার্চ-এপ্রিলে ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়ে যায়। এবারও বেড়েছে। তবে এবারের দাম বাড়ার প্রবণতা আগের থেকে বেশি ছিল। এখন দাম কমতে শুরু করেছে। সামনে আরও কমবে। কারণ রোজার সময় ব্রয়লার মুরগির চাহিদা কম থাকে। বিক্রেতারা জানান, রোজার সময় ব্রয়লার মুরগির চাহিদা কম থাকে। ফলে দাম কমে যায়। আমাদের ধারণা রোজায় ব্রয়লার মুরগির দাম কমে ১২০ টাকায় চলে আসতে পারে।
এদিকে টানা দুই সপ্তাহ দাম কমার পর ডিমের দাম কিছুটা স্থিতিশীল রয়েছে। শুধু ডিম বিক্রি করেন এমন ব্যবসায়ীরা গত সপ্তাহের মতো ডিমের ডজন বিক্রি করছেন ৮০-৮৫ টাকায়। মুদি দোকানে ও খুচরা বিক্রেতারা প্রতি পিস ডিম বিক্রি করছেন ৭-৮ টাকায়। ডিমের পাশাপাশি অপরিবর্তিত রয়েছে পেঁয়াজ দাম। বাজার ঘুরে দেখা যায়, ব্যবসায়ীরা গত সপ্তাহের মতো ভালোমানের দেশি পেঁয়াজের পাল্লা (৫ কেজি) বিক্রি করছেন ১২৫-৫০ টাকা। আর খুচরা বাজারে ভালোমানের দেশি পেঁয়াজ প্রতি কেজি বিক্রি করছেন ৩০-৩৫ টাকা। রোজায় অপরিবর্তিত বিভিন্ন ধরনের মাছের দাম। রুই কাতলা বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকায়। তেলাপিয়া বিক্রি হচ্ছে ২০০, আইড় ৮০০ টাকা, মেনি মাছ ৫০০, বেলে মাছ প্রকার ভেদে ৭০০ টাকা, বাইন মাছ ৬০০ টাকা, গলদা চিংড়ি ৮০০ টাকা, পুঁটি ২৫০ টাকা, পোয়া ৬০০ টাকা, মলা ৫০০ টাকা, পাবদা ৬০০ টাকা, বোয়াল ৬০০ টাকা, শিং ৮০০, দেশি মাগুর ৬০০ টাকা, চাষের পাঙ্গাশ ১৮০ টাকা, চাষের কৈ ২৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও ৫০০ থেকে ৬০০ গ্রামের ইলিশ মাছ বিক্রি হচ্ছে ৬০০ থেকে ৭০০ টাকায়।
এর আগে গত সপ্তাহে ডিমের দাম ডজনে ১০ টাকা কমে। রোজা সামনে রেখে মুরগি ও ডিমের দাম কমলেও শাকসবজি ও মাছের দাম আগের মতো চড়া রয়েছে। অপরিবর্তিত রয়েছে চাল ও অন্যান্য মুদিপণ্যের দাম। বাজারে প্রতি নাজির চাল বিক্রি হচ্ছে ৫৮ থেকে ৬০ টাকা, মিনিকেট চাল ৫৫ থেকে ৫২ টাকা, স্বর্ণা ৩৫ থেকে ৩৮ টাকা, বিআর-২৮ ৩৮ টাকা দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে। এছাড়া খোলা আটা বিক্রি হচ্ছে ২৬ টাকা, প্যাকেটজাত ৩২ টাকা। লবণ প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ ও পোলাউর চাল ৯০ থেকে ৯৫। প্রতি কেজি প্যাকেটজাত ময়দা ৩২ টাকা ও খোলা ময়দা ২৮ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

সর্বশেষ..