প্রচ্ছদ প্রথম পাতা সাক্ষাৎকার

‘মানুষের অর্থনৈতিক স্বাধীনতার জন্য কংগ্রেসকেই ক্ষমতায় আনতে হবে’

ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির সন্তান অভিজিৎ মুখার্জি। পশ্চিমবঙ্গের জঙ্গিপুরে বাবার ছেড়ে দেওয়া আসনে ২০১২ সালে উপনির্বাচনের মাধ্যমে রাজনীতিতে হাতেখড়ি। তারপর ২০১৪ সালের নির্বাচনে আবারও জঙ্গিপুরের মানুষ তাকে বিজয়ী করে। সাত বছরের বেশি সময় তিনি ছিলেন জঙ্গিপুরবাসীর সঙ্গে। সুখে-দুঃখে এলাকাবাসীর পাশে থেকে আপন করে নিয়েছেন তাদের। ৬৮ শতাংশ মুসলমান অধ্যুষিত জঙ্গিপুরে চার প্রার্থীর তিনিই একমাত্র হিন্দু প্রার্থী। আজ সেখানে অনুষ্ঠিত হচ্ছে লোকসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ। এ নির্বাচন সামনে রেখে জঙ্গিপুরে শেয়ার বিজকে বিশেষ সাক্ষাৎকার দেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন শেখ সাজিদ

শেয়ার বিজ: কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে দুবার আপনি জঙ্গিপুর থেকে নির্বাচিত হয়েছেন। এবারের ভোট কীভাবে দেখছেন?

অভিজিৎ মুখার্জি: খুব কঠিন। এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বলেই দিয়েছেন, রাজ্যের ৪২ আসনেই তৃণমূল কংগ্রেস জয়লাভ করবে। সে হিসেবে নির্বাচনের আগেই তো আমরা হেরে গেছি। তবে এ আসনে মানুষ ভোট দেবে কংগ্রেসকে। আমরা জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।
শেয়ার বিজ: আপনি নির্বাচনী প্রচারে বলছেন, গত সাত বছর ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। এ বিষয়ে একটু খোলাখুলি বলবেন?

অভিজিৎ মুখার্জি: জঙ্গিপুরের সবচেয়ে বড় উন্নয়ন প্রকল্প আমরুত প্রকল্প। এ প্রকল্পের আওতায় ২১টি পৌর ওয়ার্ডের অধীনে ভূমি উন্নয়ন করা হয়েছে। এতে লক্ষাধিক মানুষ সরাসরি উপকৃত হয়েছে। গঙ্গাদূষণ রোধে কাজ করেছি। জল, আলো, বড় রাস্তা, ড্রেন, বিদ্যুৎ, মেয়েদের স্নানের ঘাট নির্মাণসহ ঠাকুর বিসর্জন ঘাটের উন্নয়ন করা হয়েছে।

শেয়ার বিজ: আপনার নির্বাচনী ইশতেহারে বর্তমান সময়কে বড় দুঃসময় বলে মোদি সরকারের বেশ সমালোচনা করেছেন। এ বিষয়ে বিস্তারিত বলবেন কী?

অভিজিৎ মুখার্জি: গত পাঁচ বছরে দেশের আর্থিক অবস্থা ক্রমশ দুর্বল হয়ে পড়েছে। সাধারণ মানুষের দুবেলা দুমুঠো খাবারের অধিকার ছিনিয়ে নিয়ে কেন্দ্রের বর্তমান সরকার পেট ভরিয়েছে অসাধু ব্যবসায়ী ও শিল্পপতিদের। কালোটাকা উদ্ধারের চমক দেখিয়ে মদত জোগানো হয়েছে আসলে কালোবাজারিকে। গরিবের কান্না উপেক্ষা করে মিথ্যা স্বপ্নের জাল বুনছেন প্রধানমন্ত্রী। এ অস্বস্তিকর অবস্থা থেকে মানুষ মুক্তি চায়। তাই তারা এখন কংগ্রেসের পতাকাতলে জড়ো হচ্ছে।

শেয়ার বিজ: প্রার্থী হিসেবে আপনি ও আপনার দল কংগ্রেসকে মানুষ কেন ভোট দেবে?

অভিজিৎ মুখার্জি: প্রার্থী হিসেবে আমি সব সময় জঙ্গিপুরবাসীর সঙ্গে আছি। তার প্রমাণ মাঠে, ময়দানে, উৎসবে দেখতে পাচ্ছেন। সারা বছর জঙ্গিপুরবাসীর সঙ্গে আছি। আমরা সরকারে না থাকলেও জঙ্গিপুরের যে উন্নয়ন চলছে, তা আমরুত প্রকল্পের টাকায়। এটা আমিই এনে দিয়েছি। বর্তমানে জঙ্গিপুর যে ভারতীয় রাজনীতির মানচিত্রে গুরুত্ব পেয়েছে, তা তো তৎকালীন কংগ্রেস সংসদ সদস্যের প্রচেষ্টায়। জাতীয় ব্যাংকের সবকটি শাখা স্থাপন, ইনকাম ট্যাক্স অফিস ও পিএফ অফিস স্থাপন সবই হয়েছে সংগ্রেস সরকারের সময়ে, যা এলাকার মানুষ জানে। চানকে আদিবাসী ছাত্রাবাস, ফুডপার্কের মতো কারখানা, এমডিআই’র মতো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কি করেনি তৎকালীন কংগ্রেস সরকার? এসব উন্নয়নের কারণেই মানুষ কংগ্রেসকে ভোট দেবে।

শেয়ার বিজ: কেন্দ্রে সরকার গঠন সম্পর্কে কিছু বলুন…

অভিজিৎ মুখার্জি: মোটাদাগে দেশ বাঁচাতে হলে মোদি সরকারকে হটাতে হবে। কংগ্রেস নেতৃত্ব দিয়ে এ দেশে স্বাধীনতা এনে দিয়েছিল। এ দলটির নেতৃত্বে এ দেশের মানুষের অর্থনৈতিক স্বাধীনতা আসবে। জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সবাই এ দেশে শান্তিতে বাস করবে। আর এ লক্ষ্যেই লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসকে জিতবে হবে। গঠন করতে হবে সরকার।

শেয়ার বিজ: ৪৯ শতাংশ নারী অধ্যুষিত এলাকায় নারীদের জন্য কী কী করবেন?

অভিজিৎ মুখার্জি: নারীদের কর্মসংস্থানে ভবিষ্যতে ব্যাপক উদ্যোগ নেওয়া হবে। ফুডপার্কে তাদের নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ করা হবে। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের দক্ষতা বাড়ানো হবে। পাশাপাশি তাদের ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলার বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়া হবে।

শেয়ার বিজ: নির্বাচনী ব্যস্ততার মাঝেও সময় দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।

অভিজিৎ মুখার্জি: শেয়ার বিজকেও ধন্যবাদ।

সর্বশেষ..