স্পোর্টস

মাশরাফিকে বিদায় জানাতে প্রস্তুত হচ্ছে বিসিবি

ক্রীড়া প্রতিবেদক: বিশ্বকাপের পরেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ছাড়ার দিনক্ষণ ঠিক করার কথা ছিল মাশরাফি বিন মুর্তজার। কিন্তু বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসানের কারণে সে পথে হাঁটতে পারেননি তিনি। দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থাটির কর্তা চেয়েছেন ঘরের মাঠে ঘটা করেই ওয়ানডে অধিনায়ককে বিদায় দেবেন। যে কথা, সে কাজ করতেই এখন প্রস্তুত হচ্ছে বিসিবি।
মাশরাফিকে ঘরের মাঠে বিদায় দেওয়ার জন্য অদূর ভবিষ্যতে দেশের মাটিতে টাইগারদের কোনো ওয়ানডে নেই। তার ভক্তদের মনে প্রশ্ন জেগেছে ম্যাশ কি বিশ্বকাপেই শেষ ম্যাচ খেলে ফেলেছেন? কিন্তু না। তাদের জন্য আছে সুখবর। সবকিছু ঠিক থাকলে নিজের অভিষেক ম্যাচের মতো জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই শেষ ম্যাচ বা সিরিজ খেলতে যাচ্ছেন বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক। এ জন্য জিম্বাবুয়েকে ঢাকায় আনতে বদ্ধ পরিকর বিসিবি। গত পরশু বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বেশ আস্থা ও দৃঢ়তার সঙ্গে জানিয়েছেন জিম্বাবুয়ে আসবে। আইসিসির নিষেধাজ্ঞা তাদের বাংলাদেশের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে খেলতে আসায় কোনো বাধা হবে না।
আইসিসির নিষেধাজ্ঞার কারণে জিম্বাবুয়ের আসা-না আসা নিয়ে একটু সংশয় তৈরি হয়েছে। তবে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দীন চৌধুরী আশাবাদী জিম্বাবুয়ে আসবে সিরিজটা খেলতে, ‘জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ড তাদের সরকারের সঙ্গে কথা বলছে। কালও জানিয়েছে যে তারা ইতিবাচকভাবে এগোচ্ছে। দু-এক দিনের মধ্যে এটা নিয়ে চূড়ান্ত কিছু জানা যাবে।’
জিম্বাবুয়ে কবে আসবে ব্যাপারটি নিজাম উদ্দীন চৌধুরী খোলসা না করতে পারলেও বিসিবির একটি সূত্র থেকে জানা গেছে, আগামী ৭ থেকে ১০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আসতে পারে।
এ মাসে বাংলাদেশ দলের কোনো খেলা নেই। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশ দলের ব্যস্ততা শুরু হবে আগামী মাস থেকেই। সে হিসেবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টটি শুরু হওয়ার কথা ৫ সেপ্টেম্বর। এ পর্যন্ত ঠিক আছে। এরপর বাংলাদেশ, আফগানিস্তান আর জিম্বাবুয়েকে নিয়ে একটি তিন জাতি টি-টোয়েন্টি সিরিজও অনুষ্ঠিত হবে। সেই ত্রিদেশীয় সিরিজের সম্ভাব্য সময় সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়। আর ঠিক এরপরই জিম্বাবুয়ের সঙ্গে দুই বা তিন ম্যাচের একটি ওয়ানডে সিরিজ আয়োজনের চিন্তা-ভাবনা করছে বিসিবি। এবং ইতোমধ্যেই সংস্থাটির পক্ষ থেকে জিম্বাবুয়েকে এ ওয়ানডে সিরিজ খেলার প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছে। এ জন্য দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থাটি প্রতিপক্ষ দেশকে দিতে চাই কোটি টাকাও। এখন আইসিসির আইনগত জটিলতা না থাকলে জিম্বাবুয়ে হয়ত ৭ থেকে ১০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকা চলে আসবে।
মাশরাফির বিদায় তো ঘরের মাঠে বড় কোনো দলের সঙ্গে খেলে দিতে পারত বিসিবি। কিন্তু কেন জিম্বাবুয়ের জন্য এত অপেক্ষা করছে দেশের ক্রিকেটের শীর্ষ সংস্থাটি। এ ব্যাপারে নিজামউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘একটা সময় বাংলাদেশের সঙ্গে তুলনামূলক বেশি দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলত জিম্বাবুয়ে। আমাদের অনুরোধে জিম্বাবুয়েই বেশি হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। এখন আমরাও তাদের দিকে হাত বাড়িয়ে দিচ্ছি। এবারও আমরা যেমন ওদের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছি। আসবে কি আসবে না, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সেটা তারাই জানিয়ে দিক। আমরা কিছু বলতে চাই না।’

সর্বশেষ..



/* ]]> */