দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

মিথ্যা ঘোষণায় তিন কোটি টাকা শুল্ক ফাঁকির চেষ্টা

প্রাণ গ্রুপের জালিয়াতি

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম: জালিয়াতির মাধ্যমে সিমেন্ট আমদানি করায় প্রাণ গ্রুপের ৩০টি কনটেইনার পণ্য খালাস স্থগিত করেছে চট্টগ্রাম কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। এ চালানে প্লাস্টিকের দানা ঘোষণা দিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে সৌদি আরবের একটি বিখ্যাত ব্র্যান্ডের সিমেন্ট আমদানি করে কোম্পানিটি। এতে প্রায় তিন কোটি টাকার শুল্ক ফাঁকি দেওয়ার চেষ্টা করেছিল।
চট্টগ্রাম কাস্টমসের যুগ্ম কমিশনার সাধন কুমার কুণ্ডু জানান, দুবাই থেকে প্রাণ ডেইরি লিমিটেডের নামে ৩০টি কনটেইনারের চালান গত ২৬ মে চট্টগ্রাম বন্দরে আসে। ওইদিনই চালান খালাসের জন্য নথিপত্র জমা দেয় আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান। চালানে পাঁচ লাখ ৬৬ হাজার ডলার মূল্যের ৫১০ মেট্রিক টন প্লাস্টিক দানা আনার ঘোষণা দেওয়া হয়। বাংলাদেশি টাকায় এর দাম প্রায় সাড়ে পাঁচ কোটি টাকা। এদিকে ‘ঈদের সরকারি বন্ধের সময় ৬ জুন রাতে তারা কনটেইনার খালাসের চেষ্টা করে। এ সময় কাস্টমস কর্মকর্তারা দুটি কনটেইনার খুলে সিমেন্টের বস্তা দেখতে পান। এরপর ৩০টি কনটেইনার লক করে সেগুলোর খালাস বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়। তারপর ঈদের ছুটি শেষে সোমবার ও মঙ্গলবার দুই দিনে কায়িক পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়।
সাধন কুমার কুণ্ডু আরও জানান, চালানটির খালাস স্থগিত করা হয়েছে। আমদানিকারকের বিরুদ্ধে গতকাল সকালে মামলা করা হয়েছে। আর সিমেন্টের রাসায়নিক পরীক্ষা করা হবে।
৩০টি কনটেইনার খুলে দেখা যায়, চালানটিতে রয়েছে সৌদি আরবের জেবেল আলী ব্র্যান্ডের সিমেন্টের বস্তা। প্রতি বস্তায় ৫০ কেজি করে ৩৪০টি বস্তা এসেছে এক কনটেইনারে। ৩০টি কনটেইনারে ১০ হাজার ২৫০টি বস্তায় মোট সিমেন্ট এসেছে ৫১০ মেট্রিক টন।
জানা যায়, প্লাস্টিক দানার শুল্ককর ৩২ শতাংশ। আর সিমেন্টের শুল্ককর ৯১ শতাংশ। আমদানিকারক প্লাস্টিকের দানা হিসেবে এক কোটি ৪২ লাখ টাকা শুল্ক দিয়েছিল। আর সিমেন্টের হিসেবে শুল্ক আসে প্রায় চার কোটি ৬৫ লাখ টাকা। এই চালানের আমদানিকারক সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ের জিপিজি মিডিইস্ট জেনারেল ট্রেডিং। আর এলসি করা হয়েছিল মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড থেকে।
চট্টগ্রাম কাস্টমস কমিশনার মোহাম্মদ ফখরুল আলম শেয়ার বিজকে বলেন, চালানটির খালাস স্থগিত করার পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে টাকা ছাড় না করার জন্য ফোন করা হয়েছে। এই চালানে বিদেশে অর্থ পাচারের উদ্দেশ্য ছিল বলে মনে হয় না। এরই মধ্যে আমদানিকারক ভুল স্বীকার করেছে। তবে মিথ্যা ঘোষণার জন্য জরিমানা করা হবে।
এদিকে মিথ্যা ঘোষণায় বিদেশি সিমেন্ট আমদানির বিষয়ে জানতে প্রাণ আরএফএল গ্রুপের ব্যবস্থাপক (মিডিয়া) কেএম জিয়াউল হক, পরিচালক (বিপণন) কামরুজ্জমান কামাল ও উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক আহসান খান চৌধুরীকে একাধিকবার ফোন করলেও তারা কল রিসিভ করেননি।

 

ট্যাগ »

সর্বশেষ..