প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

মৌলভিত্তির কোম্পানির দর বৃদ্ধিতে বাজার ইতিবাচক

রুবাইয়াত রিক্তা: সপ্তাহের শেষদিনে পুঁজিবাজারে সূচকের উত্থানে লেনদেন হয়েছে। দৈনিক লেনদেন ৫০০ কোটি টাকার ঘর ছাড়িয়েছে। তবে গতকাল বেশিরভাগ কোম্পানি দরপতনে ছিল। অধিকাংশ কোম্পানির দরপতন সত্ত্বেও সূচক ইতিবাচক করতে ভূমিকা রেখেছে মৌলভিত্তির হিসেবে বিবেচিত কোম্পানিগুলোর দর বৃদ্ধি। আর্থিকভাবে উচ্চমানের এসব কোম্পানি ব্ল– চিপ হিসেবে খ্যাত। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ডিএস৩০ সূচকে অন্তর্ভুক্ত ৩০ কোম্পানিকেই সবচেয়ে ভালো কোম্পানি হিসেবে ধরা হয়। গতকাল এ ৩০ কোম্পানির মধ্যে ২৩টির দর বেড়েছে। এর মধ্যে স্কয়ার ফার্মা ও গ্রামীণফোনের লেনদেন ও দর বৃদ্ধি সূচকের উত্থানে ইতিবাচক ভূমিকা রেখেছে।
গতকালও লেনদেনে কোনো খাতের একক প্রাধান্য ছিল না। ১৪ শতাংশ লেনদেন হয়ে শীর্ষে উঠে আসে ওষুধ ও রসায়ন খাত। এ খাতে মাত্র ৪০ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। সোয়া ২৬ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে শীর্ষে উঠে আসে স্কয়ার ফার্মা। কোম্পানিটির শেয়ারদর বেড়েছে ৩০ পয়সা। জেএমআই সিরিঞ্জের সাড়ে ১১ কোটি টাকা লেনদেন হলেও সাড়ে সাত টাকা দরপতন হয়। সাড়ে ৯ শতাংশ বেড়ে সালভো কেমিক্যাল দর বৃদ্ধিতে দ্বিতীয় অবস্থানে উঠে আসে। ১৩ শতাংশ লেনদেন হয় বস্ত্র খাতে। এ খাতে ৫৩ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। আরএন স্পিনিং ও কাট্টলী টেক্সটাইল দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে। এর মধ্যে কাট্টলী টেক্সটাইলের প্রায় ১১ কোটি টাকা লেনদেন হয়। জেনেক্স ইনফোসিসের সোয়া ৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ৮০ পয়সা। প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ১২ শতাংশ। এ খাতে ৪৭ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। প্রায় সাত শতাংশ বেড়ে রানার অটোমোবাইল দর বৃদ্ধিতে তৃতীয় অবস্থানে উঠে আসে। কোম্পানিটির সোয়া ১১ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। বিমা খাতে লেনদেন হয় ১১ শতাংশ। এ খাতে ৫৭ শতাংশ কোম্পানি দরপতনে ছিল। তবে প্রায় ছয় শতাংশ বেড়ে বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স ও চার শতাংশ বেড়ে প্রগতি লাইফ দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের তালিকায় উঠে আসে। ব্যাংক খাতে লেনদেন হয় ১০ শতাংশ। এ খাতে ৫৬ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ব্র্যাক ব্যাংকের প্রায় ৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে দুই টাকা। প্রায় চার শতাংশ বেড়ে সিটি ব্যাংক দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে। জ্বালানি খাতে ৫৭ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ইউনাইটেড পাওয়ারের সাড়ে ২১ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় ১০ পয়সা। বিবিধ খাতে ৭৬ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের প্রায় ১১ কোটি টাকা লেনদেন হয়। চামড়া শিল্প খাতের ফরচুন শুজের সাড়ে ৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ১০ পয়সা।

সর্বশেষ..