বিশ্ব পণ্যবাজার

ম্যাকডোনাল্ড’স বর্জনের ডাক মালয়েশিয়ায় 

শেয়ার বিজ ডেস্ক : জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের স্বীকৃতি দেওয়ার পর বিশ্বজুড়ে নিন্দার ঝড় বয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে মুসলিম দেশগুলো মার্কিন এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করছে। অধিকাংশ দেশ যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠানগুলোকে বর্জনের ডাক দিয়েছে। মালয়েশিয়ায় এমনই পরিস্থিতিতে পড়েছে ফাস্টফুড রেস্টুরেন্ট চেইন ম্যাকডোনাল্ড’স। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে এ রেস্টুরেন্টকে বর্জনের ডাক দিয়েছে সে দেশের জনগণ। এ নিয়ে নিজেদের হতাশার কথা জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। খবর

ইব্রাহিম নামে এক ব্যক্তি কোনো সূত্রের কথা উল্লেখ না করে টুইট করেছেন, ‘ম্যাকডোনাল্ড’সের যুক্তরাষ্ট্রের সদর দফতর ইসরাইলকে অর্থায়ন করে।’ তাই একে বর্জন করা উচিত। টুইটটি অসংখ্যবার শেয়ার হয়েছে। রয়টার্সের পক্ষ থেকে ওই টুইটকারীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।

এদিকে ম্যাকডোনাল্ড’স মালয়েশিয়া ফেসবুকে এক বার্তায় অর্থায়নের কথা অস্বীকার করে বলেছে, এ ফাস্টফুড চেইন কোনো রাজনৈতিক ও ধর্মীয় দ্বন্দ্বে জড়িত নয়। অর্থায়নের বিষয়ে গুজব ছড়ানো হয়েছে। এটা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত।

ম্যাকডোনাল্ড’সের মালয়েশীয় ফ্র্যাঞ্চাইজির অংশীদার আজমির জাফর জানান, এ ফাস্টফুড চেইনের বেশিরভাগ অংশীদার মুসলিম। তাই সবাইকে বিভ্রান্ত না হতে অনুরোধ করেন তিনি।

এর আগে ২০১৪ সালে গাজা আক্রমণে ইসরাইলকে অর্থায়নের অভিযোগে কোনো সূত্র ছাড়াই যোগাযোগ মাধ্যমে মার্কিন এ ফাস্ট ফুড চেইনকে বর্জনের ডাক দেওয়া হয়। তখনও অভিযোগ অস্বীকার করেছিল প্রতিষ্ঠানটি।

গত শুক্রবার মালয়েশিয়ার মার্কিন দূতাবাসের সামনে জেরুজালেমকে রাজধানী স্বীকৃতি দেওয়ার বিরুদ্ধে নিন্দা জানিয়ে বিক্ষোভ করা হয়। এসময় তারা ডোনাল্ড ট্রাম্পের কুশপুতুল পোড়ায়। ইন্দোনেশিয়ার নেতারাও এর প্রতিবাদ জানান। গত শনিবার দেশটির প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো বিষয়টি নিয়ে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানের সঙ্গে কথা বলেন।

এদিকে ট্রাম্পের ওই ঘোষণাকে কেন্দ্র করে ক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়ছে পুরো মুসলিম বিশ্বে। প্রতিবাদ বিক্ষোভের মুখে তিউনিসিয়ায় মার্কিন দূতাবাস বন্ধ ঘোষণা করতে বাধ্য হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

 

সর্বশেষ..