কৃষি কৃষ্টি

যশোরে জনপ্রিয় সিডি ভার্মি কম্পোস্ট

যশোরের কৃষকের মাঝে সিডি ভার্মি কম্পোস্ট (কেঁচো সার) ভীষণ জনপ্রিয়। এ সার ব্যবহারের ফলে ফসলি জমির উর্বরা শক্তি যেমন বৃদ্ধি পায়, তেমনি অধিক ফলনের আশাও করা যায়।
নতুন পরিবেশবান্ধব পদ্ধতি এখন শুধু এ জেলাতেই নয়, জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে পার্শ্ববর্তী জেলাগুলোতেও। তাই এ সারের ব্যবহার বাড়াতে ব্যাপক প্রচারের প্রতি জোর দেওয়া হচ্ছে। অতীতে মৌখিকভাবে এ সার সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হতো। বর্তমানে লিফলেটসহ নানা ধরনের কাগজপত্রের মাধ্যমে কৃষককে ভার্মি কম্পোস্টের গুরুত্ব বোঝানো হচ্ছে। এ সার ব্যাপকভাবে ব্যবহার হলে যশোর অঞ্চলের আনুমানিক ১০ হাজার নারী উৎপাদনকারী সুফল পাবেন। এমন দাবি করেছেন কৃষি কর্মকর্তারা।
কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, উৎপাদনকারীরা জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে কেঁচো সংগ্রহ করে ভার্মি কম্পোস্ট উৎপাদন শুরু করেন। মূলত হাউজ, রিং ও নাদা পদ্ধতিসহ বিভিন্ন পদ্ধতি আবিষ্কার করে ভার্মি কম্পোস্টের চাষ করা হয় বলে জানিয়েছেন তারা।
এ সার কৃষক জমিতে ব্যবহার করে ভালো ফলন পাওয়ায় জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এ কারণে রাসায়নিক সারের পরিবর্তে কেঁচো সার ব্যবহারে কৃষকরা ঝুঁকে পড়েছে।
কৃষি বিভাগের হিসাব অনুযায়ী যশোরে প্রায় ছয় হাজার ভার্মি কম্পোস্ট উৎপাদনকারী রয়েছেন। তাদের অধিকাংশই নারী। তারা দীর্ঘদিন ধরে ভার্মি কম্পোস্ট উৎপাদন করলেও ঠিকমতো বাজারজাত করতে পারছেন না। এ কারণে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন অনেকে। এমনকি কেউ কেউ উৎপাদন থেকে নিজেকে সরিয়ে নিচ্ছেন। নারী উৎপাদনকারীদের অভিযোগ, কৃষি বিভাগ ভার্মি কম্পোস্ট নিয়ে তেমন প্রচার চালায় না। কৃষক এ সারের গুণাগুণ সম্পর্কে ঠিকমত ওয়াকিবহাল নয়। এ কারণে মাটির জন্য উপকারী ভার্মি কম্পোস্ট অনেক কৃষকই ব্যবহার করেন না। এসব অভিযোগের মধ্যে কৃষি অধিদফতর ও কৃষি মন্ত্রণালয় এ সারকে কৃষকবান্ধব করতে নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। এ সম্পর্কে লিফলেট ছেপে তা সাধারণ মানুষের মধ্যে বিতরণও করছে কৃষি অধিদফতর ও কৃষি মন্ত্রণালয়।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক কাজী হাবিবুর রহমান বলেন, সিডি ভার্মি কম্পোস্ট দিন দিন যেভাবে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে, তাতে আগামীতে উন্নত মানের পরিবেশবান্ধব সার পাওয়ার পাশাপাশি কেঁচোর সংখ্যাও বৃদ্ধি পাবে। ফলে জেলার সব কৃষকের বাড়ি সার তৈরির কারখানায় পরিণত হবে। কৃষক নিজেই এ সার তৈরি করতে পারবে এবং মাটির স্বাস্থ্য রক্ষায় সচেতন হবে। এ সারের ব্যবহার বাড়াতে প্রচারের প্রতি জোর দেওয়া হচ্ছে। এ ব্যাপারে সব সময় আমাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা থাকবে।

মীর কামরুজ্জামান মনি, যশোর

সর্বশেষ..