সাক্ষাৎকার

‘যুগ যুগ ধরে এসিআই থাকবে মানুষের হুদয়ে’

এসিআই গ্রুপের স্বপ্নদ্রষ্টা এম আনিস উদ দৌলা। প্রকৌশলী হওয়ার স্বপ্ন ছিল তার, হয়ে গেলেন ব্রিটেনের বহুজাতিক কোম্পানি আইসিআই গ্রুপের বড় কর্তা। এরপর কর্মপরায়ণতার মধ্য দিয়ে বিন্দু থেকে বৃহৎ ব্যবসায়িক বলয় গড়ে তোলেন তিনি। এসিআই প্রতিষ্ঠা ছাড়াও বিভিন্ন সময় দায়িত্ব পালন করেছেন বেশ কয়েকটি ব্যবসায়ী ফোরামের। সফল এ উদ্যোক্তা তিন মেয়াদে মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির প্রেসিডেন্ট ও চারবার বাংলাদেশ এমপ্লয়ার্স ফেডারেশনের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। এক সাক্ষাৎকারে পথচলার গল্প জানিয়েছেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন পলাশ শরিফ
প্রকৌশলী হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে জীবনের শুরু, সেখান থেকে স্বনামখ্যাত ব্যবসায়ী হয়ে ওঠা। কীভাবে দেখেন বিষয়টিকে?
এম আনিস উদ দৌলা: প্রকৌশলী হতে চেয়েছি। কালক্রমে ভিন্নপথে, অন্য একটি পরিচয়ে পথ চলা। আমার ভালোই লাগে। বরং আমার প্রকৌশলী হওয়ার ইচ্ছে বা নতুন কিছু নিজ হাতে গড়ার স্বপ্ন আমাকে আজকের অবস্থানে আসতে সাহায্য করেছে। আমি ভিত রচনার সময় দক্ষ প্রকৌশলীর মতোই কাজ করেছি।

লোকসানি প্রতিষ্ঠানকে লাভজনক করে তোলার মধ্য দিয়েই তো এসিআই’র জন্ম…
এম আনিস উদ দৌলা: এসিআই’র আগে ছিল আইসিআই। সেটি ছিল বহুজাতিক একটি কোম্পানি। তবে বাংলাদেশে তেমন চমক ছিল না। কোম্পানি লোকসান করছিল। এরপর ব্যবসায়িক সুনাম আর পণ্যের মানের ওপর নির্ভর করে অনেকটা শূন্য থেকেই এসিআই’র জন্ম। আমি শুরু থেকে পণ্যের গুণগত মান ধরে রেখেছি। দাম মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখার পক্ষে। সে সঙ্গে মুনাফার চেয়ে মানুষকে সেবা দেওয়া ও কর্মরতদের স্বার্থের দিকটিও আমার কাছে মুখ্য। তাই সাময়িক লোকসান কিংবা মুনাফা কম হলেও এসব বিষয়ে কখনও আপস করিনি। ভবিষ্যতেও করতে চাই না। কারণ, এগুলোই একটি প্রতিষ্ঠানের মূল চালিকাশক্তি।

এসিআই’র এগিয়ে চলার নেপথ্যের কারণগুলো…
এম আনিস উদ দৌলা: গ্রাহকের আস্থা, পণ্যের মান, ভোক্তাস্বার্থ সংরক্ষণ, পণ্যের দাম ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখা, সময়োপযোগী ও দূরদর্শী পরিকল্পনা। পাশাপাশি আধুনিক প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করা ও দক্ষ ব্যবস্থাপনাই এসিআইকে আজকের অবস্থানে নিয়ে এসেছে। গ্রাহকের আস্থা ও আজকের অবস্থান ধরে রাখতে আমরা কাজ করছি। শত বছর পরও এসিআই তার আদর্শে অবিচল থাকবে। লোকসান বা মুনাফা কম হলেও এসিআই গণমানুষের হয়ে থাকবে। আজ লোকসান নিয়ে কথা হচ্ছে। আমি আজীবন লোকসান করার জন্য ব্যবসায় আসিনি। বরং যুগ যুগ ধরে এসিআই যাতে মানুষের হৃদয়ে স্থান পায় সে স্বপ্ন নিয়ে কাজ করছি। যুগ যুগ ধরে এসিআই মানুষের হৃদয়ে থাকবে। দেরিতে হলেও আজকের লোকসানি প্রতিষ্ঠানগুলো একদিন লাভজনক হয়ে উঠবে।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা…
এম আনিস উদ দৌলা: চলমান অগ্রগতির ধারা এগিয়ে রাখাই মূল বিষয়। এজন্য লোকসানি কনসার্নগুলোকে লাভজনক করার পরিকল্পনা নেওয়া হচ্ছে। এর মধ্য দিয়ে ভবিষ্যতে বিদেশি কোম্পানির সঙ্গে ব্যবসা বাড়বে। এরই মধ্যে কয়েকটি বহুজাতিক কোম্পানির সঙ্গে সম-অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করছি। এ ধারা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে।

 

সর্বশেষ..