প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

যে গতিতে সূচকের উত্থান সেভাবেই পতন

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজারে গত তিন কার্যদিবসে যে গতিতে সূচকের উত্থান হয়েছে, গতকাল সেভাবেই পতন হয়েছে। তিন কার্যদিবস উত্থানের পর গতকালের পতনকে স্বাভাবিক বলা যায়। কারণ, স্বাভাবিকভাবেই গতকাল মুনাফা তুলে নিয়েছেন বিনিয়োগকারীরা। গত কয়েক দিনের সূচকের উত্থান ও গতকালের পতনের গতিতে সাদৃশ্য ছিল। গত কয়েক দিন সব খাতেই শেয়ার কেনার প্রবণতা ছিল। অন্যদিকে গতকাল সব খাতেই ছিল মুনাফা তুলে নেওয়ার প্রবণতা। যার কারণে কোনো খাতেই ইতিবাচক গতি দেখা যায়নি। তবে চামড়াশিল্প খাতে ৫০ শতাংশ শেয়ারের দর বাড়ার পাশাপাশি লেনদেন দ্বিগুণের বেশি বেড়েছে।
মোট লেনদেনের ১৭ শতাংশ বা ৭৭ কোটি টাকা লেনদেন হয় প্রকৌশল খাতে। এ খাতে প্রায় ৭৬ শতাংশ কোম্পানি দরপতনে ছিল। ন্যাশনাল পলিমারের সাড়ে ১২ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে এক টাকা ৮০ পয়সা। ন্যাশনাল টিউবসের প্রায় ১০ কোটি টাকা লেনদেন হলেও দুই টাকা দরপতন হয়। প্রায় ১০ শতাংশ ও ছয় শতাংশ বেড়ে দর বৃদ্ধির শীর্ষ ১০ কোম্পানির মধ্যে অবস্থান করে এসএস স্টিল এবং কে অ্যান্ড কিউ। বস্ত্র খাতে লেনদেন হয় ১৫ শতাংশ। এ খাতে ৮০ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। এ্যাসকোয়ার নিটের সোয়া ১৭ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে সাড়ে তিন টাকা। কোম্পানিটি দর বৃদ্ধিতে তৃতীয় অবস্থানে ছিল। গতকাল চামড়াশিল্প খাতে লেনদেন হয় ১১ শতাংশ। আগের দিন এ খাতে লেনদেনের পরিমাণ ছিল পাঁচ শতাংশ। এ খাতের ফরচুন শুজের প্রায় ৩৬ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে কোম্পানিটি লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করে। দর বেড়েছে প্রায় দুই টাকা। এছাড়া বাটা শু’র দর প্রায় ৯ টাকা বেড়েছে।
লিগ্যাসি ফুটওয়্যারের দর সাড়ে পাঁচ টাকা বৃদ্ধি ও সাড়ে ১১ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে দর বৃদ্ধি ও লেনদেনে শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। গতকাল এক শতাংশ বেড়ে ব্যাংক খাতে ১০ শতাংশ লেনদেন হয়। এ খাতে ৬২ শতাংশ কোম্পানি দরপতনে ছিল। ব্র্যাক ব্যাংকের প্রায় আট কোটি টাকা লেনদেন হলেও ৪০ পয়সা দর কমেছে। আর কোনো খাতেই উল্লেখযোগ্য লেনদেন হয়নি। বিমা খাতের নিটল ও প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি দুটি এবং প্রাইম ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে অবস্থান করে। এছাড়া সিরামিক খাতের মুন্নু সিরামিকের সোয়া ১০ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে দুই টাকা ২০ পয়সা। তথ্য ও প্রযুক্তি খাতের জেনেক্স ইনফোসিসের দর ২৩ এপ্রিলের পর থেকে ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে। ২৩ এপ্রিল শেয়ারটির দর ছিল ৩৩ টাকা ৭০ পয়সা। গতকাল তা বেড়ে দাঁড়ায় ৪৯ টাকা ৯০ পয়সায়। সর্বশেষ তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ৫২ পয়সা বেড়েছে।

সর্বশেষ..