রমজান ভাই পাবলিক ফিগার

শোবিজ ডেস্ক : এটিএন বাংলার ঈদ অনুষ্ঠানমালায় ঈদের তৃতীয় দিন রাত সাড়ে ৮টায় প্রচারিত হবে বিশেষ নাটক ‘রমজান ভাই পাবলিক ফিগার’। আপেল মাহমুদের রচনায় নাটকটি পরিচালনা করেছেন শেখ সেলিম। বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন জাহিদ হাসান, তানিয়া বৃষ্টি, আবদুল্লাহ রানা, খলিলুর রহমান কাদেরী, আনন্দ খালেদ, মোশাররফ হোসেন, অরণ্য বিজয় প্রমুখ।
নাটকের গল্পে দেখা যাবে রমজান ভাই পাড়ার বড় ভাই। কিছুটা মাস্তান টাইপের, কুকুর ছাড়া আর কাউকেই ভয় পান না। দুলাল আর শুভ দুজনেই তার শিষ্য। রমজান ভাইয়ের আরেকজন শিষ্য সাকিব। রমজান ভাইয়ের একটা ফেসবুক আইডি আছে। আইডিটা সাকিব খুলে দিয়েছে। আইডিতে রমজান ভাইয়ের একটা বড় ভাই ভাবের ছবি দেওয়া আছে। সেখানে প্রায় হাজার তিনেক মানুষ তাকে ফলো করে।
আইডিটা ব্যবহার করে সাকিব। রমজান ভাই ফেসবুকে যা আপডেট দেন, তা আসলে সাকিবই পোস্ট করে। রমজান ভাই পাড়ায় সবার কাছে সমীহ পান। ফেসবুক হোক আর পাড়ার জুনিয়রদের সমীহ থেকেই হোক, রমজান ভাই নিজেকে একটা পাবলিক ফিগার মনে করেন। রমজান ভাইয়ের একটাই টেনশনÑনাঈমা। নাঈমা পাড়ার সবচেয়ে সুন্দরী মেয়ে আর রমজান ভাইয়ের প্রেমিকা। প্রেমিকা মানে ওয়ান সাইডেড আরকি। রমজান ভাই এই একজনের কাছেই মোমের মতো নরম হয়ে যান। নাঈমা অবশ্য রমজান ভাইকে গুরুত্ব দেয় না তেমন একটা। নাঈমার একটি সাদা রঙের বিদেশি কুকুর আছে। ওটাকে কুকুর বলে ডাকলে অবশ্য নাঈমা অনেক ক্ষেপে যায়। ওটার নাম বাদশাহ। বাদশাহ রমজান ভাইয়ের শত্রæ। রমজান যে কয়দিন নাঈমার সঙ্গে কথা বলার মতো সুযোগ তৈরি করেছিল, তার সব কটাই ভেস্তে গেছে বাদশাহর কারণে। একসময় রমজান ভাই নাওয়া-খাওয়া ছেড়ে দিলেন। আর এই তথ্য জানানোর জন্য দুলাল, শুভ আর সাকিব নাঈমার বাড়িতে গেল। কিন্তু কুকুরের দাবড়ানি খেয়ে তারা পালিয়ে আসে। এ অবস্থায় সাকিব হঠাৎ একদিন রমজান ভাইকে একটা খুশির খবর জানায়। নাঈমা ভাবির একটা ফেসবুক আইডি আছে। সাকিব রমজান ভাইয়ের অনুমতি নিয়ে নাঈমা ভাবিকে একটা ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠাল। এভাবেই মজার ঘটনার মধ্য দিয়ে এগিয়ে চলে নাটকের কাহিনি।