সারা বাংলা

রাজবাড়ীতে ন্যায্য মূল্যে ধান কেনা শুরু

 

প্রতিনিধি, রাজবাড়ী: ‘শেখ হাসিনার বাংলাদেশ ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ’ এ সেøাগানে এবার ৪০০ মেট্রিক টন ধান ক্রয়ের লক্ষ্যে রাজবাড়ীতে তালিকাভুক্ত কৃষকদের কাছ থেকে ন্যায্য মূল্যে ‘বোরো ধান সংগ্রহ অভিযান-২০১৯’-এর উদ্বোধন করা হয়। যার প্রতি মণ ধানের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি কেজি ২৬ টাকা দরে এক হাজার ৪০ টাকা।
গতকাল রাজবাড়ী জেলা খাদ্য বিভাগের আয়োজনে জেলা খাদ্যগুদাম প্রাঙ্গণে ধান ক্রয়ের উদ্বোধন করেন রাজবাড়ী ১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী।
এ সময় ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মো. আলমগীর হুসাইন, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সাইদুজ্জামান খান, জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মুনশী মজিবুর রহমান ভারপ্রাপ্ত, খাদ্য পরিদর্শক মোহাম্মদ আবুল কালাম, রাজবাড়ী প্রেস ক্লাবের সভাপতি খান মো. জহুরুল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি হেদায়েত আলী উপস্থিত ছিলেন।
জেলা প্রশাসক আলমগীর হুসাইন বলেন, সরকার সিদ্ধান্ত রাজবাড়ী থেকে ৪০০ টন ধান ক্রয় করবে সরকার, যদিও রাজবাড়ীতে উৎপাদন হয়েছে ৮৩ হাজার টন। সে তুলনায় খুবই কম ধান কেনা হচ্ছে। আমরা আবেদন করেছি যাতে রাজবাড়ী থেকে ধান কেনা আরও বাড়ানো হয়। আপনারা সহযোগিতা করুন, যাতে আমরা প্রকৃত কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয় করতে পারি।
জানা গেছে, জেলায় প্রায় ৮৩ হাজার টন ধান উৎপাদিত হলেও মাত্র ৪০০ টন ধান কিনবে সরকার। যার মধ্যে জেলা সদরে ১৯১ টন, পাংশায় ৪৯ টন, কালুখালীতে ৫৬ টন, বালিয়াকান্দিতে ২৪ টন ও গোয়ালন্দ উপজেলায় ৮০ টন ধান তালিকাভুক্ত কৃষকের কাছ থেকে ক্রয় করবে সরকার।
বিগত বছরের তুলনায় এ বছর রাজবাড়ীর ৩৯০ হেক্টর জমিতে ধান আবাদ কম করা হলেও ফলন হয়েছে ৮৩ হাজার টন। এত বিপুল পরিমাণ ধান উৎপাদন করার পরও নেই কৃষকের মুখে হাসি। তবে সরকারিভাবে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয়ের ঘোষণায় মুখে হাসি ফুটলেও সে হাসি মুহূর্তের মধ্যেই ম্লান হয়ে গেছে তাদের। কারণ উৎপাদনের তুলনায় সরকারিভাবে ক্রয় করা হবে; সামান্য মাত্র ৪০০ টন, যা পরিমাণে খুবই কম ধান।

সর্বশেষ..