রাজশাহীকে প্রযুক্তির নগরীতে উন্নীত করা হবে: পলক

 

শেয়ার বিজ প্রতিনিধি, রাজশাহী: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, শিক্ষানগরী রাজশাহীকে প্রযুক্তির নগরীতে উন্নীত করা হবে। রাজশাহীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাই-টেক পার্কের আইটি ইনকিউবেশন কাম প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং গেটসহ সীমানা প্রাচীরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন কার্যক্রমের উদ্বোধন করতে গিয়ে গতকাল মঙ্গলবার তিনি এসব কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধু রাজশাহী হাই-টেক পার্ক (বঙ্গবন্ধু সিলিকন সিটি) প্রকল্পের পরিচালক একেএএম ফজলুল হকের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা, রাজশাহী-৩ আসনের সংসদ সদস্য মো. আয়েন উদ্দিন, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য আকতার জাহান প্রমুখ।

আইসিটি বিভাগের আওতাধীন বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন ‘কালিয়াকৈর হাই-টেক পার্কের (এবং অন্যান্য হাইটেক পার্ক) উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাই-টেক পার্ক, রাজশাহীতে ভূমি উন্নয়ন, অভ্যন্তরীণ সড়ক ও সড়ক বাতি নির্মাণ, ৬২ হাজার বর্গফুটবিশিষ্ট ইনকিউবেশন কাম ট্রেনিং সেন্টার এবং গেট নির্মাণ করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে উল্লিখিত কাজগুলোর জন্য ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান নিয়োগ করা হয়েছে। সব কাজ আগামী ডিসেম্বর-২০১৮-এর মধ্যে সম্পন্ন হবে। এ পার্ক স্থাপনের ফলে প্রায় ১৪ হাজার মানুষের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, শিক্ষানগরী রাজশাহীকে প্রযুক্তির নগরীতে উন্নীত করা হবে। আর এ কাজটি বাস্তবায়িত হতে বেশিদিন প্রয়োজন হবে না বলে প্রতিমন্ত্রী মন্তব্য করেছেন।

মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় রাজশাহীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাই-টেক পার্ক, আইটি ইনকিউবেশন কাম প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং গেটসহ সীমানা প্রাচীরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন কার্যক্রমের উদ্বোধনকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

তিনি আরও বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার জন্য প্রযুক্তিনির্ভর আন্দোলনের সুযোগ করে দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার হাত ধরেই বাংলাদেশ আজ বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। রাজশাহী বিভাগ একসময় বিএনপি-জামায়াত তাদের অভয়ারণ্যে পরিণত করেছিল। শেখ হাসিনা দায়িত্ব পাওয়ার পর সেসব অপশক্তিকে পরাস্ত করে  দেশকে আজ উন্নয়নের দুয়ারে নিয়ে এসেছেন। যারই ধারাবাহিকতায় ৩১ একর জায়গার ওপর ২৮১ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে এ হাই-টেক পার্ক।

বর্তমান সরকারের ঘোষিত রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিশ্বমানের ব্যবসা পরিবেশ সৃষ্ট, দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্টকরণ, দেশীয় শিল্পোদ্যোক্তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে হাই-টেক ও আইটি পার্ক স্থাপনের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।