রানী রি-রোলিং মিলস

যে কোনো আধুনিক অর্থনীতির উন্নয়নে অত্যাবশ্যক উপাদান ইস্পাত। বিশেষজ্ঞদের মতে, মানবসভ্যতার মেরুদণ্ড হিসেবে বিবেচনা করা হয় ইস্পাতকে। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। দেশে প্রতিষ্ঠিত ও ক্রমবর্ধমান শিল্প ইস্পাত খাত। অনেকটা সময় নিয়ে আজকের এ অবস্থানে এসেছে আমাদের খাতটি। এই উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা রেখেছে দ্য রানী রি-রোলিং মিলস লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটি আরআরএম নামেও পরিচিত।

দীর্ঘ একুশ বছর ধরে মাইল্ড স্টিল এবং ওয়্যার পণ্য উৎপাদন ও বাজারজাত করছে রানী রি-রোলিং স্টিল মিলস। এ পথচলায় গ্রাহক ও ডিলারদের সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির সম্পর্কই শুধু মজবুত হয়নি, গুণগত মানে সেরা ও সঠিক আকৃতির পণ্যও যথাসময়ে সরবরাহ করেছে। পণ্যের মান বজায় রাখার জন্য উদ্ভাবনী শক্তি, ধারাবাহিক গবেষণা ও উন্নয়নের ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয় এখানে। দীর্ঘস্থায়ী লক্ষ্য অর্জনের জন্য সর্বাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার করা হয়। গ্রাহককে নিরাপদ, পরিবেশবান্ধব ও টেকসই ইস্পাতের নিশ্চয়তা দেয় এ প্রতিষ্ঠান। সঙ্গত কারণে গ্রাহকের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করেছে তারা।

১৯৯৭ সালে যাত্রা করে আরআরএম। প্রতিষ্ঠাতা আলহাজ আবুল বাশার। তিনি রাজধানীর শ্যামপুর কদমতলীর কারখানায় অ্যাঙ্গেল ও জি-বার উৎপাদন শুরু করেন তখন। শুরু থেকেই গ্রাহকের সন্তুষ্টি অর্জন করে তার প্রতিষ্ঠানটি। ২০০৩ সালে আকস্মিক অসুস্থ হয়ে পড়লে তার বড় ছেলে সুমন চৌধুরী প্রতিষ্ঠানটির দেখভাল শুরু করেন। অল্প সময়ের মধ্যে ব্যবসার পরিধি বাড়ান তিনি। ২০০৫ সালে দি রানী কনকাস্ট স্টিল মিলস লিমিটেড প্রতিষ্ঠা করেন। ২০১১ সালে ওয়াফিকা রিয়েল এস্টেট লিমিটেড প্রতিষ্ঠা করেন। বর্তমানে ব্যবস্থাপনা টিমের নেতৃত্বে রয়েছেন তিনি।

দেশব্যাপী সরকারি প্রকল্প, রিয়েল এস্টেট, কংক্রিটের রাস্তা, ফ্লাইওভার, সেতু প্রভৃতি নির্মাণকাজে ব্যবহার করা হচ্ছে আরআরএমের পণ্য। এই নির্মাণশিল্পে পরিবেশবান্ধব সামগ্রী সরবরাহ করে আসছে প্রতিষ্ঠানটি। করপোরেট সোশ্যাল রেসপন্সিবিলিটি থেকে সমাজের জন্য কাজ করে আরআরএম। কর্মীদের জন্য বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা বরাদ্দ রেখেছে প্রতিষ্ঠানটি। এখানে স্বচ্ছ বাছাই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কর্মী নির্বাচন করা হয়। তাদের দক্ষ ও আধুনিক করে তোলার জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়। তাদের নিরাপত্তা, শিক্ষা ও দক্ষতা বাড়াতে নানা পদক্ষেপ নেওয়া হয়। যথাসময়ে বেতন-ভাতাদি দেওয়ার পাশাপাশি কর্মীদের পুরস্কৃত করা হয়ে থাকে। প্রতিষ্ঠানে বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশ বিরাজ করলে উৎপাদনশীলতা বাড়েÑএমনই মনে করে আরআরএমের পরিচালনা পর্ষদ। তাই সব কর্মীকে একই পরিবারের সদস্য মনে করা হয় এখানে। কর্মীদের সম্পদ মনে করে ওই প্রতিষ্ঠান। গ্রাহককে ব্র্যান্ড রিপ্রেজেন্টেটিভ মনে করা হয় এখানে। টিমওয়ার্ক ও সততায় বিশ্বাসী এ প্রতিষ্ঠান। এই সুনাম ধরে রাখতে সচেষ্ট সংশ্লিষ্টরা। সর্বোপরি কর্মক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) নীতিমালা অনুসরণ করে আরআরএম।

 

পণ্য

বিলেট

অ্যাঙ্গেল

রানী ৪০০ডব্লিউ গোল্ড

রানী ৩০০ডব্লিউ গোল্ড

রানী টিএমটি ৫৫০ডব্লিউ গোল্ড

রানী টিএমটি ৫০০ডব্লিউ গোল্ড

উল্লিখিত পণ্যগুলো আন্তর্জাতিক মানের। আট মিমি থেকে ৩২ মিমি পর্যন্ত হয়ে থাকে রডের আকার।

ভূমিকম্পসহনীয় আরআরএমের উৎপাদিত রড। শুধু তা-ই নয়, ভূমিকম্প অনুভূত হলে ও ভূমিকম্পের পরে করণীয় সম্পর্কে জনসাধারণের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে কাজ করে তারা। তাছাড়া এতে জং ধরে না ও শতভাগ পরিশোধিত। এসব পণ্য উৎপাদনের ক্ষেত্রে কার্বণ নিঃসরণ কমিয়ে পরিবেশ রক্ষায়ও ভূমিকা রাখছে।

 

করপোরেট ক্লায়েন্ট

বসুন্ধরা গ্রুপ

অ্যাননটেক্স গ্রুপ

টিকে গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ

হুয়া থাই সিরামিকস ইন্ডাস্ট্রিজ

আদদ্বীন ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড

স্বদেশ প্রোপার্টিজ লিমিটেড

অ্যানা হোল্ডিংস লিমিটেড

তমা গ্রুপ

সূচনা গৃহায়ন লিমিটেড

ইউনিটেক গ্রুপ

গোল্ডেন ফিউচার প্রোপার্টিজ লিমিটেড

ফেয়ার বিল্ডার্স লিমিটেড

এজি প্রোপার্টিজ লিমিটেড

রূপায়ণ গ্রুপ

বিল্ডিং টেকনোলজি অ্যান্ড আইডিয়াস

এইচ ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড

বিএইচ বিল্ডার্স লিমিটেড

ডরিন গ্রুপ

এসএস হোমস লিমিটেড

বিএনএস গ্রুপ

নাসা হোল্ডিংস লিমিটেড

প্রজেক্ট বিল্ডার্স লিমিটেড

সূচনা ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড

বারাকা প্রোপার্টিজ লিমিটেড

আলিফ গ্রুপ

এক্সিন গ্রুপ

ইফোর্ট ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড

অ্যাসেট ডেভেলপমেন্টস অ্যান্ড হোল্ডিংস লিমিটেড

 

‘কয়েক বছর ধরে আরআরএম গ্রুপের অন্য অঙ্গপ্রতিষ্ঠানের মতো দক্ষতার সঙ্গে কাজ করে চলছে দ্য রানী রি-রোলিং মিলস লিমিটেড। গ্রাহকসন্তুষ্টিই আমাদের মূল শক্তি। পণ্য ও সেবার ক্ষেত্রে আমরা উদ্ভাবন ও প্রযুক্তিকে গুরুত্ব দিয়ে থাকি। গুণগত মানে সেরা পণ্য উৎপাদন ও বাজারজাত করি। গ্রাহকও আমাদের পণ্যের মান সম্পর্কে সজাগ রয়েছেন। পাশাপাশি কর্মী ও আর্থসামাজিক উন্নয়নে কাজ করছি আমরা। এভাবে মজবুত দেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করছি’

সুমন চৌধুরী, ব্যবস্থাপনা পরিচালক

 

রতন কুমার দাস