সারা বাংলা

রামগঞ্জে ভ্রাম্যমাণ গ্যাস পাম্প ঝুঁকিতে এলাকাবাসী

dav

জুনায়েদ আহম্মেদ, লক্ষ্মীপুর: লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলায় কাভার্ড ভ্যানের সিলিন্ডার থেকে পাইপলাইন দিয়ে গ্যাসচালিত যানবাহনে গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে। উপজেলার জোড়কবর নামক স্থানে জনবসতিপূর্ণ এলাকায় একটি কাভার্ডভ্যানে বহন করা সিলিন্ডার থেকে পাইপলাইনের মাধ্যমে গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে। সাড়ে তিন মাস অতিবাহিত হলেও প্রশাসন এ ব্যাপারে দৃশ্যত কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। ফলে এলাকাবাসী ও রামগঞ্জে প্রবেশের একমাত্র এ পথ দিয়ে চলাচলকারী মানুষ ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন।
সরজমিনে দেখা যায়, রামগঞ্জ-লক্ষ্মীপুর সড়কের জেলা পরিষদ শিশু পার্কের পাশে জোড়কবর নামক স্থানে বড় একটি কাভার্ড ভ্যানে সিলিন্ডার রেখে পাইপ দিয়ে সিএনজিচালিত অটোরিকশাগুলোতে গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে। গত ১৯ ফেব্রুয়ারি ড. আনোয়ান হোসেন খান এমপিকে প্রধান অতিথি ও রামগঞ্জ থানার ওসি তোতা মিয়াকে বিশেষ অতিথি করে স্বদেশ গ্লোরী সিভিজি গ্যাসস্টেশন উদ্বোধন করা হয়। রামগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র বেলাল আহমেদের জমি ভাড়া নিয়ে স্বদেশ গ্লোরী নাম দিয়ে এ গ্যাস সরবরাহ করে আসছে। পাম্পের পাশেই কয়েকটি ভবন ও লক্ষ্মীপুর-রামগঞ্জ মূল সড়কের পাশে এমন প্রক্রিয়ায় গ্যাস সরবরাহ করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় এলাকাবাসী।
এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে রামগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বেলাল আহম্মেদ জানান, জনৈক সাজ্জাদ হোসেন নামের এক ব্যক্তি এ ব্যাপারে উচ্চ আদালতে রিট করার পর হাইকোর্ট সিএনজি মালিকদের পক্ষে রায় দেন। সে আলোকেই উক্ত গ্যাস পাম্পের কার্যক্রম চলছে। তাছাড়া তিনি জমির মালিক, মাসিক ভাড়া দিয়ে তারা গ্যাস পাম্প বসিয়েছে।
লক্ষ্মীপুর ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী ফরিদ আহম্মেদ জানান, গ্যাস পাম্প হতে হলে ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষের অনুমতির প্রয়োজন হয়। কিন্তু এ ভ্রাম্যমাণ গ্যাসপাম্প কর্তৃপক্ষ কোনো অনুমতি নেয়নি।
রামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আবুল খায়ের পাটোওয়ারী জানান, স্বদেশ গ্লোরী নামে গ্যাস পাম্প স্থাপনের জন্য ট্রেড লাইসেন্স চেয়ে আবেদন করেছিল। মালিকপক্ষের কাছে গ্যাস পাম্প স্থাপনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র চাইলে তারা দেখাতে পারেনি। যার কারণে উক্ত গ্যাস পাম্প করার ট্রেড লাইসেন্স দেওয়া হয় নাই।
বাখরাবাদ গ্যাস কোম্পানির লক্ষ্মীপুর জেলার ব্যবস্থাপক আলতাফ হোসেন জানান, রামগঞ্জে ভ্রাম্যমাণ গ্যাস পাম্প সম্পূর্ণ অবৈধ ও বিপদজনক। ভ্রাম্যমাণ গ্যাস সরবরাহের বিষয়টি অবহিত হওয়ার পরপরই গত ২৫ ফেব্রুয়ারি জেলা প্রশাসক, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অবহিত করা হয়েছে। কিন্তু উচ্চ আদালতে রিট করে স্বদেশ গ্লোরী কর্তৃপক্ষ তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।
তবে স্বদেশ গ্লোরী সিভিজি গ্যাসস্টেশনের কর্তৃপক্ষ তাদের কার্যক্রমের ব্যাপারে কোনো বক্তব্য করতে রাজি হয়নি। এ পাম্প উদ্বোধনের সময় উপস্থিত সংসদ সদস্য ও ওসি তোতা মিয়া কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি। এছাড়া উচ্চ আদালতের রিটের ব্যাপারে আপিলের বিষয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকেও কোনো মন্তব্য করতে কেউই রাজি হননি।

সর্বশেষ..