হোম কোম্পানি সংবাদ রোববার থেকে স্পট মার্কেটে আরএসআরএম স্টিল

রোববার থেকে স্পট মার্কেটে আরএসআরএম স্টিল


Warning: date() expects parameter 2 to be long, string given in /home/sharebiz/public_html/wp-content/themes/Newsmag/includes/wp_booster/td_module_single_base.php on line 290

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: রতনপুর স্টিল রি-রোলিং মিলস লিমিটেড (আরএসআরএম) আজ থেকে স্পট মার্কেটে যাচ্ছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে জানা গেছে এ তথ্য।

সূত্র জানায়, বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) ও বিশেষ সাধারণ সভার (ইজিএম) রেকর্ড ডেট নির্ধারণ হয়েছে আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর। এর আগের দুদিন অর্থাৎ আগামী রবি ও সোমবার স্পট মার্কেটে শেয়ার লেনদেন হবে। রেকর্ড ডেটের দিন শেয়ার লেনদেন বন্ধ থাকবে। রেকর্ড ডেট শেষ হওয়ার পরদিন থেকে শেয়ার লেনদেন স্বাভাবিক নিয়মেই চলবে।

৩০ জুন ২০১৭ পর্যন্ত হিসাববছরের জন্য লভ্যাংশ ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া কোম্পানিটি তিনটি শেয়ারের বিপরীতে দুটি রাইট ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সদ্যসমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে পাঁচ শতাংশ নগদ ও ১৭ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। ওই সময় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে আট টাকা ১৮ পয়সা ও শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) ৪৪ টাকা ৬০ পয়সা। ঘোষিত লভ্যাংশ বিনিয়োগকারীদের সম্মতিক্রমে অনুমোদনের জন্য এজিএম ও রাইট শেয়ার-সংক্রান্ত ইজিএম আগামী ১২ অক্টোবর বেলা ১১টা ও ১টায় স্মরণিকা কমিউনিটি সেন্টার, ১৩ লাভ রোড, চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত হবে। এজন্য রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর।

কোম্পানিটি তিনটি শেয়ারের বিপরীতে দুটি রাইট ছাড়তে চায়। এজন্য কোম্পানির ১০ টাকা ফেসভ্যালুর শেয়ারের সঙ্গে ১৫ টাকা প্রিমিয়ামসহ ইস্যু মূল্য হবে ২৫ টাকা। এজন্য বিনিয়োগকারী ও বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সম্মতি নেওয়া হবে।

গতকাল শেয়ারদর এক দশমিক ২৮ শতাংশ বা এক টাকা বেড়ে প্রতিটি সর্বশেষ ৭৮ টাকা ৯০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দরও ছিল ৭৮ টাকা ৯০ পয়সা। দিনজুড়ে ছয় লাখ দুই হাজার ৩৮২টি শেয়ার মোট ৮৬৬ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর চার কোটি ৭২ লাখ ৯৮ হাজার টাকা। দিনজুড়ে শেয়ারদর সর্বনিম্ন ৭৭ টাকা ৯০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ৭৯ টাকা ২০ পয়সায় হাতবদল হয়। গত এক বছরে শেয়ারদর ৪০ টাকা ৮০ পয়সা থেকে ৯৬ টাকা ৩০ পয়সায় ওঠানামা করে।

২০১৬ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে ১০ শতাংশ নগদ ও ১০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছে, যা আগের বছর ছিল পাঁচ শতাংশ নগদ ও ২০ শতাংশ বোনাস। এ সময় কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে তিন টাকা ৪৫ পয়সা ও এনএভি হয়েছে ৪১ টাকা ছয় পয়সা। এটি আগের বছর একই সময় ছিল যথাক্রমে চার টাকা ৩৬ পয়সা ও ৪৫ টাকা ৬৩ পয়সা। ওই সময় কর-পরবর্তী আয় করেছে ২৭ কোটি ১২ লাখ ৩০ হাজার টাকা, যা আগের বছর একই সময় ছিল ২৭ কোটি ২৫ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানিটি ২০১৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। ১০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ৮৬ কোটি ৪৮ লাখ ৬০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ১৬১ কোটি ৩২ লাখ টাকা।

প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ইপিএস হয়েছে এক টাকা ২২ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল এক টাকা ১৪ পয়সা। অর্থাৎ ইপিএস বেড়েছে আট পয়সা। কর-পরবর্তী মুনাফা ছিল ৯ কোটি ৫৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা। দ্বিতীয় প্রান্তিকে ইপিএস হয়েছে দুই টাকা দুই পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল ৫১ পয়সা। অর্থাৎ ইপিএস বেড়েছে এক টাকা ৫১ পয়সা। ওই সময় কর-পরবর্তী মুনাফা করেছে ১৭ কোটি ৪২ লাখ ৯০ হাজার টাকা।

তৃতীয় প্রান্তিকে ইপিএস হয়েছে দুই টাকা ৯০ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল ৮৪ পয়সা। অর্থাৎ ইপিএস বেড়েছে দুই টাকা ছয় পয়সা। ওই সময় কর-পরবর্তী মুনাফা করেছে ২৫ কোটি ৯ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

সর্বশেষ বার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদন ও বাজারদরের ভিত্তিতে শেয়ারের মূল্য-আয় (পিই) অনুপাত ২২ দশমিক ৮৭ ও হালনাগাদ অনিরীক্ষিত ইপিএসের ভিত্তিতে ৯ দশমিক ৬৫।

কোম্পানিটির মোট আট কোটি ৬৪ লাখ ৮৬ হাজার ৪০০টি শেয়ার রয়েছে। ডিএসই’র সর্বশেষ তথ্যমতে, মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা/পরিচালকদের ৩৩ দশমিক ৩৮ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক ২৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে ৩৬ দশমিক ৬৪ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।