রোহিঙ্গাদের জন্য ১ হাজার টন সাহায্য পাঠাবেন এরদোয়ান

রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠিকে ঘিরে চলমান সংকট নিয়ে মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অং সান সুচি’র সঙ্গে মঙ্গলবার ফোনে আলোচনার পর এক হাজার টন মানবিক সাহায্য পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান।

মানবিক সাহায্য  ছাড়াও এ সংকট সমাধানের বিকল্প  বিষয় নিয়েও আলোচনা করেছেন তিনি।  মানবিক এ সাহায্যের মধ্যে রয়েছে খাদ্য, পোশাক এবং ওষুধ।

মিয়ানমার ইস্যু নিয়ে বেশ উদ্বিগ্ন  তুর্কি প্রেসিডেন্ট। রোহিঙ্গা মুসলমানদের দুর্দশার কথা জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বৈঠকে তুলে ধরবেন বলেও ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।  এরদোগান বলেন, মিয়ানমারের গণহত্যায় মানবিকতা আজ নীরব রয়েছে।

তিনি বলেন, মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর যে হত্যাযজ্ঞ চলছে তা আসছে ১৯ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বৈঠকে বিস্তারিত তুলে ধরব। সেখানে উপস্থিত বিশ্ব নেতাদের সঙ্গে ইস্যুটি নিয়ে আলোচনা করব।

ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) বর্তমান প্রেসিডেন্ট এরদোগান জানান, রোহিঙ্গা ইস্যুতে তিনি এ পর্যন্ত বিশ্বের ২০টি দেশের নেতাদের সঙ্গে কথা বলেছেন।

তুর্কি রেড ক্রিসেন্ট এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের দুর্যোগ ও জরুরি ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ রোহিঙ্গা মুসলমানদের জন্য মানবিক সাহায্য পাঠানো অব্যাহত রাখবে বলে তিনি জানান। এর আগে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতনের তীব্র নিন্দা জানিয়ে গেলো শুক্রবার বিবৃতি দেন তিনি।

মঙ্গলবার বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, এরদোয়ান সুচিকে বলেছেন, রোহিঙ্গাদের ওপর অত্যাচার নিয়ে মুসলিম বিশ্ব গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।