সারা বাংলা

লালমনিরহাটে শ্রমিকদের কল্যাণে আসছে না শ্রম কল্যাণ কেন্দ্র

জাহেদুল ইসলাম সমাপ্ত, লালমনিরহাট: লালমনিরহাটে শ্রমিকদের কোনো কাজে আসছে না সরকারি শ্রম কল্যাণ কেন্দ্র। কেন্দ্রটি শ্রমিকদের কল্যাণে প্রতিষ্ঠা হলেও এখানে নেই কোনো সেবা, তাই আসেন না কোনো শ্রমিক। আবার অনেক শ্রমিক জানেনই না শ্রম কল্যাণ কেন্দ্রটির খবর। কেন্দ্রটির কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা বছরের পর বছর অলস সময় পার করছেন।
জানা যায়, শ্রমিকদের কল্যাণে কাজ করতে ১৯৮৪ সালে কেন্দ্রটি শহরের কলেজ রোডে এক একর জায়গার ওপর প্রতিষ্ঠিত হলেও এটি ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত ব্যবহৃত হয় প্রশাসনিক ভবন হিসেবে। পরে ২০০৭ সাল পর্যন্ত ব্যবহৃত ডায়াবেটিকস সমিতির কার্যালয় হিসেবে। ২০১০ সালে এসে এটি শ্রম কল্যাণ কেন্দ্রে রূপ পায়। ১২টি পদের মধ্যে প্রধান পদ মেডিক্যাল অফিসার ও নার্সসহ সাতটি পদে লোক না থাকায় এটি অচল হয়ে রয়েছে এখনও। কোনো কর্মকাণ্ড না থাকায় কেন্দ্রের একজন লেবার অর্গানাইজার, একজন ডিসপেনশারি অ্যাসিস্ট্যান্ট, একজন ফার্মাসিস্ট, একজন অফিস সহকারী আর একজন নৈশ প্রহরীকে কাটাতে হচ্ছে অলস সময়। সারা দিন কাটে গল্পগুজব আর ক্যারম বোর্ড খেলে।
শ্রমিকরা জানান, সরকারি শ্রম কল্যাণ কেন্দ্রের খবর জানেই না অনেক শ্রমিক। আর জানবেই বা কেমন করে; কারণ কেন্দ্রটির নেই কর্মকাণ্ড, আছে শুধু ভবন আর কিছু জনবল। শ্রমিকদের কল্যাণে প্রতিষ্ঠিত সরকারি শ্রম কল্যাণ কেন্দ্রটি শ্রমিকদের কোনো কাজে না আসায় জেলার শ্রমিকরা হতাশ। তাই শ্রমিকদের অধিকার নিশ্চিত করতে আর তাদের কল্যাণে সরকারি শ্রম কল্যাণ কেন্দ্রটিকে সচল রাখতে সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছেন তারা।
অফিস স্টাফরা জানান, মেডিক্যাল অফিসার ও নার্স না থাকায় কোনো শ্রমিক এ কল্যাণ কেন্দ্র থেকে চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন না। তবে অন্য কার্যক্রম চালু রয়েছে।
জেলা ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা বাবু জানান, আমাদের কোনো খোঁজখবর নেয় না শ্রম কল্যাণ কেন্দ্র। তাছাড়া শ্রম কল্যাণ কেন্দ্রটি কোথায়Ñআমরা তা জানি না।
লালমনিরহাট সংযুক্ত শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনির জানান, শ্রম কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে পরিচালিত কেন্দ্রটি পুরোদমে চালু রাখার একাধিক প্রতিশ্রুতি এলেও বাস্তবায়ন হচ্ছে না। আর শ্রমিকরাও বঞ্চিত হচ্ছেন তাদের অধিকার থেকে। অথচ সরকার প্রতি বছর এই কেন্দ্রে কর্মচারীদের বেতন ও অন্যান্য খরচ মেটাতে গিয়ে ব্যয় করছেন কোটি কোটি টাকা। লালমনিরহাটে শ্রম কল্যাণ কেন্দ্রটি বাস্তবে শ্রমিকদের জন্য কোনো কাজ করছে না। শুধু মাঝে মধ্যে কিছু শ্রমিককে নিয়ে সেমিনার করে যা লোক দেখানো। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজর দেওয়া প্রয়োজন।
রংপুর আঞ্চলিক শ্রম কল্যাণ কেন্দ্রের উপপরিচালক মো. সাদেকুজ্জামান জানান, মেডিক্যাল অফিসার ও নার্সসহ মোট সাতটি পদে জনবল না থাকায় শ্রমিকদের সেবা দিতে পারছে না কেন্দ্রটি। আশা করা যাচ্ছে, এসব সমস্যা দ্রুত সমাধান হবে।

সর্বশেষ..