প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

লেনদেনে প্রাধান্য বিমা খাতের, দরপতনে এগিয়ে ব্যাংক

রুবাইয়াত রিক্তা: টানা ষষ্ঠ দিনের মতো দরপতন হয়েছে পুঁজিবাজারে। ছয় দিনে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক কমেছে ২০১ পয়েন্ট। এর ফলে ডিএসইএক্স সূচক আড়াই মাস আগের অবস্থানে নেমে গেছে। এর আগে গত ২৯ এপ্রিল ডিএসইএক্স সূচকের অবস্থান ছিল পাঁচ হাজার ১৭৫ পয়েন্টে। সূচক পতনের পাশাপাশি ৭৬ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। দর বেড়েছে মাত্র ১৮ শতাংশ কোম্পানির। সব খাতেই ছিল দরপতন। কোনো খাতেই ইতিবাচক গতি দেখা যায়নি। তবে লেনদেনের এক-চতুর্থাংশের বেশি ছিল বিমা খাতের দখলে। তুলনামূলকভাবে বিমা খাতেই অধিকসংখ্যক কোম্পানির দর বেড়েছে। অন্যদিকে বৃহৎ খাতগুলোর মধ্যে ব্যাংক খাতে সবচেয়ে বেশি দরপতন হয়। একটিমাত্র ব্যাংকের শেয়ারের দর বেড়েছে। এ খাতে লেনদেন কমে পাঁচ শতাংশে নেমে এসেছে। তবে টেলিযোগাযোগ খাতের গ্রামীণফোনের ১৩ টাকা দরবৃদ্ধি সূচকের আরও বড় পতন ঠেকিয়েছে।
গতকাল বিমা খাতে লেনদেন হয় ২৮ শতাংশ। এ খাতে ৩৪ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সোয়া ১১ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে সাড়ে ১৪ টাকা। কোম্পানিটি দরবৃদ্ধিতে সপ্তম অবস্থানে উঠে আসে। এছাড়া দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশের তালিকায় অবস্থান করে ঢাকা ইন্স্যুরেন্স। ফেডারেল ইন্স্যুরেন্সের সাত কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে ৭০ পয়সা। গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্সের সাড়ে ছয় কোটি টাকা লেনদেন হয়। দরপতন হয় ৪০ পয়সা। এর পরে বস্ত্র খাতে লেনদেন হয় ১২ শতাংশ। এ খাতে মাত্র ১৬ শতাংশ শেয়ারের দর বেড়েছে। পৌনে ছয় শতাংশ বেড়ে এমএল ডায়িং দরবৃদ্ধিতে চতুর্থ অবস্থানে উঠে আসে। লেনদেন হয় সাড়ে ১১ কোটি টাকা। প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ৯ শতাংশ। এ খাতে ২৩ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। বিডি অটোকার সাড়ে তিন শতাংশ বেড়ে দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে। জ্বালানি খাতে ৩১ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ১৬ কোটি টাকা লেনদেন হলেও ইউনাইটেড পাওয়ারের দরপতন হয় ৩০ পয়সা। ওষুধ খাতে ২১ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ব্যাংক খাতে একমাত্র আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের দর বেড়েছে। চামড়াশিল্প খাতের ফরচুন শুজের ১৪ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে দুই টাকা ৩০ পয়সা। কোম্পানিটি দরবৃদ্ধি ও লেনদেনে দ্বিতীয় অবস্থানে উঠে আসে। এছাড়া গ্রামীণফোনের দর পৌনে চার শতাংশ বেড়ে দরবৃদ্ধিতে অষ্টম অবস্থানে উঠে আসে। গতকাল মিউচুয়াল ফান্ডের লেনদেন মাত্র সাত শতাংশে নেমে আসে। দর বেড়েছে মাত্র পাঁচটি ফান্ডের। এর মধ্যে তিনটি ফান্ড দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে উঠে আসে।

ট্যাগ »

সর্বশেষ..



/* ]]> */