আজকের পত্রিকা

লেনদেন কমেছে ১০৪ কোটি টাকা

ডিএসইতে ৭৯ শতাংশ কোম্পানির দরপতন

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুঁজিবাজারে টানা পতন চলছে। গতকালও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ৭৯ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। ডিএসইর প্রধান সূচক কমেছে ৪৯ পয়েন্ট। লেনদেন কমেছে ১০৪ কোটি টাকা। পতনের ধাক্কায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। এ পতনের কোনো কারণ খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। চলতি সপ্তাহে টানা চার কার্যদিবসে সূচক কমেছে ১৫০ পয়েন্ট। গতকাল ডিএসইতে লেনদেনের শুরুতেই বিক্রির চাপে সূচকে পতন নেমে আসে। দুপুর ১২টার পর সামান্য বাড়ার চেষ্টা করলেও সাড়ে ১২টা থেকে সূচকের টানা পতন চলতে থাকে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সূচকও নি¤œমুখী হতে থাকে। শেষ পর্যন্ত প্রধান সূচকের ৪৯ পয়েন্ট পতন হয়। অন্যদিকে চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক, শেয়ারদর ও লেনদেনে একই চিত্র লক্ষ্য করা গেছে।
বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৪৯ দশমিক ৪১ পয়েন্ট বা দশমিক ৯৩ শতাংশ কমে পাঁচ হাজার ২৩০ দশমিক ৬৩ পয়েন্টে অবস্থান করে।
ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক ৯ দশমিক ২২ পয়েন্ট বা দশমিক ৭৬ শতাংশ কমে এক হাজার ১৯৮ দশমিক ২৬ পয়েন্টে অবস্থান করে। আর ডিএস ৩০ সূচক ১৪ দশমিক ৬১ পয়েন্ট বা দশমিক ৭৭ শতাংশ কমে এক হাজার ৮৬০ দশমিক ৯০ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন তিন লাখ ৮৭ হাজার ২৮১ কোটি ৬০ লাখ ৫৩ হাজার ৩১ টাকা হয়। ডিএসইতে গতকাল লেনদেন হয় ৪০৮ কোটি ৮৮ লাখ ১৮ হাজার ৭৪১ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৫১২ কোটি ৯১ লাখ ২৪ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন কমেছে ১০৪ কোটি টাকা। এদিন ১৫ কোটি ৭২ লাখ ৫২ হাজার ৩৪৩টি শেয়ার এক লাখ ১৯ হাজার ৪১ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৫৩ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৫১টির, কমেছে ২৭৯টির ও অপরিবর্তিত ছিল ২৩টির দর।
গতকাল টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স। কোম্পানিটির ১৫ কোটি ৭৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর কমেছে ২০ টাকা ৮০ পয়সা। রূপালী ইন্স্যুরেন্সের ৯ কোটি ২১ লাখ টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে ৩০ পয়সা। তৃতীয় অবস্থানে থাকা রানার অটোর ৯ কোটি সাত লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর কমেছে তিন টাকা ৪০ পয়সা। সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজের আট কোটি ৯১ লাখ টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে তিন টাকা ১০ পয়সা। পাইয়োনিয়ার ইন্স্যুরেন্সের আট কোটি ৭৩ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে তিন টাকা। এরপরের অবস্থানে থাকা সিঙ্গার বিডির সোয়া আট কোটি টাকার, এশিয়ান টাইগার সন্ধানী লাইফ গ্রোথ ফান্ডের আট কোটি ২৬ লাখ টাকা, ঢাকা ইন্স্যুরেন্সের সাত কোটি ৬৩ লাখ টাকার, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের সাত কোটি ০৩ লাখ টাকার ও প্রাইম ইন্স্যুরেন্সের ছয় কোটি ৮১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।
১০ শতাংশ বেড়ে দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে নিটোল ইন্স্যুরেন্স। প্রাইম ইন্স্যুরেন্সের দর ৯ দশমিক ৯১ শতাংশ। এসইএমএল এফবিএলএসএল গ্রোথ ফান্ডের দর ৯ দশমিক ৫৮ শতাংশ, পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্সের দর সাত দশমিক ৭৩ শতাংশ, পিপলস ইন্স্যুরেন্সের দর সাত দশমিক ২৭ শতাংশ, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের দর ছয় দশমিক ২৫ শতাংশ, সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজের দর চার দশমিক ১০ শতাংশ, সিএপিএম আইবিবিএল মিউচুয়াল ফান্ডের দর চার শতাংশ, ঢাকা ইন্স্যুরেন্সের দর তিন দশমিক ৯৮ শতাংশ ও কর্ণফুলী ইন্স্যুরেন্সের দর তিন দশমিক ৯৮ শতাংশ বেড়েছে।
অন্যদিকে নয় দশমিক ৯৬ শতাংশ কমে দরপতনের শীর্ষে উঠে আসে ইমাম বাটন। মেঘনা পেটের দর ৯ দশমিক ৯০ শতাংশ কমেছে। এছাড়া ফাস ফাইন্যান্সের দর ৯ দশমিক ৩০ শতাংশ, বিচ হ্যাচারির দর ৯ দশমিক ২৭ শতাংশ, ইউনাইটেড এয়ারের দর ৯ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ, বেক্সিমকো সিনথেটিকসের দর আট দশমিক ৬২ শতাংশ, প্রাইম ফাইন্যান্স ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডের দর আট দশমিক ৫৩ শতাংশ, মেঘনা কনডেন্সড মিল্কের দর আট দশমিক ৩৩ শতাংশ, পিপলস লিজিং ফিনান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেড আট দশমিক ৩৩ শতাংশ ও সাভার রিফ্রাক্টরিজের দর আট দশমিক ১৯ শতাংশ কমেছে।
সিএসইতে গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ৯৮ দশমিক ৪৮ পয়েন্ট বা এক শতাংশ কমে ৯ হাজার ৭২৭ দশমিক ৮৫ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১৬৯ দশমিক ৯৯ পয়েন্ট বা এক দশমিক শূন্য চার শতাংশ কমে ১৬ হাজার ৩০ দশমিক ২৮ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল সর্বমোট ২৬৪টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৩৯টির, কমেছে ২০৭টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ১৮টির দর।
সিএসইতে এদিন ১৮ কোটি ৭৮ লাখ ৭৩ হাজার ১৪৮ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ১৯ কোটি ৫১ লাখ ৯ হাজার ৮২৭ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসাবে লেনদেন কমেছে ৭২ লাখ ৩৬ হাজার টাকা। সিএসইতে গতকাল লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করে ভিএফএস থ্রেড লিমিটেড। কোম্পানিটির দুই কোটি ৪০ লাখ ৫০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এরপর অরিয়ন ফার্মার দুই কোটি ৩৪ লাখ টাকার, রূপালী ইন্স্যুরেন্সের ৬৬ লাখ টাকার, বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের ৫৭ লাখ টাকার, সিঙ্গার বিডির ৫৪ লাখ টাকার, বিবিএস কেব্লসের ৪৩ লাখ টাকার, গ্রামীণফোনের ৪২ লাখ টাকার, বেক্সিমকোর ৪২ লাখ টাকার, রানার অটোর সাড়ে ৪১ লাখ টাকার ও বসুন্ধরা পেপার মিলসের ৩৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

সর্বশেষ..