শাটডাউন অবসানে অনুষ্ঠিত বৈঠক ত্যাগ করলেন ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্র সরকারের অচলাবস্থা কাটেনি

শেয়ার বিজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্র সরকারে যে অচলাবস্থা চলছে সে বিষয়ে এখনও কোনো সমাধানে পৌঁছাতে পারেননি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। শাটডাউন কার্যক্রমের কারণে প্রায় ১৯ দিন ধরে আংশিক বন্ধ রয়েছে সরকারি কার্যক্রম। এর অবসানের বিষয়ে ডেমোক্র্যাট নেতাদের সঙ্গে আলোচনায় বসলেও কোনো সমাধানে না পৌঁছেই সেখান থেকে বেরিয়ে গেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। ফলে সংকট আরও ঘনীভূত হলো বলে মনে করা হচ্ছে। খবর: বিবিসি, সিএনএন।
হাউজ স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি ও সিনেটের সংখ্যালঘু দলের নেতা চাক শুমার বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্র ও মেক্সিকোর সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের জন্য অর্থ বরাদ্দ না করার ব্যাপারে নিজেদের অবস্থানে অটল থাকেন। একপর্যায়ে সেখান থেকে বেরিয়ে যান ডোনাল্ড ট্রাম্প। ফলে কোনো ধরনের সমাধান ছাড়াই বৈঠকটি শেষ হয়েছে। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এ বৈঠককে ‘সময়ের সম্পূর্ণ অপচয়’ বলে অভিহিত করেছেন।
যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় সরকারের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে প্রথমবারের মতো প্রায় আট আমেরিকান এ সপ্তাহে তাদের বেতন পাচ্ছেন না। স্বাভাবিকভাবেই শুক্রবারে তাদের বেতন না পাওয়ায় কঠিন সময় পার করতে হবে বলে দেশটির গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে। উভয় পক্ষই অনড় থাকায় সরকারি কর্মচারীদের ভোগান্তি আরও বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।
প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তার সীমান্ত দেওয়াল নির্মাণের বরাদ্দ বাবদ পাঁচ দশমিক সাত বিলিয়ন বা ৫৭০ কোটি ডলার চেয়েছেন। কিন্তু এটিকে অত্যন্ত ব্যয়বহুল ও অকার্যকর অভিহিত করে এ পরিমাণ অর্থ দিতে রাজি হননি ডেমোক্র্যাটরা। বৈঠক থেকে বেরিয়ে এক টুইটার বার্তায় ডোনাল্ড ট্রাম্প ডেমোক্র্যাট দলের নেতাদের উদ্দেশে লিখেছেন, ‘বাই বাই।’
টুইটে ট্রাম্প লেখেন, ‘চাক শুমার ও ন্যান্সির সঙ্গে বৈঠক থেকে বের হয়ে এসেছি, যা ছিল পুরোপুরি সময় নষ্ট করা। আমি বলেছি, যদি আমি আগামী ৩০ দিনের মধ্যে কিছু করি তাহলে কী হবে, আপনারা কী সীমান্ত নিরাপত্তা বিলকে অনুমোদন করবেন যার আওতায় দেওয়াল নির্মাণ করা হবে? ন্যান্সি বলেছেন, না। তখন আমি বলেছি, বাই বাই। তাহলে আর কোনো কথা নেই।’
এদিকে হোয়াইট হাউজের বাইরে শাটডাউন নিয়ে দু’দলই একে অপরকে দোষারোপ করছে। হাউজ স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি ট্রাম্পকে বলেছেন, বিপুলসংখ্যক কেন্দ্রীয় কর্মচারীদের বেতন দিতে না পারাটা একই সঙ্গে আরেকটা ক্ষতি। প্রেসিডেন্ট মনে হচ্ছে তাদের প্রতি অসংবেদনশীল হচ্ছেন। তিনি হয়তোবা মনে করছেন তারা তাদের বাবার কাছে অর্থ চাচ্ছেন এমন অভিযোগও করেছেন পেলোসি।
চাক শুমার জানিয়েছেন, ন্যান্সি পেলোসি যখন দেওয়াল নির্মাণের বিষয়ে অর্থ বরাদ্দে অনুমোদন দিতে রাজি হননি, তখনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আলোচনার মাঝখানে উঠে চলে যান। চাক শুমার জানান, ডোনাল্ড ট্রাম্প স্পিকার পেলোসিকে জিজ্ঞেস করেন, ‘আপনি কি দেওয়াল নির্মাণের ব্যাপারে রাজি আছেন?’ এর জবাবে পেলোসি বলেন, ‘না।’ এ সময় ডোনাল্ড ট্রাম্প উঠে দাঁড়ান এবং বলেন, তাহলে আলোচনা করার কিছু নেই। পরে সেখান থেকে বেরিয়ে যান তিনি।
গত মঙ্গলবার রাতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এবং সিনেট ও প্রতিনিধি পরিষদে ডেমোক্র্যাট দলের নেতাদের টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে সীমান্তে দেওয়াল নির্মাণ নিয়ে মতবিরোধের বিষয়টা স্পষ্ট হয়ে যায়। এ কারণে গত ২২ ডিসেম্বর থেকে চলমান যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় সরকারের কাজকর্মে আংশিক অচলাবস্থা অব্যাহত রয়েছে।
এতে ডেমোক্র্যাটদের সমালোচনা করে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বলেছেন, তিনি হতাশ, কারণ ডেমোক্র্যাটরা ভালো বিশ্বাসে আলোচনা করতে রাজি নয়। অপর রিপাবলিকান নেতা কেভিন ম্যককার্থি বলেছেন, ডেমোক্র্যাট নেতাদের ব্যাবহার অস্বস্তিকর মনে করেছেন তিনি। যদিও ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসন জনগণকে জিম্মি করে অর্থ আদায় করতে চায় বলে অভিযোগ করে আসছেন ডেমোক্র্যাটরা।