শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাশে থাকা ডাস্টবিন অপসারণ করুন

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জ্ঞান অর্জনের কেন্দ্র। সেখানে শিক্ষার্থীরা পাঠ্যপুস্তকের জ্ঞান আহরণের সঙ্গে সঙ্গে পারিপার্শ্বিক জ্ঞান লাভও করবে। এটাই সবার প্রত্যাশা। কিন্তু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ঢোকার মুখেই যদি বিশাল আকারের ডাস্টবিন থাকে? সে ডাস্টবিনের আবর্জনার গন্ধে সারাক্ষণ শিক্ষার্থীদের নাক ধরে কাটাতে হয়, তাহলে অবস্থা কী হবে? হ্যাঁ, এমনই অবস্থা বিরাজ করছে স্বনামধন্য ঐতিহ্যবাহী পুরান ঢাকার টিকাটুলী-সংলগ্ন সেন্ট্রাল উইমেন্স কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে। এ কলেজের দুটি দরজার মাঝখানে প্রশস্ত এলাকাজুড়ে বিশাল ময়লার স্তূপ সারাদিন জমে থাকে। প্রায়ই ময়লা ডাস্টবিন ছাড়িয়ে রাস্তায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকে। এ কারণে পথচারীদেরও দুর্ভোগ পোহাতে হয়। গোপীবাগ, টিকাটুলী, কেএম দাস লেনের যাতায়াতের পথ ধরে এমন পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এর অতি নিকটেই কামরুন্নেছা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, শিশুদের জন্য মিতালি বিদ্যানিকেতন ছাড়াও আরও কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। রয়েছে খাবারের দোকান, বই-খাতার দোকানসহ বিভিন্ন স্থাপনা। কামরুন্নেছা সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয় ও কলেজে দুই শিফটে ক্লাস হয়। সহস্রাধিক শিক্ষার্থী এখানকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোয় পড়াশোনা করে। ভোর ৬টা থেকে শিক্ষার্থী-অভিভাবক ও অফিসগামী মানুষের যাতায়াত শুরু হয়ে যায়। দিনভর আবর্জনার উটকো দুর্গন্ধে শিক্ষার্থীসহ সব মানুষের কষ্টকর পথচলা। পরিস্থিতি দেখে মনে হবে যেন এখানকার ময়লা-আবর্জনার কোনো অভিভাবক নেই। নেই কোনো প্রতিষ্ঠান এসব ময়লা অপসারণের। বিশাল এলাকাজুড়ে ময়লা-আবর্জনা ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকায় একদিকে যেমন শিক্ষার পরিবেশ বিঘিœত হচ্ছে, অন্যদিকে এলাকার পরিবেশও হয়ে উঠছে বাসের অযোগ্য। দূষিত পরিবেশ রোগবালাইয়ের জš§ দিচ্ছে। সবচেয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়, যখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো ছুটি হয়ে সহস্রাধিক শিক্ষার্থীকে যানবাহনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেতে ময়লা-আবর্জনার মধ্যেই পাশ দিয়ে হেঁটে যেতে হয়। এ বিষয়ে এলাকার কমিশনারের সঙ্গে যোগাযোগ করেও তেমন সুফল পাওয়া যায়নি। তাই এলাকাবাসীর আশা, সিটি করপোরেশন অতি দ্রুত ময়লা পরিষ্কার করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ডাস্টবিনটি সরিয়ে অন্য কোথাও স্থাপন করবে। অন্যথায় যে কোনো সময়ে ডায়রিয়াসহ অন্যান্য রোগ ছড়িয়ে পড়বে বলে আশঙ্কা তাদের। ডাস্টবিনটি অপসারণ করা না হলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতেও শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ গড়ে উঠবে না। তাই শিক্ষার সুস্থ পরিবেশ নিশ্চিত করতে ও রোগ জীবাণুর স্তূপ থেকে রক্ষা পেতে দ্রুত এ ডাস্টবিন অপসারণ করার ব্যবস্থা নেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হোক।

মামুন আজাদ
রামপুরা, ঢাকা