শীতকালীন ফল বরই

 

শাহানাজ সুলতানা: টক-মিষ্টি স্বাদের বরই শীতকালীন ফলগুলোর একটি। হাতের কাছেই পাওয়া যায় এ ফল। অন্য ফসলের পাশাপাশি বরইও কৃষি-বাণিজ্যে একটি জায়গা করে নিয়েছে। ফলটি ছোট-বড় সবার কাছে সমান কদরের। লবণ-মরিচের গুঁড়ো দিয়ে কাঁচা খেতে, বরই ভর্তা বা আচারে এর স্বাদ অতুলনীয়। স্বাদের পাশাপাশি এ ফলের রয়েছে বেশকিছু উপকারী গুণ।

বরইয়ে বিদ্যমান ভিটামিন-সি গলার ইনফেকশনজনিত অসুখ, যেমন, টনসিলাইটিস, ঠোঁটের কোণে ঘা, ঠাণ্ডাজনিত কারণে জিহ্বা লালচে ব্রণের মতো ফুলে যাওয়া ও ঠোঁটের চামড়া উঠে যাওয়া প্রতিরোধ করে।

বরইয়ের রস অ্যান্টি-ক্যানসার ড্রাগ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ক্যানসার সেল, টিউমার সেল, লিউকোমিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করার অসাধারণ শক্তি রয়েছে এ ফলটির।

উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিক রোগীর জন্য বরই উপকারী। রক্ত বিশুদ্ধকারক হিসেবেও এ ফলের গুরুত্ব অপরিসীম।

ক্রমাগত মোটা হয়ে যাওয়া, রক্তের হিমোগ্লোবিন ভেঙে রক্তশূন্যতা তৈরি হওয়া থেকে রক্ষা করে বরই। খাবারে রুচি আনার জন্যও ফলটি দারুণ ভূমিকা রাখে। যকৃতের কাজ করার ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়।

বরইয়ে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট মানবদেহের রোগ প্রতিরোধে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখে।

মৌসুমি জ্বর, হাঁপানি, সর্দি-কাশি, ডায়রিয়া, রক্তশূন্যতা ও ব্রঙ্কাইটিস ইত্যাদি রোগেও এ ফল কার্যকর।

দাঁতের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে নিয়মিত বরই খেলে উপকার পাবেন।

স্ট্রেস হরমোন আমাদের মনে অবসাদ আনে, দুঃখ-কষ্ট বাড়িয়ে দেয় ও নিদ্রাহীনতা তৈরি করে। নিদ্রাহীনতা দূর করে বরই। কমায় স্ট্রেস হরমোন নিঃসরণের মাত্রাও।