শেয়ার কেনায় এগিয়ে ছিল ব্যাংক আর্থিক ও বস্ত্র খাত

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজারে গতকাল শেয়ার কেনার চাপে সূচক টানা ঊর্ধ্বগতিতে ছিল। শেষ ঘণ্টায় বিক্রির চাপ সামান্য বাড়লেও তা উল্লেখযোগ্য নয়। শেষ পর্যন্ত ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ৪৮ পয়েন্ট ঊর্ধ্বমুখী অবস্থানে থাকে। বাকি দুটি সূচকও ইতিবাচক অবস্থানে ছিল। লেনদেন বেড়েছে প্রায় ১৩৪ কোটি টাকা। প্রায় ৬২ শতাংশ শেয়ারের দর বেড়েছে। কমেছে মাত্র ২৫ শতাংশের দর। সব খাতেই ছিল শেয়ার কেনার চাপ। সবচেয়ে বেশি কেনা হয়েছে ব্যাংক, আর্থিক ও বস্ত্র খাতের শেয়ার। তবে ব্যাংক ও আর্থিক খাতে শেয়ারদর বাড়লেও লেনদেন সেভাবে বাড়েনি।
মোট লেনদেনের এক চতুর্থাংশের বেশি হয় বস্ত্র খাতে। এ খাতে লেনদেন হয় ১৮২ কোটি টাকা। দর বেড়েছে ৭৫ শতাংশ কোম্পানির। এ খাতের আরএন স্পিনিং, ডেল্টা স্পিনিং, জাহিন স্পিনিং দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। এসব শেয়ারের দর সাত থেকে ১০ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে। এছাড়া সায়হাম কটনের ১৬ কোটি টাকা, প্যাসিফিক ডেনিমসের প্রায় ১৫ কোটি, সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের সাড়ে ১৪ কোটি, এমএল ডায়িংয়ের ১৪ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। তবে এমএল ডায়িং দুই টাকা ৮০ পয়সা দরপতনে ছিল। ২০ শতাংশ লেনদেন হয় ওষুধ ও রসায়ন খাতে। এ খাতে ৫১ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে। ফার ক্যামিকেল ইন্ডাস্ট্রিজের দর প্রায় ১০ শতাংশ বেড়েছে। অন্যদিকে সোয়া ১৮ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়ে শীর্ষে উঠে আসে স্কয়ার ফার্মা। তবে শেয়ারটির দর অপরিবর্তিত ছিল। অ্যাডভেন্ট ফার্মার ১৮ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে এক টাকা ৩০ পয়সা। সিলভা ফার্মার সাড়ে ১৪ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ১০ শতাংশ। এ খাতে ৫১ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে। বিডি অটোকার, অ্যাপোলো ইস্পাত ও ওইম্যাক্স ইলেকট্রোড দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। আর কোনো খাতেই উল্লেখযোগ্য লেনদেন হয়নি। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে লেনদেন হয় মাত্র সাত শতাংশ। এখাতে ৫৩ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে। ইউনাইটেড পাওয়ারের সাড়ে ১৪ কোটি, খুলনা পাওয়ারের প্রায় ১৩ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দরপতনে ছিল খুলনা পাওয়ার। ব্যাংক খাতে একটি কোম্পানিও দরপতনে ছিল না। তবে তিনটির দর অপরিবর্তিত ছিল। আর্থিক খাতে একটির দর কমেছে ও একটি অপরিবর্তিত ছিল। ছোট খাতগুলোর মধ্যে পাট ও টেলিযোগাযোগ শতভাগ ইতিবাচক অবস্থানে ছিল। ব্যবসা বাড়ানোর পরিকল্পনা করছে সোনালী আঁশ। এমন খবরে শেয়ারটি গতকাল দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে। অন্যদিকে ঋণ পরিশোধের ক্ষমতা না থাকায় জুট স্পিনার্সের ভবিষ্যৎ নিয়ে কোম্পানিটির নিরীক্ষক শঙ্কা প্রকাশ করা সত্ত্বেও গতকাল জেড ক্যাটেগরির শেয়ারটির দর বেড়েছে ১০ টাকা ৮০ পয়সা। সিমেন্ট খাতে ৮৫ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে।