কোম্পানি সংবাদ

শেয়ার বেচবেন ব্র্যাক ব্যাংকের পরিচালক

নিজস্ব প্রতিবেদক: ব্যাংক খাতের কোম্পানি ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেডের মনোনীত পরিচালক সৈয়দ এস কাইসার কবির শেয়ার বিক্রির ঘোষণা দিয়েছেন। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
তথ্যমতে, সৈয়দ এস কাইসার কবির তার হাতে থাকা কোম্পানির এক লাখ ৫৮ হাজার ১২৫টি শেয়ারের সব শেয়ার বিক্রি করবেন। আগামী ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে বর্তমান বাজারদরে সাধারণ মার্কেটে উল্লিখিত পরিমাণ শেয়ার বিক্রি করবেন।
এদিকে সর্বশেষ কার্যদিবসে ডিএসইতে শেয়ারদর শূন্য দশমিক ৩২ শতাংশ বা ২০ পয়সা কমে প্রতিটি সর্বশেষ ৬২ টাকায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ৬১ টাকা ৬০ পয়সা। দিনজুড়ে সাত লাখ ৭৮ হাজার ৮১০টি শেয়ার মোট ৯২০ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর চার কোটি ৮১ লাখ ৯৭ হাজার টাকা। দিনজুড়ে শেয়ারদর সর্বনিম্ন ৬১ টাকা ৪০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ৬২ টাকা ৯০ পয়সায় হাতবদল হয়। এক বছরে শেয়ারদর ৫৫ টাকা থেকে ৯০ টাকা ৪০ পয়সার মধ্যে ওঠানামা করে।
২০১৮ সালের ৩১ ডিসম্বের সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে কোম্পানিটি ১৫ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। আলোচিত সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে পাঁচ টাকা ১৭ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ৩২ টাকা ৮৭ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় যথাক্রমে চার টাকা ৮৬ পয়সা ও ২৪ টাকা ৮০ পয়সা ছিল।
এর আগে ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে কোম্পানিটি বিনিয়োগকারীদের জন্য ২৫ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছিল, যা তার আগের বছর ছিল ১০ শতাংশ নগদ ও ২০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ। আলোচিত সময়ে ইপিএস হয়েছিল ছয় টাকা সাত পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি এনএভি হয়েছিল ৩১ টাকা ১০ পয়সা, যা তার আগের বছর একই সময় ছিল যথাক্রমে পাঁচ টাকা ৪৭ পয়সা ও ৩১ টাকা ৩৪ পয়সা। ২০১৭ সালে মোট মুনাফা করে ৫১৯ কোটি ২৭ লাখ ৯০ হাজার টাকা, যা তার আগের বছর ছিল ৩৮৮ কোটি ৭৯ লাখ ৪০ হাজার টাকা।
‘এ’ ক্যাটেগরির এ কোম্পানিটি ২০০৭ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। দুই হাজার কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন এক হাজার ২৩৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ এক হাজার ৯০৬ কোটি ২৫ লাখ ৩৯ হাজার টাকা। কোম্পানিটির ১২৩ কোটি ৩৩ লাখ ৭৫ হাজার ৩২৭টি শেয়ার রয়েছে। ডিএসই থেকে প্রাপ্ত সর্বশেষ তথ্যমতে, কোম্পানির মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের কাছে ৪৪ দশমিক ৩০ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক সাত দশমিক ৪৫ শতাংশ, বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছে ৪২ দশমিক ৫৯ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে রয়েছে পাঁচ দশমিক ৬৬ শতাংশ শেয়ার। সর্বশেষ বার্ষিক প্রতিবেদন ও বাজারদরের ভিত্তিতে শেয়ারের মূল্য আয় (পিই) অনুপাত ১১ দশমিক ৯১ এবং হালনাগাদ অনিরীক্ষিত ইপিএসের ভিত্তিতে ১৫ দশমিক দুই।
এদিকে চলতি আর্থিক বছরের দুই প্রান্তিক বা ছয় মাস শেষে কোম্পানিটির মোট টার্নওভার বা বিক্রি আয় হয়েছে ৮০৬ কোটি ৯৫ লাখ ৪০ হাজার টাকা। আর চলতি ব্যবসায় মুনাফা দাঁড়িয়েছে ২৫৩ কোটি ৪২ লাখ ৬০ হাজার টাকা। চলমান ব্যবসা বহির্ভূত আয়সহ মুনাফা দাঁড়িয়েছে ২৫৩ কোটি ৪২ লাখ ৬০ হাজার টাকা। মোট কম্প্রিহেনসিভ আয় হয়েছে ২৫৩ কোটি ৪২ লাখ ৬০ হাজার টাকা। এছাড়া চলমান ব্যবসায় শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে দুই টাকা পাঁচ পয়সা।

সর্বশেষ..



/* ]]> */