প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

সংশোধনমুখী বাজারে চাহিদা ছিল মিউচুয়াল ফান্ডের

রুবাইয়াত রিক্তা: টানা তিন দিন ইতিবাচক থাকার পর গতকাল সংশোধন হয়েছে পুঁজিবাজারে। তবে সূচক খুব ধীরগতিতে রয়েছে। শেষ মুহূর্তে শেয়ার কেনার চাপ সত্ত্বেও সূচক নেতিবাচক ছিল। গ্রামীণফোনের বড় দরপতনে সূচকে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। আগের দিন বস্ত্র খাতের উত্থান হলেও গতকাল এ খাতে সংশোধন হয়। লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে ওষুধ ও রসায়ন খাত। তবে এ খাতের পাশাপাশি গতকাল চাহিদা বেশি ছিল মিউচুয়াল ফান্ড খাতের। বেশ কয়েকদিন দর সংশোধনের পর ফের গতকাল চাহিদা বেড়েছে মিউচুয়াল ফান্ডের। তবে লেনদেন অপরিবর্তিত ছিল। ব্যাংক খাতে এক শতাংশ লেনদেন বেড়েছে, কমেছে প্রকৌশল খাতে।
গতকাল ১৪ শতাংশ করে লেনদেন হয় ওষুধ ও রসায়ন এবং বস্ত্র খাতে। বস্ত্র খাতে লেনদেন হয় ৬৬ কোটি টাকা। এ খাতে ৫৩ শতাংশ কোম্পানি দরপতনে ছিল। প্রায় ১০ শতাংশ বেড়ে আলহাজ্ব টেক্সটাইল দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে। গত তিন কার্যদিবসে শেয়ারটির দর ১৫ টাকা ৯০ পয়সা বেড়েছে। গত দেড় মাস ধরে কোম্পানিটির উৎপাদন বন্ধ থাকা সত্ত্বেও শেয়ারটির দর বাড়ার কোনো কারণ জানা যায়নি। ড্রাগন সোয়েটারের পৌনে ১১ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে এক টাকা। স্টাইল ক্রাফটের সাড়ে ১০ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে সাড়ে ১৮ টাকা। ওষুধ ও রসায়ন খাতে ৫৯ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। এ খাতের স্কয়ার ফার্মার সাড়ে ২৭ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ২০ পয়সা। সিলকো ফার্মার প্রায় ৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে এক টাকা। বীকন ফার্মা ও ইন্দোবাংলা ফার্মার প্রায় আট কোটি টাকা করে লেনদেন হয়। দর ইতিবাচক ছিল। প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ১১ শতাংশ। এ খাতে ৩৮ শতাংশ কোম্পানির দর ইতিবাচক ছিল। কপারটেক ইন্ডাস্ট্রিজ প্রথমদিনেই দর বৃদ্ধির চমক দেখিয়েছে। ৩৫ টাকা ৫০ পয়সা বা ৩৫৫ শতাংশ দর বৃদ্ধির পাশাপাশি লেনদেন হয় ৩১ কোটি টাকার। এছাড়া মুন্নু জুট স্টাফলার্সের সোয়া ১৪ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৬৯ টাকা ৯০ পয়সা। দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে কোম্পানিটি। গত ২৫ জুলাই থেকে মুন্নু স্টাফলার্সের দর টানা বাড়ছে। আট কার্যদিবসে শেয়ারটির দর বেড়েছে ৪৭৫ টাকা ৬০ পয়সা। এছাড়া ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে লেনদেন হয় ৯ শতাংশ। এ খাতে ৫২ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ইউনাইটেড পাওয়ারের সোয়া ১৬ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ৭০ পয়সা। মিউচুয়াল ফান্ড খাতে লেনদেন না বাড়লেও দর বেড়েছে ৮৬ শতাংশ ইউনিটের। গতকাল ছয় মিউচুয়াল ফান্ড দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে উঠে আসে। ব্যাংক খাতে লেনদেন বেড়েছে এক শতাংশ। এ খাতে ৪৬ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। বিবিধ খাতের বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের সাড়ে ১৫ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে একটাকা ১০ পয়সা। সিরামিক খাতের মুন্নু সিরামিকের ২৫ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ১৭ টাকা ৬০ পয়সা। পাট খাত শতভাগ ইতিবাচক ছিল। গ্রামীণফোনের ১৬ টাকা ৪০ পয়সা দরপতন হয়ে কোম্পানিটি দরপতনের শীর্ষ দশের মধ্যে অবস্থান করে।

সর্বশেষ..



/* ]]> */