শোবিজ

সংস্কৃতি খাতের বাজেট নিয়ে হতাশা

শোবিজ ডেস্ক: ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে সংস্কৃতি খাতে বরাদ্দ কমেছে। বাজেট ঘোষণা হওয়ার পর থেকেই এ বিষয় নিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। বিশেষ করে সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বরা এ বাজেট নিয়ে হতাশা ব্যক্ত করেছেন। গত অর্থবছরের সংশোধিত প্রস্তাবিত বাজেটের তুলনায় ৫০ কোটি টাকা কম বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। সংস্কৃতি খাতের মূল বাজেটের ন্যূনতম এক শতাংশ বরাদ্দের দাবি জানিয়ে আসছিলেন তারা। সে হিসেবে সংস্কৃতি খাতে যে বাজেট দেওয়া হয়েছে, তা মোটেও সন্তোষজনক নয়। এবারের বাজেটের আকার পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা, যা জিডিপির ১৮ দশমিক এক শতাংশ। এর মধ্যে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের জন্য বাজেট প্রস্তাব করা হয়েছে ৫৭৫ কোটি টাকা। গত বছর প্রস্তাবিত বাজেট ছিল ৫১০ কোটি টাকা এবং সংশোধিত বাজেট ছিল ৬২৫ কোটি টাকা। সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার বলেন, ‘দেশব্যাপী শুদ্ধ সংস্কৃতিচর্চার প্রসার ঘটাতে হলে এ খাতে বরাদ্দ বাড়াতে হবে। সরকারের কাছে আমাদের দাবি মূল বাজেটের এক শতাংশ সংস্কৃতি খাতের জন্য বরাদ্দ করা হোক।’ নাট্যজন মামুনুর রশীদ বলেন, ‘সরকার নিশ্চয়ই চায় না, আমাদের সংস্কৃতি ধ্বংস হোক? সংস্কৃতিবান্ধব সরকারের কাছে আমরা এ বাজেট আশা করি না। আশা করি, আমাদের যে দাবিটি তা মেনে নেওয়া হবে।’ চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব ও সংসদ সদস্য ফারুক বলেন, চলচ্চিত্র খাতের বরাদ্দ আরেকটু বাড়ানো প্রয়োজন। এবার যেটা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে, সেটা সামগ্রিক বরাদ্দের তুলনায় সামান্যই বলব। চলচ্চিত্রশিল্পকে এগিয়ে নিতে রাষ্ট্রের আর্থিক পৃষ্ঠপোষকতাও জরুরি।’ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ বলেন, ‘এ বাজেট দেখে আমরা হতাশ। সংস্কৃতি খাতে মূল বাজেটের এক শতাংশ করার দাবি ছিল আমাদের। এ সরকার মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সরকার, তাই আমাদের প্রত্যাশাও তাদের কাছে বেশি। এখনও যেহেতু বাজেট পাস হয়নি, তাই সময় আছে আমাদের দাবি মেনে নেওয়ার।’

সর্বশেষ..