সফলতা অর্জনে পরিশ্রমের বিকল্প নেই

শুধু উপস্থাপনা করেই থেমে নেই সোহানা সাবরিন ইভা। চাকরিও করছেন গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্টে। পারদর্শিতা রেখেছেন ফ্যাশন ডিজাইনার ও ইন্টেরিওর ডিজাইনার হিসেবে। তবে বর্তমানে ফ্যাশন সচেতন উপস্থাপক হিসেবেই পরিচিতি পাচ্ছেন বেশি। সম্প্রতি ক্যারিয়ার ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন শেয়ার বিজের সঙ্গে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন এইচ রহমান

শেয়ার বিজ: মিডিয়ায় পথচলা কত বছর হলো?

সোহানা সাবরিন ইভা: প্রায় ১০ বছর।

শেয়ার বিজ: মিডিয়াতে কাজ করবেন এমন স্বপ্ন কি ছোটবেলাতেই ছিল?

সোহানা সাবরিন ইভা: বলতে পারেন। ছোটবেলায় প্রচুর ছবি আঁকতাম, আবৃত্তি করতাম। টিভিতে কীভাবে উপস্থাপনা করে সেগুলো অনুসরণ করতাম। ঘরে বসে অনুশীলন করতাম। যখন দশম শ্রেণিতে পড়ি তখন স্কুলের বিভিন্ন প্রোগ্রামে উপস্থাপনা করতাম। কবিতা আবৃত্তি করতাম। শিক্ষকরা আমাকে উৎসাহ দিতেন। আমারও ভালো লাগত।

শেয়ার বিজ: এখন তো উপস্থাপনা থেকে অনেকে অভিনয়ও করছেন, আপনার এমন কোনো পরিকল্পনা আছে?

সোহানা সাবরিন ইভা: ইতোমধ্যেই বেশকিছু জায়গা থেকে প্রস্তাব এসেছে। সামনে কিছু টিভিসি করতে যাচ্ছি। নাটকেও অভিনয়ের জন্য প্রস্তাব পাচ্ছি, তবে ভালো গল্পের অপেক্ষা করছি। নিজের সঙ্গে যায় এমন ধরনের গল্প পেলে অভিনয় করব।

শেয়ার বিজ: মিডিয়ায় কাজ করা জন্য পরিবারের কাছ থেকে কেমন সমর্থন পেয়েছেন?

সোহানা সাবরিন ইভা: পরিবারের থেকে সব সসময়ই সমর্থন পেয়েছি। বিশেষ করে আমার বড় ভাই চিকিৎসক নাদিম আহম্মেদ তিনি অনেক সহযোগিতা করেছেন। তিনি সহযোগিতা না করলে হয়তো এতদূর আসতে পারতাম না। বড় ভাই আমেরিকায় থাকেন। তিনি সেখানকার চিকিৎসক। আমার ক্যারিয়ারে তার অবদান সবচেয়ে বেশি। এছাড়া মিডিয়াতে যার অনুপ্রেরণায় কাজ করছি তিনি হচ্ছেন বশিউর আলম নান্নু ভাই।

শেয়ার বিজ: আপনার পরিবার সম্পর্কে জানতে চাই…

সোহানা সাবরিন ইভা: আমরা চার ভাই-বোন। আমি সবার ছোট। মজার ব্যাপার হচ্ছে আমি আর আমার বোন টুইন। সেসহ পরিবারের সবাই আমেরিকায় থাকেন। ছোট ভাই রিয়াজ আহম্মেদ ইউক্রেনে পিএইচডি করছেন। পাশাপাশি এভিয়েশনে ব্যবসা করেন।

শেয়ার বিজ: নতুনভাবে যারা উপস্থাপনায় আসতে চান তাদের উদ্দেশে আপনার পরামর্শ কী?

সোহানা সাবরিন ইভা: বিশেষ করে যদি উপস্থাপনার ক্ষেত্রে বলতে যায় তাহলে আমি বলব প্রচুর পড়ুন। টেলিভিশনে উপস্থাপনা অনুসরণ করুন এবং বাসায় বসে অনুশীলন করুন। যে বিষয়ের ওপর উপস্থাপনা করতে চান সেগুলো নিয়ে প্রচুর জানুন। অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক বিষয়গুলো নিয়ে। নিজেকে সর্বোচ্চ চূড়ায় নিয়ে যেতে হলে প্রচুর পরিশ্রম করতে হবে। সফলতা অর্জনে পরিশ্রমের বিকল্প নেই।

শেয়ার বিজ: কাজ করতে গিয়ে কখনও অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়েছে কি না?

সোহানা সাবরিন ইভা: আমাকে এখন পর্যন্ত কোনো বাজে পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়নি। নিজে সৎ থাকলে সবকিছুই ঠিক থাকে। এটি সত্য ভালো-মন্দ সব পেশায় রয়েছে।

শেয়ার বিজ: স্মরণীয় ঘটনা…

সোহানা সাবরিন ইভা: ছোটবেলার একটা ঘটনা কখনো ভুলব না। আমি তখন নার্সারিতে পড়ি। একদিন খেলা করতে করতে মাথা নিচু অবস্থায় দুতলা থেকে পড়ে যাই, তখন ভাইয়া নিচে থেকে আমাকে ধরলে প্রাণে বেঁচে যাই। সেদিনের কথা মনে হলে এখনও বেঁচে আছি এটা বিশ্বাস হয় না।

শেয়ার বিজ: উপস্থাপক না হলে কী হওয়ার ইচ্ছা ছিল?

সোহানা সাবরিন ইভা: আমার ফ্যাশন ডিজাইনার ও ইন্টেরিওর ডিজাইনিংয়ে বেশ অভিজ্ঞতা রয়েছে। উপস্থাপক বা চাকরি দুটোর কিছুই না করলে অবশ্যই ফ্যাশন ডিজাইনার বা ইন্টেরিওর ডিজাইনার হিসেবে কাজ করতাম।

শেয়ার বিজ: ধন্যবাদ। ভালো থাকবেন।

সোহানা সাবরিন ইভা: আপনাকেও অসংখ্য ধন্যবাদ। আপনিও ভালো থাকবেন।