সাপ্তাহিক লেনদেনের ৪.৭৮% বিবিএস কেব্লসের

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রকৌশল খাতের কোম্পানি বিবিএস কেব্লস লিমিটেড ১৬৪ কোটি ৩৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন করেছে, যা মোট লেনদেনের চার দশমিক ৭৮ শতাংশ। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
গত সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির মোট এক কোটি ৪৮ লাখ ১৭ হাজার ৯৯৮টি শেয়ার হাতবদল হয়েছে, যার বাজারদর ১৬৪ কোটি ৩৩ লাখ ৯৭ হাজার টাকা, যা মোট লেনদেনের চার দশমিক ৭৮ শতাংশ। কোম্পানির শেয়ারদর আগের সপ্তাহের চেয়ে ১২ দশমিক ৬৯ শতাংশ বেড়েছে।
সর্বশেষ কার্যদিবসে শেয়ারদর ছয় দশমিক ৫২ শতাংশ বা সাত টাকা ৩০ পয়সা বেড়ে প্রতিটি সর্বশেষ ১১৯ টাকা ২০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ১১৮ টাকা ১০ পয়সা। দিনজুড়ে ৩৬ লাখ ৪৩ হাজার ৪৭২টি শেয়ার মোট পাঁচ হাজার ২৬২ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর ৪১ কোটি ৯৮ লাখ সাত হাজার টাকা। দিনজুড়ে শেয়ারদর সর্বনি¤œ ১১০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১১৯ টাকা ২০ পয়সায় হাতবদল হয়। এক বছরে শেয়ারদর ৭০ টাকা ১০ পয়সা থেকে ১৫৮ টাকার মধ্যে ওঠানামা করে।
২০১৭ সালে ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরে কোম্পানিটি বিনিয়োগকারীদের পাঁচ শতাংশ নগদ ও ১৫ শতাশং বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছে। ওই সময় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে চার টাকা ১২ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৯ টাকা ১৭ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল যথাক্রমে ১৭ টাকা ৩৪ পয়সা ও ১৬ টাকা ৮৭ পয়সা। ওই সময় কর-পরবর্তী মুনাফা করেছে ৪১ কোটি ৩৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এটি আগের বছরের একই সময় ছিল ২৪ কোটি ৬০ লাখ ৮০ হাজার টাকা।
কোম্পানিটির মোট ১৩ কোটি ৮০ লাখ শেয়ার রয়েছে। কোম্পানির মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের রয়েছে ৩৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক ১১ দশমিক ১০ শতাংশ, বিদেশি দশমিক শূন্য আট শতাংশ এবং বাকি ৫৫ দশমিক ৪৯ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে।
‘এ’ ক্যাটেগরির কোম্পানিটি ২০১৭ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। কোম্পানির ৩০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ১৩৮ কোটি টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ৯২ কোটি চার লাখ টাকা। চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ইপিএস হয়েছে এক টাকা ৫৭ পয়সা। এটি আগের বছরের একই সময় ছিল ৬৬ পয়সা। অর্থাৎ ইপিএস ৯১ পয়সা বেড়েছে। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ পর্যন্ত এনএভি ছিল ২০ টাকা ৭৪ পয়সা। এটি একই বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত ছিল ১৯ টাকা ১৭ পয়সা। ওই সময় কর-পরবর্তী মুনাফা হয়েছে ১৮ কোটি ৮৬ লাখ ৯০ হাজার টাকা। দ্বিতীয় প্রান্তিকে ইপিএস হয়েছে দুই টাকা ১৬ পয়সা এবং কর-পরবর্তী মুনাফা করেছে ২৯ কোটি ৮০ লাখ ১০ হাজার টাকা, যা তৃতীয় প্রান্তিকে ইপিএস হয়েছে দুই টাকা ৩১ পয়সা এবং মুনাফা করেছে ৩১ কোটি ৯৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা। সর্বশেষ বার্ষিক প্রতিবেদন ও বাজারদরের ভিত্তিতে শেয়ারমূল্য আয় (পিই) অনুপাতে ২৮ দশমিক ৬৭ এবং হালনাগাদ অনিরীক্ষিত ইপিএসের ভিত্তিতে ১৫ দশমিক ১৭।